সস্তায় প্রিমিয়াম ফিচারের সাথে লঞ্চ হল Realme X7 ও Realme X7 Pro

Realme X7 and Realme X7 Pro launched with 65w charging and 64mp quad camera

চীনে লঞ্চ হল Realme X7 সিরিজ। এই সিরিজে দুটি ফোন আছে Realme X7 ও Realme X7 Pro। দুটি ফোনই মিডিয়াটেক প্রসেসরের সাথে এসেছে। রিয়েলমি এক্স ৭ সিরিজ ৫জি সাপোর্টের সাথে লঞ্চ হয়েছে। এই সিরিজের বিশেষ বিশেষ ফিচারের কথা বললে, এতে পাবেন ৬৫ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং, ৬৪ মেগাপিক্সেল কোয়াড রিয়ার ক্যামেরা। গ্লোবাল মার্কেটে এই সিরিজকে কবে লঞ্চ করা হবে, সে সম্পর্কে এখনও কিছু জানানো হয়নি।

Realme X7 ও Realme X7 Pro দাম:

রিয়েলমি এক্স৭ ফোনটি দুটি স্টোরেজের সাথে লঞ্চ হয়েছে। এর ৬ জিবি র‌্যাম ও ১২৮ জিবি স্টোরেজের দাম প্রায় ১৯,১৯৫ টাকা। আবার ৮ জিবি র‌্যাম ও ১২৮ জিবি স্টোরেজের দাম রাখা হয়েছে প্রায় ২৫,৬১৫ টাকা। ফোনটি হাইয়ু ব্লু, সি কালার (গ্রেডিয়েন্ট), এবং ফ্যান্টাসি হোয়াইট কালারে উপলব্ধ।

এদিকে তিনটি স্টোরেজের সাথে লঞ্চ হয়েছে রিয়েলমি এক্স৭ প্রো। এর ৬ জিবি র‌্যাম ও ১২৮ জিবি স্টোরেজ এবং এর ৮ জিবি র‌্যাম ও ১২৮ জিবি স্টোরেজের দাম যথাক্রমে প্রায় ২৩,৪৮০ টাকা এবং ২৬,৬৯০ টাকা। আবার প্রায় ৩৪,১৭০ টাকা দাম পড়বে এর ৮ জিবি র‌্যাম ও ২৫৬ জিবি স্টোরেজের। ফোনটি জিঙ্গিউ ব্ল্যাক, সি কালার (গ্রেডিয়েন্ট), এবং ফ্যান্টাসি হোয়াইট কালারে পাওয়া যাবে।

Realme X7 স্পেসিফিকেশন:

রিয়েলমি এক্স৭ ফোনে ৬.৪ ইঞ্চি ফুল এইচডি প্লাস এমোলেড ডিসপ্লে দেওয়া হয়েছে। এর পিক্সেল রেজুলেশন ১০৮০ x ২৪০০ এবং আসপেক্ট রেশিও ২০:৯। এর টাচ স্যাম্পেলিং রেট ১৮০ হার্টজ। এর স্ক্রিন টু বডি রেশিও ৯০.৮ শতাংশ। এই ডিসপ্লের ডিজাইন পাঞ্চ হোল। ডিসপ্লের প্রটেকশনের জন্য এখানে কর্নিং গরিলা গ্লাস ব্যবহার করা হয়েছে। এই ফোনে আছে মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটি ৮০০ইউ প্রসেসর। আবার এতে পাবেন ৮ জিবি এলপিডিডিআর৪এক্স র‌্যাম ও ১২৮ জিবি পর্যন্ত স্টোরেজ। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১০ বেসড রিয়েলমি ইউআই এর সাথে এসেছে।

Realme X7 ফোনের পিছনে আছে কোয়াড ক্যামেরা সেটআপ। যার প্রাইমারি ক্যামেরা এফ/১.৮ অ্যাপারচার সহ ৬৪ মেগাপিক্সেল। অন্য তিনটি ক্যামেরা হল ১১৯ ডিগ্ৰী ৮ মেগাপিক্সেল আলট্রা ওয়াইড ক্যামেরা, ২ মেগাপিক্সেল ব্ল্যাক & হোয়াইট লেন্স এবং ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো সেন্সর। এই ক্যামেরা দিয়ে সুপার নাইট সিন মোড, প্রফেশনাল মোড, ব্যাকগ্রাউন্ড ব্লার, এইচডিআর, সুপার ম্যাক্রো, সুপারওয়াইড এঙ্গেল, এআই সিন রিকোগনিশন, ইউআইএস এবং ইউআইএস ম্যাক্স ভিডিও সুপার অ্যান্টি-শেক, ১২০ এফপিএস এ ১০৮০পি ভিডিও রেকর্ডিং, এবং ৩০ এফপিএস এ 4K ভিডিও শ্যুট করা যাবে।

আবার এই ফোনে সেলফি ও ভিডিও কলিংয়ের জন্য আছে ৩২ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা। এই ক্যামেরার ফিলড অফ ভিউ ৮০ ডিগ্রী এবং অ্যাপারচার এফ/২.৪৫। সামনের ক্যামেরা দিয়ে পোর্ট্রেট মোড, এইচডিআর, ফেস রিকোগনিশন, সুপার নাইট সিন মোড ১২০ এফপিএস এ ১০৮০পি ভিডিও রেকর্ডিং, এবং ৩০ এফপিএস এ 4K ভিডিও শ্যুট করা যাবে।

পাওয়ারের জন্য এই ফোনে আছে ৪,৩০০ এমএএইচ ব্যাটারি। এতে ৬৫ ওয়াট সুপার ডার্ট চার্জিং টেকনোলজি ব্যবহার করা হয়েছে। যা ৩৫ মিনিটে ফোনকে ফুল চার্জ করে দেবে। চার্জিংয়ের জন্য এতে আছে ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট। আবার পাবেন সিঙ্গেল সুপার লাইনার স্পিকার। এতে ইন ডিসপ্লে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর উপলব্ধ।

Realme X7 Pro স্পেসিফিকেশন:

এই ফোনে ৬.৫৫ ইঞ্চি ফুল এইচডি প্লাস সুপার এমোলেড ডিসপ্লে পাবেন। এর আসপেক্ট রেশিও ১০:৯ এবং রিফ্রেশ রেট ১২০ হার্টজ। এর স্ক্রিন টু বডি রেশিও ৯১.৬ শতাংশ এবং টাচ স্যাম্পেলিং রেট ২৪০ হার্টজ। এতে ১০০ শতাংশ ডিসিআই-পি৩ কালার গামুট সাপোর্ট আছে। ফোনটিতে পাঞ্চ হোল ডিজাইনের সাথে ফ্লাট ডিসপ্লে দেওয়া হয়েছে। পাঞ্চ হোলের মধ্যে আছে ৩২ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা। এই ক্যামেরার ফিলড অফ ভিউ ৮০ ডিগ্রী এবং অ্যাপারচার এফ/২.৪৫। সামনের ক্যামেরা দিয়ে পোর্ট্রেট মোড, এইচডিআর, ফেস রিকোগনিশন, সুপার নাইট সিন মোড ১২০ এফপিএস এ ১০৮০পি ভিডিও রেকর্ডিং, এবং ৩০ এফপিএস এ 4K ভিডিও শ্যুট করা যাবে। এতে ইন ডিসপ্লে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর উপলব্ধ।

রিয়েলমি এক্স৭ প্রো ফোনে মিডিয়াটেক ১০০০ প্লাস প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। সাথে আছে ৮ জিবি এলপিডিডিআর৪এক্স র‌্যাম ও ২৫৬ জিবি পর্যন্ত ইউএফএস ২.১ স্টোরেজ। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১০ বেসড রিয়েলমি ইউআই এর সাথে এসেছে।

এই ফোনটি কোয়াড রিয়ার ক্যামেরার সাথে লঞ্চ হয়েছে। এর প্রাইমারি ক্যামেরা ৬৪ মেগাপিক্সেল সনি আইএমএক্স৬৮৬ সেন্সর। এছাড়াও আছে ১১৯ ডিগ্ৰী ৮ মেগাপিক্সেল আলট্রা ওয়াইড ক্যামেরা, ২ মেগাপিক্সেল পোর্ট্রেট সেন্সর এবং ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো সেন্সর। এই ক্যামেরা দিয়ে সুপার নাইট সিন মোড, প্রফেশনাল মোড, ব্যাকগ্রাউন্ড ব্লার, এইচডিআর, সুপার ম্যাক্রো, সুপারওয়াইড এঙ্গেল, এআই সিন রিকোগনিশন, ইউআইএস এবং ইউআইএস ম্যাক্স ভিডিও সুপার অ্যান্টি-শেক, ১২০ এফপিএস এ ১০৮০পি ভিডিও রেকর্ডিং, এবং ৩০ এফপিএস এ 4K ভিডিও শ্যুট করা যাবে।

পাওয়ারের জন্য এখানে ৪,৫০০ এমএএইচ ব্যাটারি দেওয়া হয়েছে। সাথে ৬৫ ওয়াট সুপার ডার্ট চার্জিং টেকনোলজি সাপোর্ট করবে। যা ৩৫ মিনিটে ফোনকে ফুল চার্জ করে দেবে। চার্জিংয়ের জন্য এতে আছে ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট। আবার পাবেন স্টেরিও স্পিকার।