এবার Xiaomi সহ চীনা ব্র্যান্ডের স্মার্টফোন বর্জন করার ডাক দিল এই দেশের সরকার

বর্তমানে বাজারের বড় একটা অংশ জুড়ে চীনা স্মার্টফোন ব্র্যান্ডের হ্যান্ডসেট রাজত্ব করছে। কিন্তু একাংশ মানুষের পছন্দের তালিকায় থাকা এই ফোনগুলিকেই এবার পরিত্যাগ করার ডাক দিয়েছে একটি দেশের সরকার। আর অস্বস্তির ব্যাপার এটাই যে, এই ঘটনার সাথে নাম জড়িয়ে গেছে বজনপ্রিয় স্মার্টফোন নির্মাতা Xiaomi (শাওমি)-র। আসলে সম্প্রতি লিথুয়ানিয়া এবং চীনের মধ্যে একটি কূটনৈতিক উত্তেজনা সংঘটিত হয়েছে। রিপোর্ট অনুযায়ী, এই উত্তেজনার কারণেই লিথুয়ানিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় তার নাগরিকদের চীনের তৈরি স্মার্টফোন না কেনার জন্য অনুরোধ করেছে। শুধু তাই নয়, সে দেশের সরকার সরকার চাইছে এই জাতীয় ফোনের বিদ্যমান ইউজাররা যেন তাদের ফোনগুলি ফেলে দেয়।

কেনো লিথুয়ানিয়ায় চীনা ফোন বর্জন করার দাবি তুলেছে সরকার?

লিথুয়ানিয়ার রাষ্ট্রীয় সাইবার নিরাপত্তা সংস্থা জানিয়েছে, শাওমির ফ্ল্যাগশিপ ফোনে “ফ্রি টিবেট (তিব্বত),” “লং লিভ তাইওয়ান ইন্ডিপেন্ডেন্স”, “ডেমোক্রেসি মুভমেন্ট” ইত্যাদি শব্দবন্ধনী শনাক্ত এবং সেন্সর করার ক্ষমতা রয়েছে। সংস্থাটি ইউরোপীয় ইউনিয়ন অঞ্চলের জন্য Mi 10T 5G মডেলে এই ক্ষমতাটি নিষ্ক্রিয় করেছে বলে দাবি করলেও, সাইবার নিরাপত্তার ফার্মের মতে ওই সেন্সর ফিচার এখনও বিদ্যমান। এমনকি ব্র্যান্ডের ডিভাইসের সিস্টেম অ্যাপ দ্বারা মোট ৪৪৯টি টার্ম (এই সংখ্যা প্রতিনিয়ত আপডেট হচ্ছে) সেন্সর হচ্ছে বলে তারা দাবি করেছে।

সত্যিই Xiaomi ইউজারদের ডেটা বিদেশী সার্ভারে পাঠাচ্ছে?

শাওমিকে ইতিমধ্যে সিঙ্গাপুরের একটি সার্ভারে এনক্রিপ্ট করা ফোন ব্যবহারের তথ্য পাঠাতে দেখা গেছে। তবে সংস্থাটি স্পষ্ট জানিয়েছে যে এই ডেটা পাঠানোর বিষয়টি কেবল লিথুয়ানিয়ার জন্য নয়, বরঞ্চ শাওমি ব্যবহারকারী সমস্ত দেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। তাছাড়া শুধু শাওমি নয়, আরেক চীনা টেক জায়ান্ট হুয়াওয়ে (Huawei)-এর ডিভাইসেও একটি সুরক্ষাগত ফাঁকফোকর পাওয়া গেছে। যার পরেই লিথুয়ানিয়ার উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী মার্গিরিস আবুকেভিসিয়াস নতুন চীনা ফোন না কেনা এবং বিদ্যমান ফোনগুলি ফেলে দেওয়ার অনুরোধ করেছেন।

এই অভিযোগ সম্পর্কে Xiaomi কী বলেছে?

লিথুয়ানিয়া সরকারের উক্ত গুরুতর অভিযোগের কথা সামনে আসা মাত্রই, শাওমি এই বিষয়ে মুখ খুলেছে। এক্ষেত্রে কোম্পানির মুখপাত্র বলেছেন যে, তাদের ডিভাইসগুলি ইউজার ডেটা সেন্সর করে না। তাছাড়া ব্র্যান্ডের স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের কোনো ব্যক্তিগত আচরণও কখনো সীমাবদ্ধ করা হয় না। এছাড়া শাওমি সমস্ত ইউজারের আইনগত অধিকারকে সম্পূর্ণরূপে সম্মান এবং রক্ষা করে বলে তিনি জানিয়েছেন।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন