ভিড়ের মধ্যে মাস্ক না পরলে ধরে ফেলবে এই বিশেষ CCTV টেকনোলজি

করোনা ভাইরাসের জন্য ভারতে জারি লকডাউন উঠিয়ে নিতে শুরু করেছে সরকার। যদিও করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা কমছে না বরং লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এই সময় বাইরে বেরোলে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা খুবই বেড়ে যায়। তাই এই সময়ে সকলের মাস্ক পরা এবং সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং পালন করা অত্যন্ত প্রয়োজন। সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং পালন করতে গেলে ন্যূনতম দুজনের মধ্যে ১ মিটারের দূরত্ব রাখা বাধ্যতামূলক। তবে ছোট জায়গায় সম্ভব হলেও ভিড় এলাকায় ১ মিটারের দূরত্ব রাখা সমস্যাজনক। এই কারণে একটি নতুন আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স টেকনলজি আনা হয়েছে যার মাধ্যমে সোশ্যাল ডিসটেন্স পালন করা সম্ভব হবে।

তাই এবারে কোন জায়গায় মানুষ সোশ্যাল ডিস্ট্যান্স পালন করছে এবং মাস্ক পরছে আর কোন জায়গায় পড়ছে না তা দেখবে এবার থেকে একটি সিসিটিভি ক্যামেরা। এই নতুন আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স টেকনোলজি নিয়ে এসেছে ব্যাঙ্গালুরুর একটি কোম্পানি যার নাম IWizard Solution । এই কোম্পানি এআই নির্ভর কম্পিউটার ভিশন প্ল্যাটফর্ম সাপোর্টেড একটি নতুন টেকনোলজি নিয়ে এসেছে এবং করোনা ভাইরাসের কারণে তৈরি হওয়া পরিস্থিতির উপর নজর রেখে একটি বিশেষ টেকনোলজি IRIS AI-র উপর কাজ করা শুরু করে দিয়েছে।

IRIS AI নামের এই কম্পিউটার ভিশন টেকনোলজির মাধ্যমে লাইভ ক্যামেরা ফিড মনিটর করা সম্ভব হবে। অর্থাৎ এই টেকনোলজি নিজে থেকে মনিটর করতে পারবে যে সিসিটিভি ক্যামেরা অঞ্চলে আসা কোন ব্যক্তি মাস্ক পড়েছে কিনা। শুধু মাস্ক নয় পিপিআই কিট, এবং সোশ্যাল ডিস্ট্যান্স মনিটরিংয়ের দায়িত্ব দেওয়া হবে এই ক্যামেরার উপরে। দুজন মানুষ নিজেদের থেকে কতটা দূরত্বে রয়েছে তা মাপতে পারবে এই বিশেষ টেকনোলজি।

এই ক্যামেরা মানুষের থার্মাল স্ক্রীনিং করতে সক্ষম। যেহেতু বড় মাত্রায় মানুষের উপর মনিটরিং করা সম্ভব, তাই করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার সময় এই নতুন টেকনোলজি কার্যকরী হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এই টেকনোলজির অ্যাকুরেসি লেভেল ৯৯ শতাংশ, এবং সিসিটিভি নেটওয়ার্কে ইন্টিগ্রেট করে এটি ব্যবহার করা হবে। বড় ফার্ম থেকে মানুফাকচারিং প্ল্যান্ট এবং হসপিটাল অবধি এই টেকনোলজি ব্যবহার করা সম্ভব হবে। এই টেকনোলজি ব্যবহার করা হলে করোনা ভাইরাসকে অনেকটা আটকানো সম্ভব হবে বলে মতামত বিশেষজ্ঞদের।

এই প্রোফাইল থেকে টেকগাপের সম্পাদকীয় দল এবং নিজস্ব সংবাদদাতাদের লেখা প্রকাশিত হয়৷