নিউজমোবাইল ফোনের তুলনা

Redmi, Realme সহ ১৫ হাজার টাকার কমে এই ব্র্যান্ডের ফোনগুলি আপনার জন্য সেরা হতে পারে

একটি নয়া স্মার্টফোন কেনার ক্ষেত্রে বাজেট কতটা বা কোন কোন ফিচার দরকার তা স্থির করা গেলেও, বেশিরভাগ ক্রেতাদের মনে ব্র্যান্ড-সংক্রান্ত দ্বিধা দেখা দেয়। কেননা ব্র্যান্ড সম্পর্কে নানা লোকের নানা মত হওয়ায়, সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। তাই আপনাদের সুবিধার্থে আজ আমরা এমন কয়েকটি বাছাই করা ব্র্যান্ডের বাজেট স্মার্টফোনের প্রসঙ্গে আলোচনা করবো, যেগুলি বাজারে বহুল বিক্রীত এবং সাথে ক্রেতাদের ফিচারগত চাহিদাকেও পূরণ করে। এক্ষেত্রে, Motorola, Infinix, Realme, Redmi মতো ব্র্যান্ড সামিল আছে তালিকায়। এখানে আলোচিত প্রত্যেকটি স্মার্টফোনে আপনারা – FHD+ ডিসপ্লে প্যানেল, ফাস্ট চার্জিং টেকনোলজি সমেত ৫,০০০ এমএএইচ ব্যাটারি, কোয়াড বা ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা, ৪ জিবি র‌্যাম এবং ৬৪ জিবি স্টোরেজ পেয়ে যাবেন। আর এগুলির দাম থাকবে ১৫,০০০ টাকার মধ্যেই।

১৫,০০০ টাকার নিচে উপলব্ধ স্মার্টফোনের তালিকা

Motorola Moto G51 : ১৪,৯৯৯ টাকা

হ্যান্ডসেটটি ৪ জিবি র‌্যাম এবং ৬৪ জিবি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্টে উপলব্ধ। ভারতে, মোটোরোলার সবচেয়ে সাশ্রয় মূল্যের 5G স্মার্টফোন হিসাবে মোটোরোলা মোটো জি৫১ আত্মপ্রকাশ করেছে। এতে, রয়েছে, একটি ৬.৮ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১,০৮০x২,৪০০ পিক্সেল) ম্যাক্স ভিশন ডিসপ্লে, যা ১২০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট ও ২০:৯ এসপেক্ট রেশিও সাপোর্ট করে। ফাস্ট পারফরম্যান্সের জন্য উক্ত ফোনে ব্যবহার করা হয়েছে অক্টা কোর কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৪৮০ প্লাস প্রসেসর। এটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক মাই ইউএক্স কাস্টম স্কিনে চলবে। ফটোগ্রাফির জন্য এই ফোনের ব্যাক প্যানেলে ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ আছে। এগুলি হল, ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ৮ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা ওয়াইড সেন্সর ও ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো শুটার। এছাড়া, থাকছে ১৩ মেগাপিক্সেলের একটি সেলফি ক্যামেরা। পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য Moto G51 5G ফোনে ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে, যার সাথে ২০ ওয়াট র‌্যাপিড চার্জিং সাপোর্ট করে।

Motorola Moto G31 : ১২,৯৯৯ টাকা

মোটোরোলা মোটো জি৩১ স্মার্টফোনের ৪ জিবি র‌্যাম এবং ৬৪ জিবি স্টোরেজ যুক্ত বেস ভ্যারিয়েন্টের দাম এখানে দেওয়া হল। গত নভেম্বরে লঞ্চ হওয়া মোটোরোলার এই ফোনে রয়েছে একটি ৬.৪ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১,০৮০×২,৪০০ পিক্সেল) AMOLED ডিসপ্লে। এই ডিসপ্লে, ৬০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট, ২০:৯ এসপেক্ট রেশিও, ৭০০ নিট পিক ব্রাইটনেস এবং ৪০৯ পিপিআই পিক্সেল ডেনসিটি সাপোর্ট করে। ফাস্ট পারফরম্যান্স এবং মাল্টিটাস্কিংয়ের জন্য ফোনে মিডিয়াটেক হেলিও জি৮৫ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। এটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ওএস চালিত। ছবি তোলার জন্য ফোনের ক্যামেরা মডিউলে তিনটি রিয়ার সেন্সর আছে। এগুলি হল, ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ৮ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রা ওয়াইড অ্যাঙ্গেল লেন্স এবং ২ মেগাপিক্সেল ডেপ্থ সেন্সর। আবার, সেলফি বা ভিডিও চ্যাটিংয়ের সুবিধার্থে থাকছে একটি ১৩ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট-ফেসিং ক্যামেরা। Motorola Moto G31 ফোনে আছে ৫,০০০ এমএএইচ পাওয়ারের ব্যাটারি, যা ২০ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট করে।

