তরুণ প্রজন্ম কে ধ্বংস করছে দেশীয় গেম FAUG? ব্যানের দাবি নেটিজেনদের

saveyouthbanfaug-trending-why-people-want-faug-banned-after-pubg-mobile

ভারতে PUBG Mobile ব্যান হওয়ার প্রায় প্রায় সাথে সাথেই দেশীয় ব্যাটেল গেম FAUG (ফিয়ারলেস অ্যান্ড উইনাইটেড গার্ডস)-এর ঘোষণা করা হয়। এরপর এই বছর প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে লঞ্চ হয় গেমটি। কিন্তু প্রথমে FAUG মোবাইল গেমটিকে ঘিরে যে উন্মাদনা সৃষ্টি হয়, লঞ্চের পর বেশির ভাগ প্লেয়ার ঠিক ততটাই হতাশ হয়। তবে এতদূর অবধি সব কিছু মোটামুটিভাবে চললেও, লঞ্চের প্রায় দু মাস পর, হঠাৎই নেটদুনিয়ায় গেমটিকে নিয়ে ব্যাপক বিতর্ক তৈরি হয়েছে, যেখানে নেটিজেনরা PUBG Mobile -র মতই FAUG-কেও ব্যান করার দাবি তুলেছেন! দেখা গেছে, টুইটারে #SavetheYouthbanFauG হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে একাংশ ইউজার গেমটির বিরুদ্ধে নিজেদের ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন; অভিযোগ, এই দেশীয় গেমটিও PUBG Mobile-র মতই তরুণ প্রজন্মের মধ্যে আসক্তি এবং হিংসা বাড়াচ্ছে।

রিপোর্ট অনুযায়ী, FAUG গেমের নির্মাতা সংস্থা nCore গেমসের সহ-প্রতিষ্ঠাতা বিশাল গন্ডাল সম্প্রতি মানিকন্ট্রোলকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে গেমটি সম্পর্কে কিছু কথা বলার পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় এটিকে নিষিদ্ধ করার দাবি জোরালো হয়ে ওঠে। ওই সাক্ষাৎকারে বিশাল বলেছিলেন যে গেমের মধ্যে বন্দুক, তরোয়াল ইত্যাদি অস্ত্র বিক্রি করে সংস্থাটি ইন-অ্যাপ পারচেস (IAPs)-এর দরুন অর্থোপার্জন করে। এরপরই অভিযোগ ওঠে যে FAUG নিজের লাভের জন্য ভারতের কৈশোর প্রজন্মের মধ্যে সহিংসতা আনছে।

এক্ষেত্রে কেউ বলেছেন যে সংস্থা নিজের টাকা উপার্জনের জন্য প্লেয়ারদের অস্ত্র কেনার জন্য প্ররোচিত করছে; আবার কেউ কেউ টুইটারে গেমটিকে ধ্বংসাত্মক বলে দাবি করে পরে সেই টুইটগুলি মুছে ফেলেছেন। এছাড়াও অনেকে বলেছেন যে, PUBG যে আসক্তি তৈরি করেছে সেটাকেই হাতিয়ার করে টাকা কামাতে চাইছে দেশীয় গেমটি। তাই FAUG-কেও নিষিদ্ধ করে যুব সমাজকে বাঁচানো উচিত!

এদিকে গন্ডাল সম্প্রতি, ভারতে প্রচলিত কয়েকটি রামি, পোকারের মত রিয়াল মানি গেমের বিরুদ্ধেও সমালোচনা করেছিলেন, যার জেরে তিনি প্রচুর আইনী নোটিশ পেয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। এমনকি উক্ত ইন্টারভিউয়েও গন্ডালের আইনী নোটিশ পাওয়ার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সেখানে সাক্ষাৎকারের দরুন বলা কয়েকটি শব্দ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় FAUG-কে নিষিদ্ধ করার এই আকস্মিক দাবির সঠিক কারণটি এখনো শনাক্ত করা যায়নি। তবে এটি ‘বয়কট চীনা’ জাতীয় ট্রেন্ডগুলির মতই একটি বিতর্ক বলে মনে হচ্ছে। সেক্ষেত্রে গেমটির দুর্বল গ্রাফিক্স এবং গেমপ্লে সত্ত্বেও অনেকেই যেভাবে এই ফৌজি -তে মজে আছেন, তাতে টুইটারের নতুন এই ট্রেন্ড গেমের ওপর তেমন কোনো প্রভাব ফেলবে না বলে আশা করা যায়।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন