টেলিকম

দেনায় ডুবে সংস্থা, 5G পরিষেবা পেতে Jio ও Airtel ভরসা Vi গ্রাহকদের

দেশের শীর্ষস্থানীয় দুই টেলিকম কোম্পানি Reliance Jio এবং Airtel ইতিমধ্যেই ভারতের নির্বাচিত কিছু শহরে তাদের দুরন্ত গতির 5G পরিষেবা চালু করেছে। শুধু তাই নয়, আগামী ২০২৪ সালের মধ্যে তারা ভারতের প্রতিটি কোণায় 5G সার্ভিস পৌঁছে দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছে আপামর দেশবাসীকে। এমত পরিস্থিতিতে দেশের তৃতীয় বৃহত্তম টেলিকম সংস্থা Vodafone Idea বা Vi ঠিক কবে 5G পরিষেবা চালু করবে, সেই নিয়ে চলতি সময়ে গ্রাহকদের মনে চরম কৌতূহল দেখা যাচ্ছে। যদিও আদিত্য বিড়লা গ্রুপের চেয়ারম্যান কুমার মঙ্গলম বিড়লা গত ১ অক্টোবর ষষ্ঠ ইন্ডিয়া মোবাইল কংগ্রেস (IMC) ২০২২ ইভেন্টে বেশ জোর দিয়েই বলেছিলেন যে, Vi খুব শীঘ্রই ভারতে 5G পরিষেবা চালু করবে; তবে বাস্তবে এই ঘটনাটি ঠিক কবে ঘটবে, তার কোনো সুনিশ্চিত দিনক্ষণ এখনও সংস্থার তরফে জানা যায়নি। আর সাম্প্রতিক এক রিপোর্ট বলছে যে, খুব শীঘ্রই Vodafone Idea-র গ্রাহকরা সংস্থার 5G পরিষেবার স্বাদ চেখে দেখার সুযোগ পাবেন না, কেননা সংস্থাটি এখনও তার আর্থিক দুর্দশা কাটিয়ে উঠতে পারেনি। ফলে বিশেষজ্ঞরা অনুমান করছেন যে, ইউজারদেরকে 5G পরিষেবা উপহার দেওয়া সংস্থার পক্ষে এই মুহূর্তে কোনোভাবেই সম্ভব নয়।

পাহাড়প্রমাণ বকেয়া না মেটাতে পারলে কোনোমতেই চালু হবে না Vi-এর 5G পরিষেবা

প্রসঙ্গত জানিয়ে রাখি, বিপুল লোকসানের পাশাপাশি প্রচুর টাকা দেনার দায়ে গত বছর ভারতে প্রায় ব্যবসা গোটাতে বসেছিল ভিআই। পরে সেই পরিস্থিতি কিছুটা সামলে উঠলেও খাদের কিনারা থেকে কিন্তু টেলিকম সংস্থাটি একেবারেই সরে আসতে পারেনি। উল্লেখ্য যে, জিও বাজারে আসার পর থেকেই দিনের পর দিন ক্রমশ দেনায় ডুবে যেতে থাকে ভোডাফোন, এবং সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়াতেই আইডিয়ার সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধে এই সংস্থা। তবে ভোডাফোন আইডিয়া নাম নিয়ে নিজেদের ব্যবসাকে দাঁড় করানোর সবরকম চেষ্টা করলেও বিশেষ কোনো সুফল মেলেনি, প্রত্যেকটা ত্রৈমাসিকে শুধুই সংস্থার লোকসানের খবর সামনে এসেছে। আর সম্প্রতি এক রিপোর্ট থেকে জানা গিয়েছে যে, বর্তমানে কয়েক হাজার কোটি টাকা বকেয়া রয়েছে ভিআই-এর, যা সংস্থার ব্যবসায়িক উন্নতির পথে প্রধান কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই যতদিন না এই সমস্যা মিটছে, ততদিন পর্যন্ত ভিআই-এর সুদিনের মুখ দেখার কোনো আশা নেই বললেই চলে।

আর্থিক দুর্দশা কাটিয়ে উঠে এই মুহূর্তে 5G চালু করা Vodafone Idea-র পক্ষে বেশ মুশকিল ব্যাপার

ভোডাফোন আইডিয়া-র সিইও অক্ষয় মুন্দ্রা (Akshaya Moondra) জানিয়েছেন, যতদিন না সংস্থাটি সম্পূর্ণভাবে তার আর্থিক সমস্যা কাটিয়ে উঠতে পারবে, ততদিন পর্যন্ত কোম্পানির ৫জি লঞ্চ হবে না। উল্লেখ্য যে, নিজেদের আর্থিক দুর্দশা ঘোঁচানোর জন্য টেলিকম কোম্পানিটি ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটি ব্যাংকের সাথে আলোচনা করেছে। সেক্ষেত্রে পুরোনো যাবতীয় বকেয়া মিটিয়ে যথাযথভাবে টাকার জোগাড়যন্ত্র করে উঠতে পারলে তবেই ভোডাফোন আইডিয়ার ৫জি পরিষেবা চালু হতে পারে। তবে আপাতত এই মুহূর্তে কাজটি করা খুবই কঠিন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা, কারণ পাহাড়প্রমাণ বকেয়ার চাপে সংস্থাটি বর্তমানে ব্যাপকভাবে জর্জরিত; বিশেষ করে ইন্দাস টাওয়ারের (Indus Towers) কাছে ভিআই-এর প্রচুর বকেয়া রয়েছে। এই প্রসঙ্গে বলে রাখি, ইতিমধ্যেই ইন্দাস দেশের তৃতীয় টেলিকম কোম্পানিটিকে হুমকি দিয়েছে যে, ভোডাফোন আইডিয়া যদি ২০২২ সালের নভেম্বরের মধ্যে যাবতীয় বকেয়া পরিশোধ করতে না পারে, তাহলে তারা টাওয়ারের অ্যাক্সেস ফিরিয়ে নেবে। সেক্ষেত্রে ভিআই যাবতীয় বাধাবিপত্তি কাটিয়ে আগামী দিনে আদৌ সুদিনের মুখ দেখতে পারবে কি না, তা একমাত্র সময়ই বলতে পারবে।

তবে কি গ্রাহকরা Vi-কে ছেড়ে Jio এবং Airtel-এর হাত ধরতে বাধ্য হবেন?

সবমিলিয়ে, Vodafone Idea-র 5G পরিষেবা চালু করা এখন বিশ বাঁও জলে বললেও খুব একটা ভুল বলা হবে না। তবে সংস্থার গ্রাহকরা কিন্তু ইতিমধ্যেই ঝড়ের গতির পঞ্চম প্রজন্মের নেট পরিষেবা ব্যবহারের জন্য রীতিমতো উৎসুক হয়ে উঠেছেন। সেক্ষেত্রে যেহেতু Vi-এর 5G নেটওয়ার্ক রোলআউট হওয়ার এই মুহূর্তে কোনো সম্ভাবনা নেই, ফলে এখন 5G পরিষেবা ব্যবহার করতে চাইলে সংস্থার গ্রাহকদের Airtel কিংবা Jio-তে স্যুইচ করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। আর একবার ব্যবহারকারীরা Vodafone Idea-কে ছেড়ে Jio কিংবা Airtel-এর হাত ধরে ফেললে Vi-এর ইউজারবেসের আরও অবনতি হবে; ফলে আগামী দিনে ব্যবসায় ঘুরে দাঁড়ানো সংস্থাটির পক্ষে যে ভীষণ মুশকিল হয়ে যাবে, সেকথা নিঃসন্দেহে বলাই বাহুল্য।

Back to top button