চীন কে পিছনে ফেলে জাপান তৈরী করলো দুনিয়ার সবচেয়ে ‘দ্রুত’ কম্পিউটার

কে সবচেয়ে শক্তিশালী কম্পিউটার ডেভেলপ করতে পারে, তা নিয়ে হামেশাই হাড্ডাহাড্ডি লড়াই চলে চীন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে। সম্প্রতি উভয়কেই পেছনে ফেলে শীর্ষে চলে এল জাপান। জাপানের রিকেন রিসার্চ ইনস্টিটিউট এবং ফুজিৎসু লিমিটেড, বিশ্বের দ্রুততম কম্পিউটার তৈরি করেছে। এই কম্পিউটারটি চীন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দ্রুততর কম্পিউটারগুলির চেয়েও দ্রুত।

একটি স্বাধীন সমীক্ষায় জাপানের ফুগাকু নামের এই সুপার কম্পিউটারটিকে প্রথম স্থান দেওয়া হয়েছে, যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনা সুপার কম্পিউটারগুলির তুলনায় দ্রুততম বলে মনে করা হচ্ছে। এই কম্পিউটারটি, কম্প্যুটেশনাল সায়েন্সের রিকেন সেন্টারে ইনস্টল করা আছে।
এই সুপার কম্পিউটারটি ২০২১ সালের মধ্যে এর সমস্ত কার্যক্রম শুরু করবে। ড্রাগ পুনরুদ্ধার থেকে শুরু করে আবহাওয়ার পূর্বাভাস, সমস্ত তথ্য দিতে পারে এই সুপার কম্পিউটারটি।

একটি প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, এই সুরক্ষা কম্পিউটারে দেড় লাখেরও বেশি প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। অনুমান করা হচ্ছে এই কম্পিউটারের স্পিড, বিশ্বের অন্যান্য দ্রুত কম্পিউটারের তুলনায় ২.৮ গুণ বেশি।

সফ্টব্যাঙ্ক গ্রুপ কর্পোরেশন আর্মস লিমিটেডের টেকনোলজি ব্যবহার করে এই কম্পিউটারটি তৈরি করা হয়েছে। আর্মসের তরফে দাবি করা হয়েছে পারফরম্যান্সের নিরিখে এই কম্পিউটারটি ইন্টেল কর্পোরেশনের কম্পিউটারে টেক্কা দেবে। আর্ম প্রসেসরগুলি বিশ্বের বেশিরভাগ স্মার্টফোনে ব্যবহৃত হয়। জানিয়ে রাখি, অ্যাপল শীঘ্রই তার Mac কম্পিউটারগুলিতে এই প্রসেসর ব্যবহার করবে।উল্লেখ্য, ৯ বছর পর চীন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে পিছনে ফেলে জাপান প্রথম স্থান অর্জন করেছে। এর আগে ২০১১ সালে ফুজিৎসু’র “K” কম্পিউটার প্রথম স্থান অর্জন করে।