কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৮৭৫ প্রসেসরের থেকে শক্তিশালী হবে স্যামসাংয়ের Exynos 1000

samsung-exynos-1000-may-might-be-faster-qualcomm-snapdragon-875-soc

বর্তমানে Samsung-এর বেশির ভাগ ফোনেই Exynos প্রসেসর দেখা যাচ্ছে। এই সিস্টেম অন চিপ অর্থাৎ SoC চিপসেটটির ডেভেলপার খোদ Samsung। তবে অনেক ইউজারই এই প্রসেসরের পারফরম্যান্স নিয়ে ততটা সন্তুষ্ট নন। বিভিন্ন সময়ে Qualcomm-এর Snapdragon চিপসেটের সাথে এটির তুলনা করা হয়েছে। তবে শোনা যাচ্ছে, পরের বছর স্যামসাং এবং কোয়ালকম তাদের ফ্ল্যাগশিপ চিপসেট প্রকাশের ক্ষেত্রে একজাতীয় কৌশল গ্রহণ করবে। চরম পারফরম্যান্স দেওয়ার জন্য সংস্থাগুলি ব্র্যান্ড নিউ Cortex-X1-এর সাথে বাজি ধরবে।

স্যামসাং এবং কোয়ালকম আগামী বছর তাদের ফ্ল্যাগশিপ চিপসেট বাজারে আনবে। এখন প্রশ্ন উঠতে পারে কোন সংস্থাটি আরো ভালো পারফরম্যান্স দেবে? এক্ষেত্রে অনেকেই কোয়ালকমকে এগিয়ে রাখবেন। কিন্তু মনে করা হচ্ছে, স্যামসাংয়ের আসন্ন Exynos 1000 প্রসেসরের পারফরম্যান্স, কোয়ালকমের SD875 প্রসেসরকে ছাড়িয়ে যেতে পারে। এই প্রসঙ্গে বলে রাখি, পারফরম্যান্সের এই প্রতিযোগিতায় থাকছেনা Huawei-এর HiSilicon Kirin প্রসেসর।

সম্প্রতি কোরিয়ান ফোরামের একটি রিপোর্টে স্যামসাং এবং কোয়ালকমের প্রসেসরের তুলনা করে গিকবেঞ্চের স্কোর প্রকাশ করা হয়েছে। রিপোর্ট অনুযায়ী, Galaxy S21 ডিভাইসের দুটি ইউনিটের একটিতে Exynos 1000 এবং অন্যটিতে Snapdragon 875 চিপসেট যুক্ত করে পরীক্ষা করা হয়েছে। জানা গিয়েছে, এই পরীক্ষায় স্ন্যাপড্রাগন ৮৭৫ প্রসেসর যুক্ত একটি Xiaomi ফোনও (Mi 11) ব্যবহার করা হয়েছে। এই পরীক্ষার ফলাফল বেশ চমকপ্রদ! দেখা গেছে, Exynos 1000 প্রসেসর, SD875-এর তুলনায় কিছুটা উচ্চ পারফরম্যান্স সরবরাহ করতে পারে।

বলা হয়েছে, স্যামসাংয়ের সিঙ্গেল কোর এবং মাল্টি কোর চিপসেট দুটি স্ন্যাপড্রাগন ৮৭৫ চিপসেট ব্যবহৃত ফোনের চেয়ে ভালো পারফরম্যান্স দিয়েছে। এক্ষেত্রে স্যামসাংয়ের স্ন্যাপড্রাগনের সিঙ্গল কোর ভ্যারিয়েন্টটি ১,১৫৯ স্কোর এবং মাল্টি ভ্যারিয়েন্টটি ৪,০৯০ স্কোর করেছে। শাওমির ডিভাইসটি যথাক্রমে ১,১০২ এবং ৪,১১৩ পয়েন্ট পেয়েছে। কিন্তু Exynos 1000 প্রসেসরযুক্ত Galaxy S21 ডিভাইসটি সিঙ্গল কোর টেস্টে ১,৩০২ পয়েন্ট এবং মাল্টি কোরটি ৪,২৫০ পয়েন্ট পেয়েছে। সুতরাং নিঃসন্দেহে স্যামসাংয়ের Exynos প্রসেসরটিকে সেরা হিসেবে বিবেচিত করা যায়।

কিন্তু, এই পরীক্ষার জন্য কিভাবে এই আন-রিলিজ (বাজারে আসেনি) ফোন বা প্রসেসরগুলির একসাথে অ্যাক্সেস পাওয়া গেছে, সেই নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। এমনকি ওই রিপোর্টে প্রমাণ হিসেবে কোনো স্ক্রিনশট-ও পোস্ট করা হয়নি। তাই সব মিলিয়ে কিছুটা জিজ্ঞাসা রয়েই যাচ্ছে। তবে যদি এই রিপোর্ট সত্যি হয় তাহলে আগামী দিনে কোয়ালকমসহ বাকি শক্তিশালী চিপসেট নির্মাতারা কী প্রতিক্রিয়া জানাবে – সেটাই দেখার বিষয়। এপ্রসঙ্গে বলে রাখি কোয়ালকমের স্ন্যাপড্রাগন ৮৭৫ প্রসেসর স্যামসাং ইলেকট্রনিক্স তৈরী করবে।