নিউজ

ট্রেনে রাতে মোবাইল, ল্যাপটপ চার্জ নয়, কারণ জানালো রেল

ট্রেনে নির্বিঘ্নে যাতায়াত করতে কে না চায়! কিন্তু ইদানীংকালে শর্টসার্কিট বা অন্যান্য কারণে ট্রেনে আগুন লাগার ঘটনা হামেশাই ঘটছে। ফলে যাত্রীদের নিরাপদে গন্তব্যস্থলে পৌঁছোনোর বিষয়ে একটা সংশয় থেকেই যায়। এসব কথা মাথায় রেখেই একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিতে চলেছে ভারতীয় রেল কর্তৃপক্ষ। ভারতীয় রেল শীঘ্রই এই নির্দেশিকা নিয়ে আসতে চলেছে যে, ভ্রমণের সময় যাত্রীদের রাতে তাদের মোবাইল বা ল্যাপটপে চার্জ দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে না।

রেলের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তাদের মতে, রাতে ট্রেনে মোবাইলে চার্জ দেওয়া বন্ধ করার সিদ্ধান্তটি একটি আগাম সুরক্ষা ও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গঠনের পরিপ্রেক্ষিতে নেওয়া হচ্ছে। ওই কর্মকর্তা আরও জানিয়েছেন, মোবাইল ফোন এবং অন্যান্য ইলেকট্রনিক ডিভাইস চার্জ করার জন্য ব্যবহৃত পয়েন্টগুলো রাত ১১টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত বন্ধ রাখা হবে।

সম্প্রতি দেরাদুনগামী শতাব্দী এক্সপ্রেসের একটি কোচে শর্ট সার্কিটের ফলে আগুন লাগে। ঘটনাটিকে অত্যন্ত সন্দেহজনক বলে মনে করা হচ্ছে। এর মাত্র ছয় দিন পরে রাঁচি স্টেশনেও একটি মালবাহী ট্রেনের ইঞ্জিনে আগুন লাগার ঘটনা সামনে আসে।

যারপরেই এদিন “নিরাপত্তা ব্যবস্থা” নিয়ে একটি পর্যালোচনা সভায় রেলমন্ত্রী বলেছেন, “ট্রেন চালানোর ক্ষেত্রে সকল নিরাপত্তা ব্যবস্থা পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পর্যালোচনা এবং পুনর্বিবেচনা করা প্রয়োজন। যাত্রীদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তা রেলবিভাগের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য। এই বিষয়ে কোনো গাফিলতি কোনোভাবেই বরদাস্ত করা হবে না।”

এদিকে, ভারতীয় রেল ধূমপান এবং দাহ্য পদার্থ বহনের বিরুদ্ধে বেশ কিছু উদ্যোগ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যা আপাতদৃষ্টিতে সাম্প্রতিক কয়েকটি ট্রেনে অগ্নিকাণ্ডের কারণ। ট্রেনে দাহ্য বস্তু বহন করা রেলওয়ে আইনের ১৬৪ ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এজন্য অপরাধীকে তিন বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড বা ১,০০০ টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডেই দণ্ডিত করা হতে পারে। এছাড়া ১৬৫ ধারায় ৫০০ টাকা জরিমানা ধার্য হতে পারে।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন

Back to top button