ফের চীন-আমেরিকা দ্বন্দ্ব চরমে, নিষেধাজ্ঞা আরোপ হুয়াওয়ের উপর, পাল্টা দিতে প্রস্তুত চীনও

এবার ট্রাম্পের আমেরিকার থেকে একটি নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হলো চীনের প্রসিদ্ধ মোবাইল ব্র্যান্ড Huawei এর ওপর। হুয়াওয়ের অত্যন্ত প্রচলিত চিপসেট কিরিন। এবার এই Kirin চিপসেট তৈরি করতে এক নতুন বাধার সম্মুখীন হলো হুয়াওয়ে। ট্রাম্প সরকার সম্প্রতি ঘোষণা করেছে যে, বিশ্বের প্রসিদ্ধ কোম্পানির থেকে চীনের এই মোবাইল ব্র্যান্ডের কাছে কোনরকম সেমিকন্ডাক্টর পাঠানো হবে না, যা চীনের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সংঘাত আরো বাড়িয়ে দিতে পারে।

সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য বিভাগ এই নতুন নিয়ম জারি করেছে, যার ফলে এবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তৈরি প্রোডাক্টের মাধ্যমে যে কোম্পানিগুলি সেমিকন্ডাক্টর তৈরি করে তাদের আলাদা করে লাইসেন্স নেওয়ার জন্য অ্যাপ্লিকেশন জমা দিতে হবে।

এই কোম্পানীগুলির মধ্যে অন্যতম TSMC, যাদের এখন সেমিকন্ডাক্টর রপ্তানি করার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অনুমতি নিতে হবে। তা না করা হলে, গভীর সমস্যার মুখে পড়তে হবে ওই কোম্পানিকে। এছাড়া এই নতুন নিয়মের ফলে মেশিনারি এবং ইকুইপমেন্ট ক্রয়ের ক্ষেত্রেও স্বাধীনতা হানি হবে। আপনাকে জানিয়ে রাখি TSMC থেকে সেমিকন্ডাক্টর রপ্তানি করে Huawei।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য দপ্তরের একজন বরিষ্ঠ আধিকারিক জানান,” এই সিদ্ধান্তের ফলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানির জিনিস সবার আগে ব্যবহার হবে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সুরক্ষা আরো দৃঢ় হবে এবং আমেরিকা প্রথম দিকে উঠে আসতে পারবে।”

অন্যদিকে এই সিদ্ধান্তের পুরোদমে বিরোধিতা করার জন্য তৈরি হচ্ছে চিনও। তারা ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছে যে তারা, আমেরিকার বড় কিছু কোম্পানি যেমন অ্যাপেল, সিসকো সিস্টেমস এবং কোয়ালকমের ওপর কড়া ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এমনকি তারা, এই কোম্পানিগুলিকে দেশের কালো তালিকাভুক্ত করতে পারে। এছাড়াও তারা জানিয়েছে, যে বোয়িং থেকে আর এয়ারক্রাফট কেনার উপর তারা নিষেধাজ্ঞা জারি করতে চলেছে।

অর্থাৎ এটা স্পষ্ট যে, চীন এবং আমেরিকার মধ্যে পারস্পরিক দ্বন্দ্ব ধীরে ধীরে প্রবল আকার ধারণ করছে। এই দ্বন্দ্বের ফলে সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে মাঝখানে আটকে থাকা কোম্পানি হুয়াওয়ে। যদিও তারা এই বছর যথেষ্ট ভালোভাবে পরিস্থিতি সামাল দিয়েছে এবং এই কোম্পানিটি ৫জি ট্রানজিশনের জন্য অগ্রণী ভূমিকা গ্রহণ করতে চলেছে।