কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগনকে টেক্কা দিতে Samsung লঞ্চ করলো Exynos 2100 প্রসেসর

samsung-exynos-2100-5nm-based-cpu-launched-with-arm-core-8k-playbacks

Exynos চিপসেটের জন্য Samsung এই প্রথম কোনো লঞ্চ ইভেন্ট রেখেছিল। সেই মঞ্চ থেকেই স্যামসাংয়ের এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে শক্তিশালী চিপসেট Exynos 2100-এর ঘোষণা করা হয়েছে। স্যামসাং এর উপলব্ধতা সম্পর্কে কিছু না বললেও আমরা ইতিমধ্যে জেনে ফেলেছি, এই চিপসেটের প্রথম ব্যবহার আগামীকাল লঞ্চ হতে চলা Galaxy S21 সিরিজে করা হয়েছে। Samsung Exynos 2100-তে সিপিইউ, জিপিইউ, ও AI (Artificial Intelligence) পারফরম্যান্সে বেশ তাৎপর্যপূর্ণ আপগ্রেড করা হয়েছে। এটি স্যামসাংয়ের প্রথম ফ্ল্যাগশিপ চিপসেট যার ভেতরেই ফাইভ-জি মোডেম উপস্থিত। তদুপরি, এটি সংস্থার দ্বিতীয় চিপসেট যেটি 5nm বা ৫ ন্যানোমিটার EUV প্রোসেসে বানানো হয়েছে। যা এর 7nm প্রসেসর Exynos 990-এর তুলনায় ১০ শতাংশ বেশী পারফরম্যান্স দেবে, কিন্তু সেটা ২০ শতাংশ কম পাওয়ার ব্যবহার করে।

অক্টা কোর Samsung Exynos 2100 চিপসেটে ট্রাই-ক্লাস্টার সিপিইউ কনফিগারেশন রয়েছে – একটি শক্তিশালী ARM Cortex- X1 কোর যা ২.৯ গিগাহার্টজ পর্যন্ত ক্লক স্পিডে চলবে, তিনটি হাই-পারফরম্যান্স Cortex-A55 কোর, এবং চারটি পাওয়ার এফিসিয়েন্ট Cortex- A55 কোর। এই নতুন CPU-এর আগমনের ফলে এটি লাস্ট জেনারেশন Exynos 990 চিপসেটের তুলনায় সিঙ্গেল কোর পারফরম্যান্স ১৯ শতাংশ ও মাল্টি কোর পারফরম্যান্স ৩০ শতাংশ বৃদ্ধি করবে বলে স্যামসাংয়ের দাবি । গতবছরেও এক্সিনস চিপসেটের জন্য স্যামসাং তাদের কাস্টম Mongoose কোর ব্যবহার করছিল। সেগুলি ভাল চিপ হলেও, স্যামসাংয়ের এর আগের ফ্ল্যাগশিপ চিপসেট Exynos 990 ও কোয়ালকমের Snapdragon 865-এর মধ্যে কর্মক্ষমতার ফারাক অনেকটাই বেশী ছিল। তাই সম্প্রতি লঞ্চ হওয়া Snpdragon 888-এর সাথে সমানে টক্কর দিতে Samsung অবশেষে Exynos 2100-তে ARM কোর ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

নতুন এই চিপসেটের অভ্যন্তরে Arm Mali-G78 জিপিইউ আছে৷ যা গ্রাফিক্সের পারফরম্যান্সে ৪০ শতাংশের বেশি বৃদ্ধি আনবে। এই জিপিইউতে রয়েছে ১৪টি কোর। যা অবশ্য Kirin 9000-এর তুলনায় অনেকটাই কম৷ Kirin 9000 চিপের জিপিইউতে ২৪টি কোর রয়েছে। তবে হতাশ হওয়ার দরকার নেই৷ কারণ Samsung জানিয়েছে, এক্সিনসের পরবর্তী ফ্ল্যাগশিপ চিপসেটে AMD-র জিপিইউ থাকবে।

স্যামসাং এক্সিনস ২১০০-এর নতুন ISP (Image Signal Processor) ২০০ মেগাপিক্সেল পর্যন্ত ক্যামেরা সেন্সর সাপোর্ট করবে। এটি ছ’টি স্বতন্ত্র সেন্সরের সাথে সংযুক্ত হতে পারে এবং তাদের মধ্যে চারটি সেন্সর থেকে একসাথে ডেটা প্রসেস করতে সক্ষম। এই নতুন চিপসেট ১২০ এফপিএসে 4K রেকর্ডিং ও ৬০ এফপিএসে 8K প্লেব্যাকের জন্য সাপোর্ট নিয়ে এসেছে। উল্লেখ্য, 8K ভিডিওর জন্য AV1 ডিকোডার সহ প্রথম চিপসেট হচ্ছে এক্সিনস ২১০০।

এর মাল্টি-ক্যামেরা এবং ফ্রেম প্রসেসর আরও ভাল মানের জুম এবং আল্ট্রা ওয়াইড শটের জন্য একাধিক ক্যামেরা থেকে ইমেজ ডেটা ফিউজ করতে পারে। এর NPU (Neural Processing Unit) দৃশ্যগুলো বিশ্লেষণ করে, মুখ এবং বস্তু সনাক্ত করে যাতে এটি অনুকূল সেটিং চয়ন করতে পারে। এই চিপসেটে তিনটি NPU  রয়েছে। স্যামসাং বলেছে, এর ডেটা প্রসেসিং পাওয়ার ১৫ TOPS (Trillion Operations per Seconds) থেকে বৃদ্ধি পেয়ে এখন ২৬ TOPS হয়েছে।

এটিই প্রথম ফ্ল্যাগশিপ এক্সিনস চিপসেট যা ইন্টিগ্রেটেড 5G মোডেমের সাথে আসবে। এই 5G মোডেম mmWave নেটওয়ার্কে ৭.৩৫ Gbps পর্যন্ত ডাউনলিঙ্ক স্পিড এবং Sub-6 নেটওয়ার্কে ৫.১ Gbps পর্যন্ত স্পিড অর্জন করতে পারবে।

স্যামসাং বলেছে যে, ইতিমধ্যে এক্সিনস ২১০০-এর ব্যপকভাবে উৎপাদন চলছে। তবে অন্য কোনো OEM তাদের ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোনে এই চিপসেট অর্ন্তভুক্ত করতে চলেছে কিনা সেই বিষয়ে সংস্থাটি কিছু জানায় নি। পারফরম্যান্সের দিক থেকে কোয়ালকমের চিপসেটের তুলনায় এক্সিনস অনেকটাই পিছিয়ে বিশেষজ্ঞরা এতদিন মত প্রকাশ করে এসছেন। তবে ২০২১-এ নতুন এই চিপসেট রিলিজের মাধ্যমে Samsung সেইসব ধারণা মুছে ফেলতে বদ্ধপরিকর।