স্মার্টফোনের থেকেও চার্জ হবে দ্রুত, Pi Beam আনলো Pimo ইলেকট্রিক বাই-সাইকেল

Pimo e bike launched price in India RS 30000 mileage

আইআইটি মাদ্রাজে ইউকিউবেটেড হওয়া স্টার্ট-আপ Pi Beam (পাই বিম) সম্প্রতি এমনই একটি ইলেকট্রিক বাইসাইকেল নিয়ে হাজির হয়েছে যা স্মার্টফোনের থেকেও দ্রুত চার্জ হবে। অবিশ্বাস্য হলেও সংস্থাটি এমনই দাবি করেছে। নতুন ই-বাইকটির নাম Pimo এবং স্বল্প গতি সম্পন্ন হওয়ায় এটি চালানোর জন্য কোনো রেজিস্ট্রেশন বা ড্রাইভিং লাইসেন্সের প্রয়োজন পড়বে না। Pi Beam জানিয়েছে, ২০২১-২০২২ অর্থবর্ষে তারা PiMo ই-বাইকের ১০,০০০ ইউনিট বিক্রি করার লক্ষ্যমাত্রা রেখেছে।

মেক ইন ইন্ডিয়া প্রকল্পের ডাকে অনুপ্রাণিত হয়ে পাইমো-র ৯০ শতাংশ উপকরণ ভারতেই তৈরি হয়েছে, যার মধ্যে আছে ব্যাটারি এবং কন্ট্রোলারের মতো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সরঞ্জাম। এতে সোয়াইপেবল ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে, যা চার্জিং স্টেশনে গিয়ে ফুল চার্জড ব্যাটারির সাথে এক্সচেঞ্জ করে নেওয়া যাবে। একবার চার্জ দিলে ই-সাইকেলটি ৬০ কিলোমিটার অব্দি চালানো যাবে। চার্জিং টাইম মাত্র ২ ঘন্টা। আবার এর সর্বোচ্চ গতিবেগ ২৫ কিমি/ঘন্টা।

পাইমো ইলেকট্রিক বাইসাইকেল এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে যাতে সকল বয়সী ব্যবহারকারীদের জন্য এটি উপযুক্ত হয়। মূলত প্যাডেল চালিত প্রচলিত সাইকেলের আপগ্রেড হিসেবেই একে উপস্থাপন করা হয়েছে। এর কাঠামো খুবই সাধারণ ফলে এটি সহজেই ব্যবহারযোগ্য। আবার স্বল্প দূরত্বের যাতায়াতের জন্য এটি একেবারে আদর্শ বিকল্প। এতে বড়ো এবং আরামদায়ক সিট মিলবে। সেইসঙ্গে এটি সুইং আর্ম মেকানিজম এবং সাসপেনশনের জন্য ডুয়াল শক অ্যাবজর্ভার সহ এসছে।

পাইমো ইলেকট্রিক বাইসাইকেলের দাম রাখা হয়েছে ৩০,০০০ টাকা। পাই বিম প্রসঙ্গে সংস্থার সিইও বিশাখ শশীকুমার বলছেন, “Pi Beam Electric লজিস্টিক এবং ট্রান্সপোর্টেশনের জন্য ইন্ড-টু-ইন্ড মাইক্রো-মোবিলিটি সলিউশনস সরবরাহ করার লক্ষ্য নিয়েছে। আমরা একদল উৎসাহী মানুষ যারা বিশ্বাস করে মাইক্রো-মোবিলিটি হচ্ছে ভবিষ্যত।”

প্রসঙ্গত, সংস্থাটি আগে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা থেকে শুরু করে ই-কমার্স ডেলিভারির জন্য ইলেকট্রিক ট্রাইক লঞ্চ করেছিল। নতুন ইলেকট্রিক বাইসাইকেল ছাড়াও বাজারে পাইবিমের এখন তিনটি প্রোডাক্ট উপলব্ধ। এগুলি হল E-Trike, E-Kart-এবং E-Auto।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন