HomeনিউজGoogle এগুলি লিখে সার্চ করলেই সোজা জেল, সাবধান হয়ে যান

Google এগুলি লিখে সার্চ করলেই সোজা জেল, সাবধান হয়ে যান

গুগল ব্যবহারের সময়ে কোন কোন বিষয়ে অনুসন্ধান করা এড়িয়ে যাওয়া উচিত জেনে নিন

আপনি যদি একজন স্মার্টফোন ব্যবহারকারী হন, তবে বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে গুগল (Google) নামক সার্চ ইঞ্জিনটি মোবাইলে থাকা কতটা জরুরি তা অবশ্যই জানবেন। টেক জায়ান্ট গুগল নির্মিত এই বহুল ব্যবহৃত সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করে দেশ-বিদেশে ঘটমান বিভিন্ন ঘটনার তথ্যাদি থেকে শুরু করে যেকোনো বিষয় সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করা সম্ভব। তাই এই করিৎকর্মা সফ্টওয়্যারের কদর স্মার্ট গ্যাজেট ব্যবহারকারীদের মধ্যে ব্যাপক। কিন্তু, এই জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিনকে যদি কেউ অসৎ কর্মে ব্যবহার করেন বা ভুলবশত কোনো বিতর্কিত কনটেন্ট সার্চ করে বসেন, তবে তার জেলে যাওয়া কেউ আটকাতে পারবে না। আসলে, ভারত সরকার দেশবাসীর নিরাপত্তা ও স্বাধীকারের জন্য কিছু বিষয়ে কড়া আইন জারি করেছে, যা অলঙ্ঘনীয়। তাই এই সকল বিষয়ে অধিক উৎসুকতা দেখলে আপনাদের সমস্যায় পড়তে হতে পারে। এক্ষেত্রে, অনেকেই ‘রেস্ট্রিক্টেড’ কনটেন্টগুলি কি কি তা জানেন না। তাই আজ আমরা এই প্রতিবেদনে, গুগল ব্যবহারের সময়ে কোন কোন বিষয়ে অনুসন্ধান করা এড়িয়ে যাওয়া উচিত, সেই সম্পর্কে জানাবো।

গুগলে এই সকল বিষয়ে সার্চ করা এড়িয়ে চলুন (avoid searching these things on Google)

টেরারিসম অ্যাক্টিভিটিস (Terrorism Activities) : বর্তমানে বিশ্ব তথা ভারতের সীমানা জুড়ে নানাবিধ সন্ত্রাসমূলক কার্যকলাপ ঘটছে। ফলে, দেশবাসী নিজেদের সুরক্ষার ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়ার জন্য বা পরিস্থিতি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল থাকতে এই সম্পর্কে মাঝে মধ্যেই অনলাইনে সার্চ করে থাকেন। তবে, এই প্রকার সংবেদনশীল বিষয়ে বেশি কৌতূহল দেখলে কিন্তু গুরুতর সমস্যায় পড়তে হবে আপনাদের। কেননা, ভারতীয় গোয়েন্দা বিভাগ নিরাপত্তার বিষয়ে অত্যন্ত সতর্ক এবং সন্দেহজনক গতিবিধি ট্র্যাক করতে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের প্রতি তারা ‘বিশেষ’ ভাবে নজর রাখেন। ফলে, কোনো ব্যক্তি যদি বারংবার সন্ত্রাসী কার্যকলাপ সম্পর্কে সার্চ করেন, তবে স্বাভাবিক ভাবেই গোয়েন্দা বিভাগের সন্দেহ সেই ব্যক্তির উপর গিয়ে পড়বে। এমত পরিস্থিতিতে, ব্যক্তিটি নিছক উৎসুকতা মেটাতে এই টপিকটি সার্চ করলেও, গোয়েন্দা বিভাগের জেরার মুখোমুখি হতে হবে তাকে। এমনকি জেলে যাওয়ার পরিস্থিতিও তৈরী হতে পারে সাবধানতা অবলম্বন না করলে। তাই সন্ত্রাসবাদ সম্পর্কিত বিষয়ে অনলাইনে বেশি সার্চ না করাই উচিত।

চাইল্ড পর্নোগ্রাফি (Child Pornography) : বিশ্বজুড়ে প্রায় প্রতিটি দেশ, চাইল্ড পর্নোগ্রাফি কেন্দ্রিক কঠোর নিয়ম-কানুন তৈরি করছে। এমনকি, ভারতও এই তালিকার বাইরে নেই। তাই, যারা জানেন না তাদের বলে রাখি, আপনারা যদি গুগলে চাইল্ড পর্নোগ্রাফি সম্পর্কে সার্চ করার চেষ্টা করেন, তাহলে আপনাদের বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে। শুধু তাই নয়, এমনটা সার্চ করার কারণে জেলেও যেতে হতে পারে। তাই, ইন্টারনেটে চাইল্ড পর্নোগ্রাফির ব্যাপকতা কমাতে এবং অবশ্যই আইনের কড়াল নজর থেকে সুরক্ষিত থাকতে, প্রত্যেককেই এরূপ বিষয় সার্চ না করার পরামর্শ দিচ্ছি আমরা।

পাইরেটেড কনটেন্ট (Pirated Content) : কোভিড-১৯ পরিস্থিতির জন্য অনেকেই সিনেমা হলে যাওয়ার সাহস করে উঠতে পারছেন না। আবার, পছন্দের সিনেমা দেখার লোভ সম্বরণ করাও দুষ্কর হয়ে উঠছে। এমত পরিস্থিতিতে, অনেকেই বাঁকা পথ অবলম্বন করে বেআইনি ভাবে বিভিন্ন মুভির কপিরাইট ভার্সনের অননুমোদিত অনুলিপি (unauthorized duplication) ডাউনলোড করেন। আপনাদের মধ্যেও যদি কেউ এই কাজ করে থাকেন, তবে জানিয়ে দিই যে, এরূপ পাইরেটেড কনটেন্ট সার্চ বা ডাউনলোড করলে কঠোর শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে আপনাকে। কেননা, পাইরেটেড কনটেন্ট বিক্রি করা, ডাউনলোড করা বা সার্চ করা নিয়ে কঠোর নিয়ম প্রবর্তন করা হয়েছে ভারতীয় সংবিধানে। তাই কিছু জিনিষ ‘শর্টকাট’ -এ না করাই ভালো, নইলে আপনাকে জেলের হাওয়াও খেতে হতে পারে।

আরও পড়ুন