Homeবিজ্ঞানGaganyaan Mission: ২০২৪-এই স্বপ্ন পূরণ, গগনযানে চেপে মহাকাশে যাবে ভারতীয় নভশ্চররা

Gaganyaan Mission: ২০২৪-এই স্বপ্ন পূরণ, গগনযানে চেপে মহাকাশে যাবে ভারতীয় নভশ্চররা

২০২১ সালেই কেন্দ্রীয় সরকার, গগনযান মিশন লঞ্চে উদ্যোগী হয়। কিন্তু কোভিড-১৯ মহামারির কারণে সরকারের সেই উদ্যোগ বাস্তবে রূপ পায়নি।

ইসরো’র (ISRO) ‘গগনযান মানব স্পেসফ্লাইট মিশনে’র (Gaganyaan Human Space-Flight Mission) কাঁধে ভর করে আগামী ২০২৪ সালে মহাকাশে পৌঁছবেন ভারতীয় নভশ্চরেরা – মঙ্গলবার, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জিতেন্দ্র সিংহ প্রকাশ্য সংবাদমাধ্যমে এমনটাই আশ্বাস দিয়েছেন। তার এই আশ্বাস বাস্তবায়িত হলে রাশিয়া, আমেরিকা ও চীনের পর চতুর্থ দেশ হিসেবে ভারত মহাকাশে মানুষের পদার্পণ নিশ্চিত করবে। শুধু তাই নয়, এর ফলে ২০১৮ সালে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কর্তৃক ঘোষিত গগনযান মিশনও কাঙ্ক্ষিত সাফল্য পেয়ে যাবে।

অবশ্য মন্ত্রী জিতেন্দ্র সিংহের দাবি, ২০২১ সালেই কেন্দ্রীয় সরকার, গগনযান মিশন লঞ্চে উদ্যোগী হয়। কিন্তু কোভিড-১৯ মহামারির কারণে সরকারের সেই উদ্যোগ বাস্তবে রূপ পায়নি। সুতরাং মহাকাশে ভারতীয় নভশ্চরদের উপস্থিতি চাক্ষুষ করতে হলে আমাদের আসন্ন ২০২৪ সাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে বৈকি।

গগনযান মানব স্পেসফ্লাইট মিশনের যাত্রী হিসেবে ৪ জন ফাইটার পাইলটকে নির্বাচন করেছে ভারতীয় বায়ুসেনা

আজ্ঞে হ্যাঁ, গগনযান মিশনের যাত্রী হিসেবে ভারতীয় বায়ুসেনার তরফ থেকে ইতিমধ্যে চারজন ফাইটার পাইলটকে বেছে নেওয়া হয়েছে। এই মুহূর্তে রাশিয়ায় তাদের বিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে, যাতে তারা আলোচ্য যাত্রায় অংশগ্রহণের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত হয়ে উঠতে পারেন। এক্ষেত্রে নির্বাচিতদের শারীরিক সক্ষমতা পরীক্ষার সাথেই তাদের মানসিক সক্ষমতাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

তবে মহাকাশে মানবযাত্রী প্রেরণের আগে গগনযান মিশনের অংশ হিসেবে সরকার একটি পরীক্ষামূলক ফ্লাইটের আয়োজন করেছে। এর মাধ্যমে মহিলা-সদৃশ একটি স্পেসফেয়ারিং হিউম্যানয়েড রোবটকে মহাকাশে পাঠানো হবে। এই রোবটের পোশাকি নাম রাখা হয়েছে ব্যোম-মিত্র (Vyom-Mitra)। মূল উড়ানের পূর্বে এই পরীক্ষামূলক ফ্লাইট গগনযান মিশনের সাফল্য সম্পর্কে অনেকখানি ধারণা প্রদান করবে।

উল্লেখ্য, গগনযান মিশনের পাশাপাশি ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো আগামী বছর চন্দ্রাভিযানের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। সেক্ষেত্রে ২০২৩ সালের যে কোন সময়ে চাঁদের উদ্দেশ্যে রওনা দিতে পারে ইসরোর চন্দ্রযান-৩ (Chandrayaan-3)। উক্ত মিশনের লঞ্চ উইন্ডো হিসেবে আপাতত ফেব্রুয়ারি ও জুলাই মাসকে বেছে নেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন