EV: বৈদ্যুতিক গাড়ির দাম হবে পেট্রোল চালিত গাড়ির সমান, ঘোষণা নিতিন গডকড়ীর

নিতিন গডকড়ী বলেছেন কোনো সংস্থার বৈদ্যুতিক গাড়ির দাম সেই মডেলের পেট্রোল ভার্সনের মূল্যের সমান হতে হবে

price-of-ev-electric-car-will-be-same-as-petrol-counterparts-in-two-years-nitin-gadkari

আগামী দুই বছরের মধ্যে দেশে বৈদ্যুতিক গাড়ির দাম কমার ইঙ্গিত দিলেন কেন্দ্রীয় সড়ক ও পরিবহণ মন্ত্রী নিতিন গডকড়ী (Nitin Gadkari)। কোনো সংস্থার বৈদ্যুতিক গাড়ির দাম সেই মডেলের পেট্রোল ভার্সনের মূল্যের সমান হতে হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। বর্তমানে প্রধান হাইওয়েগুলি তৈরীর পাশাপাশি দেশে ইলেকট্রিক কার উৎপাদনের জন্য উৎসাহ ভাতা দেওয়া হচ্ছে, এমনকি পেট্রোল পাম্পগুলিতে ইভি চার্জিং পয়েন্ট বসানোর কাজ চলছে বলেও জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী।

গতকাল নিতিন গডকড়ী একটি ওয়েবিনার থেকে দেশের জৈব জ্বালানির তুলনায় বৈদ্যুতিক জ্বালানি নির্ভর যানবাহনের প্রতি গতিশীলতা বাড়ানোর কথা উল্লেখ করেছেন। এ প্রসঙ্গে গডকড়ী বলেছেন, “সরকার ইতিমধ্যেই দেশের পেট্রোল পাম্পগুলিতে ইভি চার্জিং স্টেশন তৈরীর বিষয়ে একটি নীতি প্রণয়ন করেছে। আগামী দু’বছরের মধ্যে সমগ্র ভারতে প্রচুর চার্জিং পয়েন্ট তৈরি হয়ে যাবে।” পাশাপাশি তিনি মন্তব্য করেছেন যে বর্তমানে বৈদ্যুতিক গাড়ি শিল্পের উপর কেবলমাত্র ৫% জিএসটি (GST) বরাদ্দ রয়েছে, যেখানে লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারির দাম ক্রমশই কমে চলেছে।

অন্যদিকে দেশের ন্যাশনাল হাইওয়েজ অথরিটি (NHAI) আগামী ২০২৩ সালের মধ্যে দেশে ৭০০টি ইভি চার্জিং স্টেশন তৈরীর লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছে। প্রতি ৪০ থেকে ৬০ কিলোমিটার অন্তর তৈরি করা হবে এই স্টেশনগুলি। যা দেখে বোঝাই যাচ্ছে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে দেশে ইলেকট্রিক ভেহিকেল চার্জিং পয়েন্টের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বাড়তে চলেছে। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রের সকল স্তরের পরিকাঠামো উন্নয়নের বিষয়টিতে প্রাধান্য দিচ্ছে সরকার।

গডকড়ী এও জানিয়েছেন, “এই ইভি চার্জিং স্টেশনগুলি নবীকরণযোগ্য শক্তির উদ্ভবগুলি (Renewable Energy Sources) থেকে বিদ্যুৎ সংগ্রহ করবে। কারণ কয়লা থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে কোনো লাভ নেই। নবীকরণযোগ্য শক্তির উৎস যেমন সূর্যের আলো, জলের স্রোত, হাওয়া শক্তি এবং বায়োমাস – এগুলির উপর আমাদের প্রধান লক্ষ্য। ঘরোয়া ইভি চার্জিংয়ের ক্ষেত্রে ছাদের সোলার সিস্টেম ব্যবহার করা যেতে পারে।”

প্রসঙ্গত, বর্তমানে ১৪৫ গিগাওয়াট নবীকরণযোগ্য শক্তি উৎপাদনের ফলে বিশ্বের মধ্যে চতুর্থ স্থান পেয়েছে ভারত। বাড়ির ছাদের সোলার পিভি সেল, প্যানেল সিস্টেম ব্যবহার করে মল, পার্কিং লট এবং অফিসকাছারিগুলিতে বৈদ্যুতিক গাড়ির চার্জ করার খরচ অনেকটাই সাশ্রয় করতে সাহায্য করেছে।

টেকগাপের মেম্বাররা ও সদ্য যোগ দেওয়া লেখকরা এই প্রোফাইলের মাধ্যমে টেকনোলজির সমস্ত রকম খুঁটিনাটি আপনাদের সামনে আনে।