ভারতে ডিজিটাল মুদ্রা ব্যানের খবর ছড়াতেই হু হু করে কমলো Bitcoin, Ether-এর দাম

বিশ্বের সবচেয়ে মূল্যবান ক্রিপ্টো কয়েন, বিটকয়েনের বাজার মূল্যে দেখা গিয়েছে ১৭% পতন। ইথার (Ether) ও টেথার (Tether) ও যথাক্রমে ১৫% ও ১৮% মূল্য হ্রাস ঘটিয়েছে

price-of-crypto-crash-bitcoin-ether-after-centre-says-will-bring-bill-to-prohibit-private-cryptocurrencies

বুধবার, সরকারের তরফে, একটি নতুন অর্থনৈতিক বিলের মাধ্যমে ভারতে প্রায় সমস্ত প্রাইভেট ক্রিপ্টো কারেন্সি নিষিদ্ধ করার ঘোষণা প্রকাশ্যে আসার পরেই, আজ সকাল থেকে, ছন্দপতন দেখা গেল ক্রিপ্টো বাজারে।

গত সপ্তাহে আকাশছোঁয়া সর্বোচ্চ রেকর্ড মূল্যে ট্রেড করার পর, খানিকটা ছেদ পড়েছিল বিটকয়েন (Bitcoin) সহ অন্যান্য জনপ্রিয় মুদ্রা গুলির বাজারদরে। তবে, বুধবার কেন্দ্রের তরফে সংশ্লিষ্ট ঘোষণাটির পর যেন একধাক্কায় আরও খানিকটা নেমে গেলো বিটকয়েন, ইথার (Ether)- দের ট্রেডমূল্য।

আজকের হিসেবে, অধিকাংশ জনপ্রিয় কয়েনগুলির বাজারদর ১৫ শতাংশেরও বেশী নেমে গিয়েছে। বিশ্বের সবচেয়ে মূল্যবান ক্রিপ্টো কয়েন, বিটকয়েনের বাজার মূল্যে দেখা গিয়েছে ১৭% পতন। ইথার (Ether) ও টেথার (Tether) ও যথাক্রমে ১৫% ও ১৮% মূল্য হ্রাস ঘটিয়েছে।

এইমুহুর্তে, ভারতীয় এক্সচেঞ্জের হিসেব অনুযায়ী, দেশীয় বাজারে বিটকয়েনের বাজারদর ৫৬,৫৪৩ ডলার এবং বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মূল্যবান মুদ্রা, ইথারের বাজারদর ৪,২৭৩ ডলার।

বুধবার প্রকাশিত সরকারী তথ্য থেকে জানা যায়, নভেম্বর ২৯ তারিখে, পার্লামেন্টের আসন্ন শীতকীলীন অধিবেশনে, ‘ক্রিপ্টো কারেন্সি অ্যান্ড রেগুলেশন অব্ অফিশিয়াল ডিজিটাল কারেন্সি বিল ২০২১’ নামে একটি নতুন অর্থনীতি সম্বন্ধিত বিল পেশ করা হবে।

বিলটির মাধ্যমে সম্ভবত দেশজুড়ে বেশিরভাগ প্রাইভেট ক্রিপ্টো মুদ্রার ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হবে। তবে, ক্রিপ্টোকারেন্সি সংক্রান্ত প্রযুক্তি ও তার ব্যবহার কে তুলে ধরতে, দেশে গুটিকয়েক প্রাইভেট ক্রিপ্টো মুদ্রা অবশ্য ছাড়পত্র পেতে পারে, সূত্র মারফত এমনটাই জানা যাচ্ছে।

সরকারের বক্তব্য অনুযায়ী, খুব শীঘ্রই দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক গোটা দেশজুড়ে একটি একক অফিশিয়াল ডিজিটাল কারেন্সি চালু করতে চলেছে। এই আসন্ন অফিশিয়াল কারেন্সিটির জন্য একটি সঠিক পরিকাঠামো প্রদান করাই মূলত নয়া অর্থনৈতিক বিলটির উদ্দেশ্য।

প্রসঙ্গত, বেশ অনেক দিন ধরেই, বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগকৃত টাকার নিরাপত্তা ও রাতারাতি গজিয়ে ওঠা বিভিন্ন ক্রিপ্টো এক্সচেঞ্জ মাধ্যমগুলির, নানা বিভ্রান্তমূলক বিজ্ঞাপন দ্বারা যুবসমাজ কে প্রলোভিত করার প্রবণতার বিষয়টিতে কড়া নজর ছিল কেন্দ্রের। আসন্ন আইনটি এইসব অবাঞ্ছিত প্রচারেও লাগাম টানবে বলেই মনে করছেন বিশিষ্ট মহল।

সম্প্রতি, সিডনি ডায়ালগের ভার্চুয়াল মঞ্চ থেকে ক্রিপ্টো বিষয়ে গোটা বিশ্ব কে কড়া হুঁশিয়ারি শোনান প্রধানমন্ত্রী, নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। বিশ্বের বড় বড় গণতন্ত্রগুলিকে ক্রিপ্টো নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কে একজোট হতেও অনুরোধ করেন তিনি।

পাশাপাশি, কিছুদিন পূর্বেই, দেশের খুচরো বিনিয়োগকারীদের স্বার্থের কথা মাথায় রেখে, অনিয়ন্ত্রিত, বেপরোয়া ক্রিপ্টো বাজার সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিল রিজার্ভ ব্যাংক অফ্ ইন্ডিয়া ও SEBI-ও।

টেকগাপের মেম্বাররা ও সদ্য যোগ দেওয়া লেখকরা এই প্রোফাইলের মাধ্যমে টেকনোলজির সমস্ত রকম খুঁটিনাটি আপনাদের সামনে আনে।