উৎসবের মরসুমে ৮৩ লক্ষ ডিভাইস বিক্রি করলো চীনা স্মার্টফোন কোম্পানি Realme

গতকালই Xiaomi জানিয়েছে উৎসবের মরশুমে তারা ১৩ মিলিয়ন (১৩০ কোটি) প্রোডাক্ট বিক্রি করেছে। আজ চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়েলমিও জানালো, তারাও এই সময়ে বিক্রি করেছে প্রায় ৮.৩ মিলিয়ন প্রোডাক্ট! আজ্ঞে হ্যাঁ, অঙ্কটা নেহাত বড় নয়, বরং বিপুল, বিরাট। এই ৮৩ লক্ষ প্রোডাক্টের মধ্যে প্রায় ৬৩ লক্ষ প্রোডাক্ট অবশ্যই স্মার্টফোন। এছাড়া রয়েছে ১২ লক্ষ ৫০ হাজারের বেশী অডিও ডিভাইস, ৩ লক্ষ ৫০ হাজার স্মার্ট ওয়্যারেবলস এবং প্রায় ১ লক্ষ ৯০ হাজার স্মার্ট টিভি। রিয়েলমি ইন্ডিয়ার সিইও মাধব শেঠ জানিয়েছেন, ৬৩ লক্ষ স্মার্টফোনের মধ্যে প্রায় ১২ লক্ষ বিক্রি হয়েছে Realme C11। এছাড়া রিয়েলমি ৭ সিরিজের তিনটি স্মার্টফোন (Realme 7i, Realme 7, Realme 7 Pro) ১৬ লক্ষ ইউনিট বিক্রি হয়েছে। Realme তাদের 7 সিরিজের এই তিনটি ডিভাইসের সঙ্গেই দুর্দান্ত এক্সচেঞ্জ অফার এবং অন্যান্য ডিসকাউন্ট ঘোষণা করেছিল। ফলে তিনটি ফোনই মানুষ হুড়মুড়িয়ে কিনেছে।

Realme 7 Pro এর স্পেসিফিকেশন

Realme 7 Pro স্মার্টফোনে রয়েছে ৬.৪ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস অ্যামোলেড ডিসপ্লে। ফোনটি পাঞ্চ হোল ও কর্নিং গরিলা গ্লাস প্রোটেকশন সহ এসেছে। রিয়েলমি তাদের এই ফোনে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৭২০জি অক্টা-কোর প্রসেসর ব্যবহার করেছে। গ্রাফিক্সের জন্য এতে রয়েছে অ্যাড্রেনো ৬১৮ জিপিইউ। রিয়েলমি ৬ প্রো এর মতো এই ফোনটিও ৮ + ১২৮ জিবি স্টোরেজ উপলব্ধ। চার্জিংয়ের জন্য এতে ৪৫০০ এমএএইচের ডুয়েল সেল ব্যাটারি এবং ৬৫ ওয়াট সুপার ডার্ট চার্জিং সাপোর্ট দেওয়া হয়েছে। ফলে ফোনটি ইউএসবি টাইপ-সি পোর্টের মাধ্যমে নিমেষে চার্জ করা সম্ভব।

ফটোগ্রাফির ক্ষেত্রেও রিয়েলমি ৭ প্রো একটি যথার্থ পছন্দ। এতে রয়েছে রিয়ার কোয়াড ক্যামেরা সেটআপ। প্রাইমারি ক্যামেরা হিসেবে এতে ৬৪ মেগাপিক্সেলের Sony IMX682 সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে। এর সাথে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেলের ওয়াইড-অ্যাঙ্গল লেন্স, ২ মেগাপিক্সেলের ম্যাক্রো এবং ২ মেগাপিক্সেলের ব্ল্যাক অ্যান্ড হোয়াইট পোর্ট্রেট ক্যামেরা। সেলফির জন্য এতে রয়েছে ৩২ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা।

Realme 7 এর স্পেসিফিকেশন

রিয়েলমি ৭ স্মার্টফোনটি ৬.৫ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস পাঞ্চ হোল ডিসপ্লে ডিজাইন সহ এসেছে। এই ডিসপ্লের রিফ্রেশ রেট ৯০ হার্টজ। আগের ফোনের মতো এই ফোনের সঙ্গে রিয়ালমি কর্নিং গরিলা গ্লাস প্রোটেকশন অফার করেছে। প্রসেসরের কথা বলতে গেলে এতে মিডিয়াটেক হেলিও জি৯৫ অক্টা-কোর চিপসেট ব্যবহৃত হয়েছে। এছাড়া রয়েছে এআরএম মালি-জি৭৬ জিপিইউ। এই ফোনে ৮ + ১২৮ জিবি স্টোরেজ আছে। রিয়েলমি ৭ ফোনে রয়েছে ৫০০০ এমএএইচের ব্যাটারি ও ৩০ ওয়াটের ডার্ট চার্জিং সাপোর্ট। চার্জিংয়ের জন্য এতে টাইপ-সি পোর্ট দেওয়া হয়েছে।

ক্যামেরার প্রসঙ্গে বললে, এতে রয়েছে কোয়াড রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ। প্রো ভার্সনের মতো এখানেও ৬৪ মেগাপিক্সেলের সোনি আইএমএক্স৬৮২ প্রাইমারি সেন্সর (এফ/১.৮) রয়েছে। এছাড়া আছে ১১৯ ডিগ্রি ফিল্ড অফ ভিউ সহ ৮ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রা ওয়াইড-অ্যাঙ্গল লেন্স (এফ/২.৩), ২ মেগাপিক্সেলের ব্ল্যাক অ্যান্ড হোয়াইট পোর্ট্রেট ক্যামেরা ও ২ মেগাপিক্সেলের ম্যাক্রো ক্যামেরা। ফ্রন্ট ক্যামেরা হিসেবে এতে ১৬ মেগাপিক্সেলের সোনি আইএমএক্স৪৭১ সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে (এফ/২.১)।

Realme 7i ফোনের স্পেসিফিকেশন

রিয়েলমি ৭আই ফোনেও রয়েছে ৬.৫ ইঞ্চির এইচডি প্লাস আইপিএস এলসিডি স্ক্রিন। এর ডিসপ্লে রিফ্রেশ রেট ৯০ হার্টজ। আগের ফোন দুটির মতো Realme 7i ফোনেও পাঞ্চ হোল ডিজাইন ও কর্নিং গরিলা গ্লাস সুরক্ষা উপলব্ধ। ফোনটিতে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬৬২ প্রসেসর এবং অ্যাড্রেনো ৬১০ জিপিইউ ব্যবহার করা হয়েছে। এই ফোনটি ৪+১২৮ জিবি ইউএফএস ২.১ স্টোরেজ এবং ৫০০০ এমএএইচের ব্যাটারির সহ এসেছে। চার্জিংয়ের জন্য এতে রয়েছে ইউএসবি টাইপ-সি পোর্ট। তাছাড়া ফোনটিতে ১৮ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং সাপোর্টের সুবিধাও পাওয়া যাবে।

ক্যামেরার ক্ষেত্রে Realme 7i এবং Realme 7 ফোন দুটির মধ্যে কোন পার্থক্য নেই। এখানেও ৬৪+৮+২+২ মেগাপিক্সেলের কোয়াড ক্যামেরা সেটআপ রয়েছে। সেলফির জন্য এই ফোনেও ১৬ মেগাপিক্সেলের আইএমএক্স৪৭১ সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে।