ব্যাংক থেকে টাকা চুরি বা ডিভাইস হ্যাক করতে সিদ্ধহস্ত, ক্ষতিকারক এই দশটি ভাইরাস থেকে সাবধানে থাকুন

CheckPoint ক্ষতিকারক দশটি ভাইরাসের তালিকা সামনে এনেছেন

top-10-dangerous-virus-list-revealed-checkpoint

প্রকাশ্যে এলো সিকিউরিটি গবেষণাকারী সংস্থা চেকপয়েন্টের (CheckPoint) সাম্প্রতিক গ্লোবাল থ্রেট ইন্ডেক্স। এই তালিকায় রয়েছে ১০টি এমন ভাইরাস যারা গত এক মাস ধরে বিশ্ব তাবড় তাবড় প্রতিষ্ঠানের রাতের ঘুম কেড়ে নিয়েছে। চরম বিপজ্জনক এই ভাইরাসেরা বড় বড় কোম্পানির আর্থিক নথি, অ্যাকাউন্ট সংক্রান্ত তথ্য ও আরো একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ হাসিল করতে অত্যন্ত পটু। সম্প্রতি গোটা বিশ্ব জুড়েই এদের তান্ডব লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সুতরাং সতর্ক থাকতে বর্তমানে অসুবিধে সৃষ্টিকারী এই ক্ষতিকারক দশটি ভাইরাসের তালিকাটি একবার দেখে নিন।

১। ব্যাঙ্কিং ভাইরাস ‘Trickbot’

Trickbot একটি মডিউলার বটনেট এবং ব্যাঙ্কিং ট্রোজান যা হ্যাকারদের দ্বারা সর্বদাই আপডেট হতে থাকে। তাই নতুন নতুন ক্ষমতা ও ডিস্ট্রিবিউশন ভেক্টরের সাথে আগত এই ভাইরাস খুবই বিপজ্জনক।

২। ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিংকারী ‘XMRig’

XMRig একটি ওপেন-সোর্স সিপিইউ মাইনিং সফটওয়্যার, যা মনেরো (Monero) ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিংয়ের প্রক্রিয়ার কাজে লাগে। ২০১৭ সালের মে মাসে এটি সর্বপ্রথম প্রকাশ্যে আসে।

৩। Microsoft Office ডকুমেন্টের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ‘Remcos’

২০১৬ সালে প্রথমবার সামনে আসা Remcos ভাইরাস মাইক্রোসফট অফিস ডকুমেন্টের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। স্প্যাম ই-মেইল জড়িত এই ভাইরাস উইন্ডোজের উচ্চস্তরের নিরাপত্তাকে ফাঁকি দিতে সক্ষম।

৪। ব্রাউজার, রাউটার মারফত ছড়িয়ে পড়তে দক্ষ ‘Glupteba’

ব্যাকডোর থেকে বটনেটে পরিবর্তিত Glupteba -র সবথেকে বিপজ্জনক দিক এর ইন্টিগ্রাল ব্রাউজার স্টিলার ক্যাপাবিলিটি। একইসাথে এটি একটি সফল রাউটার এক্সপ্লয়টার।

৫। DDos আক্রমণ, স্প্যাম ই-মেইল প্রেরণ ও ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনে সক্ষম ‘Tofsee’

Tofsee একটি ব্যাকডোর ট্রোজান। এটি ২০১৩ সালে প্রথম প্রকাশ্যে আসে।

৬। চরম ক্ষতিকারক ‘Ramnit’

Ramnit একটি ব্যাঙ্কিং ট্রোজান। ব্যাঙ্কিং নথি, ব্যক্তিগত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য, FTP পাসওয়ার্ড ও সেশন কুকি (Session Cookies) চুরিতে এর দক্ষতা প্রশ্নাতীত।

৭। Keylogger হিসেবে কাজ করে তথ্য চুরিতে দক্ষ ‘Agent Tesla’

Keylogger হিসেবে কাজ করে Agent Tesla গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিগত তথ্য চুরিতে সিদ্ধহস্ত। এটি আক্রান্তের কিবোর্ড ইনপুট, সিস্টেম কিবোর্ড নিয়ন্ত্রণ করে তথ্য ও স্ক্রিনশট সংগ্রহ করে থাকে।

৮। Windows প্ল্যাটফর্মের আতঙ্ক ‘Ursnif’

Ursnif একটি ক্ষতিকারক ট্রোজান। এটি মূলত উইন্ডোজ প্লাটফর্ম ব্যবহারকারীদের নিশানা করে থাকে। তাছাড়া এই ট্রোজান ভেরিফোন পয়েন্ট-অফ-সেল (POS) পেমেন্ট সফটওয়্যার সম্পর্কিত তথ্য চুরিতে দক্ষ। রিমোট সার্ভারের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যমে Ursnif সংগৃহীত তথ্য আপলোডে জোর দেয়।

৯। ওয়েব ব্রাউজারের মাধ্যমে তথ্য চুরি করতে পটু ‘Formbook’

ওয়েব ব্রাউজার থেকে তথ্য চুরির পাশাপাশি বিপজ্জনক Formbook স্ক্রিনশট সংগ্রহের কাজেও বেশ সফল।

১০। Windows ডিভাইস আক্রমণকারী ‘Nanocore’

Nanocore একটি রিমোট অ্যাক্সেস ট্রোজান বা র‌্যাট (RAT), যা ২০১৩ সালে প্রথম সামনে আসে। সাধারণভাবে এটি উইন্ডোজ ডিভাইসকে আক্রমণ করে থাকে। স্ক্রিন ক্যাপচার, ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং, ডেস্কটপ রিমোট কন্ট্রোল ও ওয়েবক্যাম সেশন চুরির মতো একাধিক কাজ এর করায়ত্ত।

One of the newest members of the Techgup Family. Soumo grew his liking for gadgets almost a decade back while searching for his first smartphone, and started writing about tech recently in 2020