প্রশ্নের মুখে Tesla-র সেল্ফ ড্রাইভিং গাড়ি, বাড়ছে দুর্ঘটনা

Tesla self driving car accident dead two people

মানুষের হাতের মুঠোয় প্রযুক্তির এমন এক চাবি কাঠি এসে পড়েছে যে, গাড়ি চালানোর জন্য এখন আর হাত বাড়িয়ে স্টিয়ারিং হুইলটাকে পর্যন্ত ছোঁয়ার প্রয়োজন পরে না। আসলে বিভিন্ন অটোমোবাইল কোম্পানি এখন ড্রাইভিং প্রযুক্তির ওপর কাজ করছে। এদের মধ্যে অন্যতম একটি নাম Tesla। তবে বিগত বেশ কিছু সময় ধরে সংস্থাটির স্বচালিত গাড়ির প্রযুক্তির ব্যাপারে এমন কিছু ঘটনার কথা শোনা যাচ্ছে যা, মানুষের জীবনে স্বাচ্ছন্দ্যের স্বস্তির বদলে জাগাচ্ছে মৃত্যুর শিহরণ। সংবাদসংস্থা রয়টার্স এর রিপোর্ট অনুযায়ী, গত শনিবার রাতে হিউস্টনের উত্তরে একটি গাছের সাথে গাড়ির ধাক্কায় দু’জন ব্যক্তির মৃত্যু ঘটেছে। এ প্রসঙ্গে কর্তৃপক্ষের দাবী, গাড়িটি সেল্ফ-ড্রাইভিং মোডে চলছিল, কারণ চালকের আসনে ওই মুহূর্তে কেউই ছিলেন না।

যদিও এমন ঘটনা এই প্রথম নয়, কারণ এর আগেও ২০১৯ সালে সংঘটিত হওয়া আরেকটি ভয়াবহ ঘটনা সকলকে নাড়িয়ে দিয়েছিল। স্থানীয় টেলিভিশন স্টেশন খোউ-টিভি জানিয়েছে, ২ বছর আগে একটি টেসলা Model S গাড়ি চালকবিহীন অবস্থায় উচ্চ-গতিতে চলার সময়ে, গাড়ির সেল্ফ-ড্রাইভিং সফটওয়্যারটি রাস্তায় থাকা বাঁককে চিহ্নিত করতে না পারায়, রাস্তার লাগোয়া একটি গাছের সাথে গাড়িটির ধাক্কা লেগে মৃত্যু ঘটে দুজনের। যদিও তৎকালীন সময়ে টেসলা এবং জাতীয় হাইওয়ে ট্র্যাফিক সুরক্ষা প্রশাসন উভয়েই এ বিষয়ে কোনো প্রকার মন্তব্য করেনি।

প্রযুক্তিগত ত্রুটি মানুষের প্রাণ এভাবে কেড়ে নেওয়ার পরও যেখানে আমেরিকা ভিত্তিক গাড়ি নির্মাতা সংস্থাটি মুখে কুলুপ এঁটে থেকেছে, সেখানেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অটো সেফটি এজেন্সি কিন্তু ব্যাপারটিকে ফেলনা করে রাখেনি। এজেন্সিটি জানিয়েছে, মার্চ মাসে তারা টেসলার যানবাহন সংক্রান্ত দুর্ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে তদন্তের কাজ শুরু করেছিল। সেখান থেকে জানা যায়, এরকম মোট ২৭টি দুর্ঘটনার রিপোর্ট আছে, যার মধ্যে ৩টি ঘটনা হালফিলেই ঘটেছে।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে টেসলার সিইও এলন মাস্ক (Elon Musk), তার সেল্ফ-ড্রাইভিং সফটওয়্যারের সম্পর্কে আত্মবিশ্বাসী হয়ে দাবী করেছিলেন যে, স্বচালিত এই গাড়ি নির্ভরযোগ্যতার সাথে চালনা করা যাবে। তবুও দেখা যাচ্ছে, এখনো একের পর এক দুর্ঘটনা লেগেই আছে। তাই সংস্থাগুলির উচিৎ, সেল্ফ-ড্রাইভিং প্রযুক্তিকে, সব ধরণের সুরক্ষাজনিত নিয়মাবলী অতিক্রম করানোর পরই বাজারে নিয়ে আসা।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন