ভারতে শীঘ্রই চালু হচ্ছে 5G? টাওয়ার বসানোর কাজ শুরু Reliance Jio ও Airtel এর

reliance-jio-and-bharti-airtel-install-5g-tower-in-india-ookla-5g-map

মধ্যেখানে আর কয়েকটা মাস, তারপরেই হয়তো ভারতে ৫জি পরিষেবার পথ চলা শুরু হতে চলেছে। এ ব্যাপারে দেশের প্রধান দুই টেলিকম সংস্থা Reliance Jio এবং Bharati Airtel – উভয়েই যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী। মুকেশ আম্বানির মালিকানাধীন রিলায়েন্স জিও তো ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছে যে ২০২১ সালের মধ্যভাগ থেকেই তারা দেশে ৫জি পরিষেবা চালু করতে ইচ্ছুক। পিছিয়ে নেই এয়ারটেল-ও। ৫জি পরিষেবা চালুর জন্য প্রয়োজনীয় পরিকাঠামো গড়ে তোলার দিক থেকে তারা প্রায় তৈরী! আর এক্ষেত্রে কোন পক্ষই যে ফাঁকা আওয়াজ দিচ্ছেনা, গ্লোবাল নেটওয়ার্ক মেজারমেন্ট সার্ভিস Ookla -র সাম্প্রতিক ৫জি ম্যাপ (Ookla 5G Map) পরিষেবার মাধ্যমেই সেটা স্পষ্ট হয়ে গেছে।

কি বলছে Ookla -র ৫জি ম্যাপ? আসলে খুব তাড়াতাড়ি ৫জি পরিষেবা লঞ্চের উদ্দেশ্যে এয়ারটেল এবং জিও – দুটি সংস্থাই যথাক্রমে হায়দরাবাদ ও মুম্বাইয়ে দুটি টাওয়ার নির্মাণ করেছে। এই ৫জি টাওয়ার দুটি আপাতত ‘প্রি-রিলিজ’ পর্যায়ে রয়েছে। অর্থাৎ নাগরিকদের উপযুক্ত পরিষেবা পৌঁছে দিতে এরা এই মুহূর্তে প্রস্তুত নয়। Ookla -র উপগ্রহ চিত্রে এই দুটি টাওয়ারের উপস্থিতিই ধরা পড়েছে।

সুতরাং বোঝা যাচ্ছে যে কার হাত ধরে দেশে প্রথম ৫জি পরিষেবার সূচনা হবে তা নিয়ে এখনই মন্তব্য করা ঠিক হবেনা। Ookla -র দাবী প্রি-রিলিজ পর্যায়ের অন্তর্ভুক্ত হলেও, টাওয়ার দুটি ৫জি নেটওয়ার্ক হার্ডওয়ার সমন্বিত। কিন্তু এক্ষুনি গ্রাহকেরা এদের ফায়দা উপভোগ করতে পারবেন না, কেননা এখনো এরা পরীক্ষাধীন পর্যায় রয়েছে। খোদ এয়ারটেলের বক্তব্য থেকেও উঠে এসেছে এমনই ইঙ্গিত। এর মধ্যেই হায়দরাবাদ শহরে তারা ৫জি পরিষেবার একটি বাণিজ্যিক ট্রায়াল সম্পন্ন করেছে বলে সংস্থাটির দাবী। তাছাড়া মুম্বাইয়ে রিলায়েন্স জিও স্থানীয় পরিসরে এই একই কাজ চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

তাহলে সবই যখন তৈরী, তখন ৫জি’র আগমন এমন থমকে কেন? অন্য কিছু নয়, এক্ষেত্রে টেলিকম সংস্থাগুলি কেবলমাত্র ৫জি স্পেক্ট্রাম নীলামের অপেক্ষায় রয়েছে, যা কবে অনুষ্ঠিত হবে, সে সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কেউই কোন তথ্য দিতে পারছেন না!

তবে আমাদের ধারণা অনুযায়ী আগামী আট মাসের মধ্যেই ভারতে বাণিজ্যিকভাবে ৫জি পরিষেবা লঞ্চ করা হবে। হায়দরাবাদ শহরে এয়ারটেল যে বাণিজ্যিক ট্রায়ালের কথা দাবী করেছে, সেক্ষেত্রে তারা অন্যবিধ প্রযুক্তির দ্বারস্থ হয়েছে। মূলত এনএসএ (NSA) নেটওয়ার্ক মারফত ১৮০০ মেগাহার্টজ ব্যান্ড ব্যবহার করেই তারা নিজেদের পরীক্ষা সম্পন্ন করেছে বলে খবর।

অন্যদিকে ৫জি লঞ্চের ক্ষেত্রে ভারতের থেকে শ্রীলঙ্কার টেলিকম সংস্থাগুলিও যে খুব একটা পিছিয়ে নেই, Ookla -র ম্যাপ থেকে সেটাও প্রকাশ্যে এসেছে। উল্লেখ্য, এই মুহূর্তে সারা বিশ্বের মোট ৩৫টি দেশে সক্রিয় ৫জি পরিষেবার অস্তিত্ব রয়েছে। এজন্য ব্যবহৃত মোট ২১,৯৯৬টি টাওয়ার দুনিয়াজুড়ে ছড়িয়ে রয়েছে।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন