১৮টি সার্কেলে পরিষেবা বন্ধ হতে পারে Jio -র, স্পেকট্রাম নিলামের জন্য DoT কে চিঠি

reliance-jio-requests-dot-to-soon-hold-spectrum-auctions

মোবাইলে যোগাযোগের জন্য যে বেতার তরঙ্গ ব্যবহৃত হয় তাই হল স্পেকট্রাম। সব দেশেই সরকারের তরফ থেকে এই স্পেকট্রাম বন্টনের ব্যবস্থা করা হয়। ভারতে মূলত 2G স্পেকট্রাম কেলেঙ্কারির জন্য এই শব্দটা আমাদের কাছে পরিচিত। তবে গত চার বছর ধরে ভারতে কোন নতুন স্পেকট্রাম নিলাম হয়নি। যা রিলায়েন্স জিও কে সমস্যায় ফেলেছে। পরিস্থিতি এতটাই জটিল হয়ে উঠেছে যে, তড়িঘড়ি স্পেকট্রামের নিলাম না হলে দেশের ১৮ টি সার্কেলে পরিষেবা দিতে ব্যর্থ হতে পারে মুকেশ অম্বানিরা। এই কারণেই Reliance Jio দূরসঞ্চার বিভাগকে ( DoT) পরবর্তী স্পেকট্রাম নিলামের জন্য তাড়া দিতে শুরু করেছে।

সম্প্রতি দূরসঞ্চার বিভাগকে লেখা একটি চিঠিতে Reliance Jio জানিয়েছে, স্পেকট্রাম নিলামে দেরি হলে সরকারেরও বিপুল আর্থিক ক্ষতি হবে। যত তাড়াতাড়ি সরকার নিলামের ব্যবস্থা করবে, তত তাড়াতাড়ি তারা 4G পরিষেবার উন্নতির কথা ঘোষণা করতে পারবে। এই চিঠির প্রতিলিপি দূরসঞ্চার মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ এবং প্রধানমন্ত্রীর প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি পি কে মিশ্রকেও পাঠানো হয়েছে।

Mint এর রিপোর্ট অনুযায়ী, দূরসঞ্চার বিভাগের পক্ষ থেকে ৮৩০০ MHz স্পেকট্রাম নিলামের জন্য ৫.২৩ ট্রিলিয়ন রিজার্ভ প্রাইস রাখা হয়েছে। এদিকে Jio চাইছে ৭০০ MHz, ৮০০ MHz, ৯০০ MHz, ১৮০০ MHz, ২১০০ MHz এবং ২৫০০ MHz ব্যান্ডগুলির মধ্যে নিলাম হোক। উল্লেখযোগ্য বিষয় যে 5G পরিষেবার জন্য প্রয়োজনীয় ৩৩০০ থেকে ৩৬০০ MHz ব্যান্ড তারা চায়নি। অর্থাৎ জিও এক্ষুনি 5G নিয়ে ভাবছেনা।

জুন মাসের TRAI-এর টেলিকম সাবস্ক্রিপশন ডেটা অনুযায়ী, Reliance Jio-র ৪.৪ মিলিয়ন ব্যবহারকারী বেড়েছে। এই ডেটা থেকে এও জানা গেছে, Airtel, BSNL এবং Vodafone Idea যথাক্রমে এই সময় যথাক্রমে, ১.১ মিলিয়ন, ১.৭ মিলিয়ন এবং ৪.৮ মিলিয়ন ইউজার হারিয়েছে। বোঝাই যাচ্ছে যে এই সমস্ত ইউজার Jio ব্যবহার করতে শুরু করেছে। ফলে অন্যান্য কোম্পানির তুলনায় জিও -র এইমুহূর্তে স্পেকট্রামের প্রয়োজন সবচেয়ে বেশি।

জানিয়ে রাখি Reliance Jio, রিলায়েন্স কমিউনিকেশনসের এয়ারওয়েভস ৮০০ MHz ব্যবহার করে ভারতে 4G পরিষেবা দিয়ে আসছে। কিন্তু আগামী ২০২১-এর জুলাইয়ে ১৮টি সার্কলে Reliance Communications এয়ারওয়েভস এর মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। ফলে এইসব জায়গায় সমস্যায় পড়বে রিলায়েন্স জিও। কোম্পানির তরফে এই কারণে চিঠিতে জানানো হয়েছে, ২০১৬ থেকে নিলাম না হওয়ার ফলে স্পেকট্রামের চূড়ান্ত অভাব দেখা দিয়েছে, যা তাদের পরিষেবার উন্নতি সাধনে বাধা দিচ্ছে। এছাড়াও মেয়াদ শেষ হওয়ার ১৮ মাস আগে স্পেকট্রামের নিলাম না হলে তারা পরিষেবা সচল রাখতে সমস্যায় পড়বে।