লকডাউনের জেরে বড় ধাক্কা খেল রিলায়েন্স জিও, এয়ারটেল এবং ভোডাফোন-আইডিয়া

মার্চে বড় ধাক্কা খেল রিলায়েন্স জিও, এয়ারটেল এবং ভোডাফোন-আইডিয়া। গতমাসে অনেক কম নতুন গ্রাহক যুক্ত করতে পেরেছে কোম্পানিগুলি। টেলিকম মার্কেট বিশ্লেষকদের অনুমান, রিলায়েন্স জিও, এয়ারটেল এবং ভোডাফোন-আইডিয়া এই বছরের মার্চে মাত্র পাঁচ লাখ নতুন গ্রাহক পেয়েছে। বেসরকারি কোম্পানি তিনটি সাধারণত প্রতি মাসে ৩০ লাখ গ্রাহক যুক্ত করতো। তবে দেশে করোনা ভাইরাসের কারণে কোম্পানিগুলির এই খারাপ ফল বলে মনে করছে টেলিকম মার্কেট বিশ্লেষকরা।

এপ্রিলে আরও খারাপ ফলের আশংকা :

তারা বলেছেন যে, মার্চে স্টোরগুলিতে গ্রাহকের সংখ্যা কম ছিল এবং মোবাইল নম্বর পোর্টেবিলিটি (এমএনপি) এর জন্য খুব কম অ্যাপ্লিকেশন পাওয়া গেছে। তারা আরও বলেছেন, এপ্রিল মাসে নতুন গ্রাহকদের সংখ্যা আরও কম হতে পারে। একজন সিনিয়র এগজিকিউটিভ জানিয়েছেন, “সাধারণত প্রতি মাসে গড়ে ২৫ থেকে ৩০ লাখ নতুন গ্রাহক যুক্ত হতে পারে বলে আশা করা হয়। তবে এই জরুরি অবস্থায় অপারেটররা মার্চ এবং এপ্রিল মাসে ৫ লক্ষ গ্রাহক যুক্ত করতেও অসুবিধার সম্মুখীন হতে পারে।

MNP সহ সমস্ত পরিষেবা বন্ধ :

অন্য একটি টেলিকম সংস্থার সিনিয়র এগজিকিউটিভের কথায়, তিন সপ্তাহ লকডাউন ঘোষণার পর তারা স্টোর বন্ধ করে দিয়েছে। এছাড়াও, টেলিযোগাযোগ সংস্থা, গ্রাহক এবং এমএনপি সরবরাহকারীদের মধ্যে সমন্বয়ের জন্য কোনও কর্মকর্তা না থাকায় এমএনপি সম্পর্কিত সমস্ত কার্যক্রমও বন্ধ হয়ে গেছে। ” যদি এই মাসে ৫ লক্ষ গ্রাহক এবং পরের মাসে ৫ লক্ষ গ্রাহক ও যুক্ত করতে পারি, তাতেই আমরা খুশি হবো।”

ডিসেম্বরে জিওর কাছে ছিল ৩৭ কোটি গ্রাহক :

গত বছরের ডিসেম্বরের শেষে, রিলায়েন্স জিওর ৩৭ কোটি, ভোডাফোন আইডিয়ার মোট ৩০.৪ কোটি এবং ভারতী এয়ারটেলের কাছে ২৮.৩ কোটি ব্যবহারকারী ছিল। তবে এই মুহূর্তে তিনটি কোম্পানির কাছে কত গ্রাহক আছে সে সম্পর্কে জানা যায়নি।

WhatsApp এ সব খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন।