কার্গিলে প্রথমবার 4G পরিষেবা পৌঁছে দিল Airtel, খুশি ছাত্রছাত্রী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ

এয়ারটেলের ৪জি পরিষেবা উপলব্ধ হয়ে যাওয়ার দরুন কার্গিলের কাকসার ও লাটু গ্রামে ইন্টারনেট সংযোগ আরও জোরদার হবে এবং যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতির ফলে সংশ্লিষ্ট এলাকাটিরও প্রভূত উন্নতিসাধন ঘটবে

Airtel Launch 4G in Kargil

সম্প্রতি লাদাখের কার্গিল জেলার কাছে একটি ছোট্ট গ্রাম কাকসারে 4G নেটওয়ার্ক পরিষেবা চালু করলো ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম টেলিকম অপারেটর Bharti Airtel। উল্লেখ্য যে, এই কোম্পানিটির দৌলতেই এখানে প্রথম 4G নেট সার্ভিস পাওয়া যাবে। সংস্থার তরফে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে যে, এই মুহূর্তে কাকসার এবং লাটু গ্রামে মিলবে Airtel-এর 4G নেটওয়ার্ক পরিষেবা। ফলে এই পাহাড়ি অঞ্চলের বাসিন্দারা এখন 4G ওয়্যারলেস ব্রডব্যান্ড সার্ভিসকে কাজে লাগিয়ে ভারতের সব জায়গার সঙ্গে অতি সহজেই সংযোগ রক্ষা করতে পারবেন। এর পাশাপাশি ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনা সহ দৈনন্দিন জীবনের নানাবিধ জরুরি কাজ অতি অনায়াসে করা সম্ভবপর হবে। ফলে ভারতের ডিজিটাল অগ্রগতির ক্ষেত্রে এটা যে এক দুর্দান্ত পদক্ষেপ, সেকথা নিঃসন্দেহে বলাই বাহুল্য।

এবার কার্গিলে পাওয়া যাবে Airtel-এর 4G পরিষেবা

এই প্রসঙ্গে আপার নর্থের ভারতী এয়ারটেলের সিইও পুষ্পিন্দর সিং গুজরাল (Pushpinder Singh Gujral) বলেছেন, “কার্গিলে সর্বপ্রথম ৪জি পরিষেবা চালু করতে পেরে আমরা রোমাঞ্চিত। এই পাহাড়ি এলাকায় সাধারণ মানুষ বসবাস করার পাশাপাশি ভারতীয় জওয়ানরাও কর্মরত রয়েছেন। কিন্তু যথাযথ নেটওয়ার্ক না মেলায় যোগাযোগ করার ক্ষেত্রে অনেক সময়ই চূড়ান্ত সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় মানুষকে। তবে এখন এয়ারটেলের সৌজন্যে সমস্ত মুশকিল আসান হয়ে যাবে। সর্বোপরি, সর্বপ্রথম টেলিকম কোম্পানি হিসেবে কার্গিলে ৪জি চালু করতে পেরে আমরা খুবই গর্বিত। এক্ষেত্রে সব ধরনের সহায়তার জন্য আমরা টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের (Ministry of Telecommunications) প্রতি কৃতজ্ঞ।”

ভবিষ্যতে Airtel-এর 5G সার্ভিসও উপলব্ধ হতে পারে কার্গিলে

খুব স্বাভাবিকভাবেই এয়ারটেলের ৪জি পরিষেবা উপলব্ধ হয়ে যাওয়ার দরুন কার্গিলের কাকসার ও লাটু গ্রামে ইন্টারনেট সংযোগ আরও জোরদার হবে এবং যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতির ফলে সংশ্লিষ্ট এলাকাটিরও প্রভূত উন্নতিসাধন ঘটবে। প্রসঙ্গত জানিয়ে রাখি, এয়ারটেল ভবিষ্যতে এই অঞ্চলগুলিতে উপলব্ধ ৪জি পরিষেবাকে ৫জি (5G)-তে স্যুইচ করতে পারে, কারণ সংস্থাটি সেখানে ৫জি এনএসএ (নন-স্ট্যান্ডঅ্যালোন) নেটওয়ার্ক স্থাপন করছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, চলতি সময়ে নন-স্ট্যান্ডঅ্যালোন (NSA) ৫জি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে দেশের বেশ কয়েকটি শহরে ইউজারদেরকে ঝড়ের গতির নেট সার্ভিস প্রদান করছে এয়ারটেল। এই টেকনোলজি ৪জি কোরের উপর নির্ভরশীল।

আপনাদেরকে জানিয়ে রাখি, বর্তমানে দেশের বেশ কয়েকটি শহরে Airtel 5G Plus পরিষেবা উপলব্ধ রয়েছে। এই তালিকায় আছে দিল্লি, কলকাতা, মুম্বাই, পুনে (কেবল বিমানবন্দরের ভেতরে), বারাণসী, বেঙ্গালুরু, চেন্নাই, হায়দ্রাবাদ, নাগপুর, গুয়াহাটি, গুরুগ্রাম, শিলিগুড়ি, পানিপথ, এবং পাটনা। ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম টেলিকম সংস্থাটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, এখনও যেহেতু আনুষ্ঠানিকভাবে কোম্পানির কোনো 5G প্ল্যান রোলআউট হয়নি, তাই ব্যবহারকারীরা তাদের 4G সিমে বিদ্যমান রিচার্জ প্ল্যান মারফতই এই বিদ্যুৎ গতির নেট পরিষেবা ব্যবহারের মজা উপভোগ করতে পারবেন; তবে এর জন্য ইউজারদের কাছে 5G সাপোর্টেড হ্যান্ডসেট থাকা একান্ত আবশ্যক। আর গোটা দেশে পঞ্চম প্রজন্মের নেটওয়ার্ক সার্ভিস রোলআউট করার কাজে Airtel যেভাবে দুরন্ত গতিতে এগিয়ে চলেছে, তাতে চলতি বছরের শেষের দিকে আরও বেশ কয়েকটি শহরে সংস্থার 5G পরিষেবার আগমন ঘটবে বলে আশা করা যায়।