BharOS: Android কে টেক্কা দিতে ভারত সরকার আনল নিজস্ব মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম ভারওএস

Android এবং iOS-কে টেক্কা দিতে এসে গেল স্বদেশী অপারেটিং সিস্টেম BharOS

BharOS Own Mobile Operating System Launched in India

বর্তমান ডিজিটাল যুগে প্রায় প্রতিটি স্মার্টফোন এবং ট্যাবলেটে ব্যবহৃত দুটি প্রধান অপারেটিং সিস্টেম (ওএস) হল Google-এর Android এবং Apple-এর iOS। বিশ্বের যে-কোনো জায়গা থেকে এই ধরনের ডিভাইসগুলি কিনলে সেগুলিতে মূলত Android কিংবা iOS অপারেটিং সিস্টেমের দেখা মেলে৷ তবে এবার উক্ত দুই খ্যাতনামা কোম্পানির রাজত্বে থাবা বসাতে হালফিলে একটি দেশীয় মোবাইল ওএস নিয়ে হাজির হয়েছে ভারত। রিপোর্ট অনুযায়ী, মাদ্রাজের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি অর্থাৎ আইআইটি (IIT) দেশের ১০০ কোটিরও অধিক মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের সুবিধার্থে চলতি সময়ে ভারওএস (BharOS) নামক একটি নতুন মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম তৈরি করেছে। নিঃসন্দেহে আপামর ভারতবাসীর জন্য এটি যে একটি দারুণ সুসংবাদ, সেকথা বলাই বাহুল্য।

Android এবং iOS-কে টেক্কা দিতে এসে গেল স্বদেশী অপারেটিং সিস্টেম BharOS

আপনাদেরকে জানিয়ে রাখি, আইআইটি মাদ্রাজ কর্তৃক আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে গত ১৯ জানুয়ারি ভারওএসের কথা ঘোষণা করা হয়। রিপোর্ট অনুযায়ী, উক্ত স্বদেশী মোবাইল অপারেটিং সিস্টেমটি ভারতীয় বাজারে অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএসের আধিপত্য কমাতে বেশ খানিকটা সহায়তা করবে। তদুপরি, এই দুই প্রথিতযশা অপারেটিং সিস্টেমের তুলনায় দেশীয় ওএস ইউজারদেরকে আরও উন্নত মানের সুরক্ষা প্রদান করবে বলেও জানা গিয়েছে। উল্লেখ্য যে, ইতিমধ্যেই আলোচ্য ওএসটি এমন কিছু নামজাদা প্রতিষ্ঠানকে অফার করা হয়েছে, যাদের নিজস্ব সংবেদনশীল তথ্যাবলীকে সুরক্ষিত রাখার জন্য আঁটোসাঁটো সুরক্ষা ব্যবস্থার প্রয়োজন। বলে রাখি, ভারওএস জেন্ডকে অপারেশনস প্রাইভেট লিমিটেড (JandK Operations Private Limited বা JandKops) নামক একটি কোম্পানি তৈরি করেছে, যা আইআইটি মাদ্রাজ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত একটি সেকশন ৮ (অলাভজনক) সংস্থা।

ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা এবং গোপনীয়তার দিকটিকে আরও সুরক্ষিত করে তুলবে BharOS

এই প্রসঙ্গে জানিয়ে রাখি, আলোচ্য দেশীয় অপারেটিং সিস্টেমটি একগুচ্ছ কার্যকর সুরক্ষা এবং গোপনীয়তা ফিচার সহ আসে। উদাহরণস্বরূপ, এই ওএসের আওতায় কোনো নো ডিফল্ট অ্যাপ্লিকেশন বা এনডিএ (NDA) নেই। অর্থাৎ, এই স্বদেশী অপারেটিং সিস্টেমটি ব্যবহার করলে ইউজারদেরকে বাই-ডিফল্ট কোনো অ্যাপ বাধ্যতামূলকভাবে ব্যবহার করতে হবে না; তারা তাদের ইচ্ছেমতো যে-কোনো অ্যাপ্লিকেশন নিজেদের ডিভাইসে ইন্সটল করতে পারবেন। এর ফলে নিজেদের ডিভাইসের ওপর ব্যবহারকারীরা আরও ভালো নিয়ন্ত্রণ রাখতে সক্ষম হবেন, যার সুবাদে তাদের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা এবং গোপনীয়তার দিকটি আরও অধিক পরিমাণে সুরক্ষিত থাকবে।

উল্লেখ্য, BharOS ইন্ডিভিজ্যুয়াল বিজনেস অর্গ্যানাইজেশনগুলিকে প্রাইভেট অ্যাপ স্টোর সার্ভিস অর্থাৎ পাস (PASS) কর্তৃক সংগৃহীত অ্যাপ্লিকেশনগুলির অ্যাক্সেস সরবরাহ করে। এক্ষেত্রে জানিয়ে রাখি, PASS কিন্তু যে-কোনো ব্যক্তিকে তাদের সুবিশাল অ্যাপের ভাণ্ডারের অ্যাক্সেস প্রদান করে না। মোদ্দা কথা হল, BharOS-এর সহায়তায় ইউজাররা যে ব্যাপকভাবে উপকৃত হবেন, সেকথা আর আলাদা করে বলার অপেক্ষা রাখে না। সর্বোপরি, আলোচ্য ওএসটি যে ব্যবহারকারীদের মোবাইল ডিভাইসের নিরাপত্তা এবং গোপনীয়তার দিকটিকে সুরক্ষিত রাখার পাশাপাশি তাদেরকে স্বাধীনভাবে যে-কোনো অ্যাপ ব্যবহারে সহায়তা করবে, তা নিশ্চিতভাবে জানিয়েছেন আইআইটি মাদ্রাজের ডিরেক্টর প্রফেসর ভি কামাকোটি (Prof. V. Kamakoti)।