চলতি মাসে আসছে Realme GT 5G, জুলাইয়ে বাজারে পা রাখবে Realme GT 5G Camera Flagship

realme-gt-5g-global-launch-in-june-realme-gt-camera-flagship-coming-in-july

এই বছরের শুরুর দিকেই চীনা স্মার্টফোন নির্মাতা Realme জানিয়েছিল যে তারা, নিজের পরবর্তী ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টগুলিকে দুভাগে পৃথকভাবে তৈরি করবে, যার ফলে আগামী দিনে স্মার্টফোনের একটি অংশ আসবে পারফরম্যান্স মডেল হিসেবে; আর অন্য অংশটি হবে ক্যামেরা কেন্দ্রিক মডেল। সেক্ষেত্রে ব্র্যান্ডের পারফরম্যান্স মডেল হিসেবে ইতিমধ্যেই চীনের বাজারে Realme GT গেমিং ফোন চালু হয়েছে। এসেছে এই সিরিজের অন্য দুটি মডেলও (Realme GT Neo এবং Realme GT Neo Flash Edition), কিন্তু সেগুলিও এখনো কেবল সংস্থার দেশীয় বাজারেই উপলব্ধ। তবে আজ Realme নিজেই দুটি নতুন Realme GT ফোনের বিশ্ববাজারে লভ্যতা সম্পর্কে ঘোষণা করেছে, যাতে বলা হয়েছে আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই এগুলি নন-চীনা গ্রাহকরা কিনতে সক্ষম হবেন।

আসলে Realme Europe এবং India-র CEO মাধব শেঠ গতকাল দুপুরে গ্লোবাল সামিট ইভেন্টের পর একটি টুইট পোস্ট করেছেন, যাতে তিনি ঘোষণা করেছেন সংস্থাটি গ্লোবাল মার্কেটেও GT সিরিজের ফোনগুলি আনবে। এর মধ্যে Realme GT 5G নামের পারফরম্যান্স ফ্ল্যাগশিপ সংস্করণের বৈশ্বিক লঞ্চ এই মাসে অর্থাৎ জুনেই ঘোষিত হবে। তবে এই ফোনের ক্যামেরা ফ্ল্যাগশিপ রূপটি (Realme GT 5G Camera Flagship) জুলাইয়ে বাজারে আসবে বলে মাধব জানিয়েছেন।

সেক্ষেত্রে ফোনগুলি যবেই গ্লোবাল মার্কেটে আসুক না কেন, Realme-এর স্মার্টফোন ব্যবসার এই নতুন কৌশলটি অন্য কোম্পানিদের থেকে বেশ আলাদা তাতে কোনো সন্দেহ নেই! কারণ অন্যান্য বড় বড় স্মার্টফোন ব্র্যান্ডগুলি সাধারণত Pro বা Pro+ ফ্ল্যাগশিপ হ্যান্ডসেট নিয়ে আসে যাতে সবরকম প্রিমিয়াম ফিচার একসাথে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়। কোনো কোনো ক্ষেত্রে এই ফার্মগুলি Ultra মডেলও লঞ্চ করে বটে, কিন্তু সেগুলিতে একাধিক আকর্ষণীয় ফিচার থাকার দরুন দাম অনেকটাই বেশি হয়।

যদিও আমরা জানি না Realme GT 5G Camera Flagship ফোনটি ঠিক কী ফিচার সহ আসবে। তবে Realme GT 5G পারফরম্যান্স ফ্ল্যাগশিপের কথা বলা হয়, তাহলে এতে 120Hz রিফ্রেশ রেটসহ 6.43-ইঞ্চি সুপার AMOLE স্ক্রিন রয়েছে। অন্যদিকে এটি লেটেস্ট Snapdragon 888 প্রসেসর দ্বারা চালিত এবং এতে 12GB পর্যন্ত র‌্যাম এবং 256GB পর্যন্ত স্টোরেজ রয়েছে। এছাড়াও ফটোগ্রাফির জন্য 64MP প্রাইমারী ক্যামেরাযুক্ত ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ এবং 16MP ফ্রন্ট সেন্সর রয়েছে। সাথে রয়েছে 4500mAh ব্যাটারি ক্যাপাসিটি, যা USB-C পোর্টের মাধ্যমে 65W ফাস্ট চার্জিং সমর্থন করে। শুধু তাই নয়, এই ফ্ল্যাগশিপ ফোনে ইন-ডিসপ্লে ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার, স্টেরিও স্পিকারের মত সুবিধাও বিদ্যমান। গ্লোবাল মার্কেটে এটির দাম শুরু হতে পারে 450 ইউরো (প্রায় 40,200 টাকা)‌ থেকে।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন

A person who enjoys creating, buying, testing, evaluating and learning about new technology.