Infinix Hot 11S : ১০,৪৯৯ টাকা

এই মূল্য ফোনের ৪ জিবি র‌্যাম ও ৬৪ জিবি স্টোরেজের। ডুয়েল সিমের ইনফিনিক্স হট ১১এস ফোনে আছে, ৬.৭৮ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (২,৪৮০x১,০৮০ পিক্সেল) পাঞ্চ-হোল ডিসপ্লে। ব্যবহারকারীর আই-সাইটকে সুরক্ষিত রাখতে এই ডিসপ্লে আই কেয়ার মোড সহ এসেছে। আবার, ফাস্ট পারফরম্যান্সের জন্য এই ফোনে ব্যবহার করা হয়েছে অক্টা-কোর মিডিয়াটেক হেলিও জি৮৮ প্রসেসর। এটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক এক্সওএস ৭.৬ কাস্টম স্কিনে রান করবে। ফটোগ্রাফির জন্য হট ১১এস সিরিজের এই ফোনে কোয়াড LED ফ্ল্যাশ লাইট সহ ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ উপস্থিত। এই ক্যামেরাগুলি হল, ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ২ মেগাপিক্সেল সেকেন্ডারি সেন্সর এবং একটি এআই লেন্স। আবার সেলফি ও ভিডিও কলিংয়ের জন্য ফোনে পাওয়া যাবে ডুয়াল LED ফ্ল্যাশ লাইট সহ ৮ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা। সিকিউরিটি ফিচার হিসাবে এতে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর উপলব্ধ। আর, পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য Infinix Hot 11S ফোনে আছে ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির‌ ব্যাটারি।

Realme 8i : ১৩,৫৯৫ টাকা

এখানে ফোনের ৪ জিবি র‍্যাম এবং ৬৪ জিবি স্টোরেজের দাম দেওয়া হল। ফিচারের কথা বললে, অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক রিয়েলমি ইউআই ২.০ কাস্টম ওএস চলিত রিয়েলমি ৮আই স্মার্টফোনে একটি ৬.৫৯ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১,০৮০x২,৪১২ পিক্সেল) ডিসপ্লে দেওয়া হয়েছে। এই ডিসপ্লে, ডায়নামিক রিফ্রেশ রেট সাপোর্ট সহ এসেছে – ৩০ হার্টজ, ৪৮ হার্টজ, ৫০ হার্টজ, ৬০ হার্টজ, ৯০ হার্টজ ও ১২০ হার্টজ। ফাস্ট পারফরম্যান্সের জন্য এতে মিডিয়াটেক হেলিও জি৯৬ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। নির্ধারিত র‌্যাম ছাড়াও, ফোনটি ৫ জিবি পর্যন্ত এক্সটেন্ডেড র‌্যাম সাপোর্ট করে। এই ফোনে, ৫০ মেগাপিক্সেল Samsung S5KJN1 প্রাইমারি সেন্সর, ২ মেগাপিক্সেল মনোক্রোম পোট্রেট লেন্স ও ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো সেন্সর সহ ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ বর্তমান। একই সাথে, ফোনের সামনে ১৬ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা লক্ষণীয়। সিকিউরিটির জন্য এতে সাইড মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর উপলব্ধ। আর, পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য Realme 8i ফোনে, ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে, যা ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং টেকনোলজি সাপোর্ট করে।

Redmi 10 Prime : ১২,৪৯৯ টাকা

এই দাম রেডমি ১০ প্রাইম স্মার্টফোনের ৪ জিবি র‍্যাম এবং ৬৪ জিবি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্টের। ফিচার হিসাবে এতে, কর্নি গরিলা গ্লাস ৩ প্রোটেকশন ও ২০:৯ এসপেক্ট রেশিও সহ ৬.৫ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১,০৮০x২,৪০০ পিক্সেল) ডাস্ট ও স্প্ল্যাস প্রুফ ডিসপ্লে রয়েছে। পাঞ্চ হোল ডিজাইনের এই ডিসপ্লে অ্যাডাপ্টিভ রিফ্রেশ রেট (৪৫ হার্টজ, ৬০ হার্টজ ও ৯০ হার্টজ) সাপোর্ট করে। ফাস্ট-পারফরম্যান্সের জন্য এতে, এআরএম মালি জি৫২ এমসি২ জিপিইউ সহ অক্টা-কোর মিডিয়াটেক হেলিও জি৮৮ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক এমআইইউআই ১২.৫ কাস্টম ওএস স্কিন দ্বারা চালিত। এটি এক্সটেন্ডেড মেমরি ফিচার সহ এসেছে। ফলে অব্যবহৃত ইন্টারনাল স্টোরেজ থেকে ২ জিবি পর্যন্ত অতিরিক্ত র‌্যাম পেয়ে যাবেন ইউজাররা। ক্যামেরা ফ্রন্টের কথা বললে, উক্ত ফোনে কোয়াড রিয়ার ক্যামেরা (৫০+৮+২+২ মেগাপিক্সেল) সেটআপ এবং ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট-ফেসিং ক্যামেরা বর্তমান। Redmi 10 Prime ফোনে ৬,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে, যা ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং এবং ৯ ওয়াট রিভার্স চার্জিং সাপোর্ট করে।

Back to top button