Moto E7 Power নাকি Realme C11, কোন ফোনটি আপনার জন্য ভালো হবে জানুন

realme-c11-vs-moto-e7-power-price-specifications-comparison

আজই ভারতে লঞ্চ হয়েছে Moto E7 Power। এই ফোনের দাম শুরু হয়েছে ৭,৪৯৯ টাকা থেকে। আবার এতে আছে ৫,০০০ এমএইএইচ ব্যাটারি, ওয়াটারড্রপ নচ ডিসপ্লে, মিডিয়াটেক হেলিও জি২৫ প্রসেসর। প্রায় একই রেঞ্জে পাওয়া যায় Realme C11। এই ফোনেও ৫,০০০ এমএএইচ ব্যাটারি বর্তমান। সেক্ষেত্রে আপনি যদি না না বুঝতে পারেন কোন ফোনটি আপনার জন্য সেরা বিকল্প হবে, তাহলে চিন্তা করবেন না। আমরা এই প্রতিবেদনে রিয়েলমি সি১১ ও মোটো ই৭ পাওয়ার ফোন দুটির স্পেসিফিকেশন ও দামের পার্থক্য আপনাদের সামনে তুলে ধরবো।

Realme C11 vs Moto E7 Power : দাম

ভারতে রিয়েলমি সি১১ এর দাম ৭,৪৯৯ টাকা। এই দাম ফোনটির ২ জিবি র‌্যাম ও ৩২ জিবি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্টের।

আবার মোটো ই৭ পাওয়ার এর দাম শুরু হয়েছে ৭,৪৯৯ টাকা থেকে। এই দাম ফোনটির ২ জিবি র‌্যাম ও ৩২ জিবি স্টোরেজের। আবার এর ৪ জিবি র‌্যাম ও ৬৪ জিবি স্টোরেজের মূল্য রাখা হয়েছে ৮,২৯৯ টাকা।

Realme C11 vs Moto E7 Power : ডিসপ্লে ও অপারেটিং সিস্টেম

রিয়েলমি সি ১১ ফোনে ৬.৫ ইঞ্চি এইচডি প্লাস ডিসপ্লে দেওয়া হয়েছে। মিনি ড্রপ নচ ডিজাইনের এই ডিসপ্লের রেজুলেশন ৭২০x১৬০০ পিক্সেল, আসপেক্ট রেশিও ২০:৯ এবং স্ক্রিন টু বডি রেশিও ৮৮.৭ শতাংশ। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১০ ভিত্তিক রিয়েলমি ইউআই অপারেটিং সিস্টেমে ফোনটি চলে। 

মোটো ই৭ পাওয়ার ফোনে আছে ৬.৫ ইঞ্চি এইচডি প্লাস ম্যাক্স ভিশন এইচডি প্লাস ডিউ ড্রপ নচ ডিসপ্লে। এর পিক্সেল রেজোলিউশন ৭২০ x ১৬০০, আসপেক্ট রেশিও ২০:৯, ব্রাইটনেস ৩৩০ নিটস। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১০ অপারেটিং সিস্টেমে চলে। 

Realme C11 vs Moto E7 Power : প্রসেসর, র‌্যাম ও স্টোরেজ

রিয়েলমি সি১১ ফোনে আছে মিডিয়াটেক হেলিও জি৩৫ প্রসেসর। ফোনটি ২ জিবি র‌্যাম ও ৩২ জিবি স্টোরেজের সাথে পাওয়া যাবে।

মোটো ই৭ পাওয়ার ফোনে ব্যবহার করা হয়েছে অক্টা কোর মিডিয়াটেক হেলিও জি২৫ প্রসেসর। সাথে আছে ৪ জিবি পর্যন্ত র‌্যাম ও ৬৪ জিবি পর্যন্ত স্টোরেজ। 

Realme C11 vs Moto E7 Power : ক্যামেরা, ব্যাটারি ও সিকিউরিটি

রিয়েলমি সি১১ ফোনে দুটি ক্যামেরা আছে। যার প্রাইমারি ক্যামেরা ১৩ মেগাপিক্সেল এবং সেকেন্ডারি ক্যামেরা ২ মেগাপিক্সেল। আবার ফোনটির সামনে ৫ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা দেওয়া হয়েছে। এই ফোনে ৫,০০০ এমএএইচ ব্যাটারি পাবেন, যেখানে রিভার্স চার্জিং সাপোর্ট করে। চার্জিংয়ের জন্য এতে মাইক্রো ইউএসবি পোর্ট রয়েছে। সিকিউরিটির জন্য এতে আছে ফেস আনলক ফিচার।

মোটো ই৭ পাওয়ার ফোনে পাবেন ডুয়েল রিয়ার ক্যামেরা। যার প্রাইমারি সেন্সর ১৩ মেগাপিক্সেল। আবার সেকেন্ডারি ক্যামেরা হল ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো সেন্সর। সেলফি ও ভিডিও কলের জন্য আছে ৫ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা। এতে আছে ৫,০০০ এমএএইচ ব্যাটারি। যার সাথে ১০ ওয়াট চার্জিং সাপোর্ট করবে। চার্জিংয়ের জন্য এতে আছে ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট। সিকিউরিটির জন্য এতে আছে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর ও ফেস আনলক।

Realme C11 vs Moto E7 Power : আমাদের মত

আমরা দেখলাম দাম, ডিসপ্লে ও ব্যাটারি ও ক্যামেরার ক্ষেত্রে দুটি ফোনই একইরকম। তবে প্রসেসরের ক্ষেত্রে রিয়েলমি সি১১ এগিয়ে থাকবে। আবার আপনি যদি বেশি স্টোরেজ চান তাহলে মোটো ই৭ পাওয়ার আপনার জন্য ভালো বিকল্প হবে। এছাড়াও এই ফোনে অতিরিক্ত হিসাবে আছে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর ও ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন