চলতি বছরে মুড়ি মুড়কির মতো বিক্রি হয়েছে এই সমস্ত Smartphones, দেখে নিন তালিকা

৩০ হাজার টাকার কমে অর্থাৎ মিড রেঞ্জে উপলব্ধ এই বছরের আলোচিত স্মার্টফোনগুলি নিয়ে এই প্রতিবেদনে আমরা কথা বলেছি

top-selling-smartphones-in-indian-market-in-2021-in-mid-range

এতদিন আমরা লেটেস্ট লঞ্চ হওয়া বা নির্দিষ্ট কয়েকটি ফিচারের দিক থেকে সেরা স্মার্টফোনগুলি সম্পর্কে আপনাদের জানিয়ে এসেছি। কিন্তু বছরের শেষ-প্রান্তে এসে আজ আমরা, ৩০ হাজার টাকার কমে উপলব্ধ এই বছরের আলোচিত স্মার্টফোনগুলি নিয়ে কথা বলবো। আমরা সবাই জানি এই রেঞ্জে Redmi, Realme, Samsung- এই তিনটি ব্র্যান্ড কার্যত অন্য ব্র্যান্ডগুলিকে পিছনে ফেলেছে। তাই আমাদের প্রতিবেদনে মূলত এই তিনটি ব্র্যান্ডের ফোনই স্থান পেয়েছে। আসুন এই ‘বেস্ট সেলিং’ তকমা প্রাপ্ত স্মার্টফোনগুলি সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

২০২১ সালে ভারতে সর্বাধিক বিক্রীত স্মার্টফোনের তালিকা (List of Top Selling Smartphone in India 2021)

Samsung Galaxy F62 : স্যামসাংয়ের এই স্মার্টফোন গত ২২শে ফেব্রুয়ারি লঞ্চ হয়। অক্টা-কোর এক্সিনস ৯৮২৫ এসওসি দ্বারা চালিত Samsung Galaxy F62 স্মার্টফোনে ৬.৭ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১,০৮০x২,৪০০ পিক্সেল) সুপার অ্যামোলেড প্লাস ইনফিনিটি-ও ডিসপ্লে রয়েছে, যার এসপেক্ট রেশিও ২০:৯। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক ওয়ান ইউআই ৩.১ (One UI 3.1) কাস্টম ওএস চালিত। উক্ত স্মার্টফোনের ব্যাক প্যানেলে চারটি ক্যামেরা আছে। এগুলি হলো, ৬৪ মেগাপিক্সেল সনি IMX682 প্রাইমারি সেন্সর, ১২ মেগাপিক্সেল আলট্রা ওয়াইড অ্যাঙ্গেল (১২৩° ফিল্ড-অফ-ভিউ) লেন্স, ৫ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো সেন্সর এবং ৫ মেগাপিক্সেল ডেপ্থ সেন্সর। আবার সেলফি বা ভিডিও কলের জন্য এটিতে ৩২ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট-ফেসিং ক্যামেরাও পাওয়া যাবে। সিকিউরিটি ফিচার হিসাবে এতে সাইড-মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর রয়েছে। Samsung Galaxy F62 স্মার্টফোনে ৭,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে, যা ২৫ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং এবং রিভার্স চার্জিং সমর্থন করে।

Xiaomi Redmi 10 Prime : রেডমির এই স্মার্টফোনটি গত ৭ই সেপ্টেম্বর ভারতে আত্মপ্রকাশ করে। রেডমি ১০ প্রাইম স্মার্টফোনে রয়েছে একটি ৬.৫ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১,০৮০x২,৪০০ পিক্সেল) LCD ডিসপ্লে। এর এসপেক্ট রেশিও ২০:৯ এবং রিফ্রেশ রেট ৯০ হার্টজ। উন্নত পারফরম্যান্সের জন্য ফোনের অক্টা-কোর মিডিয়াটেক হেলিও জি৮৮ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। অপারেটিং সিস্টেম হিসাবে ফোনে অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক এমআইইউআই ১২.৫ কাস্টম ওএস পাওয়া যাবে। এতে কোয়াড রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ বর্তমান। এই ক্যামেরাগুলি হল, ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ৮ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা-ওয়াইড অ্যাঙ্গেল সেন্সর, ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো লেন্স, এবং ২ মেগাপিক্সেল ডেপ্থ সেন্সর। আর ডিসপ্লের উপরিভাগে থাকছে ৮ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা। Xiaomi Redmi 10 Prime ফোনে ৬,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে, যা ৯ ওয়াট রিভার্স চার্জিং এবং ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং টেকনোলজি সাপোর্ট করে।

OnePlus Nord 2 : জুলাই মাসে আগত ওয়ানপ্লাস নর্ড ২ ৫জি স্মার্টফোনে আছে একটি ৬.৪৩ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (২,৪০০x১,০৮০ পিক্সেল) অ্যামোলেড ডিসপ্লে। এটি অক্টা-কোর মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটি ১২০০-এআই (AI) প্রসেসর সহ এসেছে। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক অক্সিজেনওএস ১১.৩ (OxygenOS 11.3) কাস্টম স্কিনে কাজ করবে। ক্যামেরা ফ্রন্টের প্রসঙ্গে বললে, ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ৮ মেগাপিক্সেল সেকেন্ডারি সেন্সর এবং ২ মেগাপিক্সেল তৃতীয় সেন্সর সহ একটি ট্রিপল-রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ পাওয়া যাবে ওয়ানপ্লাসের এই স্মার্টফোনে। আর সেলফি বা ভিডিও কলিংয়ের জন্য থাকছে ৩২ মেগাপিক্সেলে ফ্রন্ট ক্যামেরা। পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য OnePlus Nord 2 ফোনে ৪,৫০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে।

Xiaomi Redmi Note 10S : ডুয়েল সিমের রেডমি নোট ১০এস ফোনে, কর্নিং গরিলা গ্লাস ৩ প্রটেকশন সহ একটি ৬.৪৩ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১,০৮০x২,৪০০) ডিসপ্লে দেওয়া হয়েছে। এর ডিসপ্লের পাঞ্চ হোল কাট আউটের মধ্যে ১৩ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা (অ্যাপারচার : এফ/২.৪৫) উপস্থিত। আবার, ডিভাইসের পিছনে দেওয়া হয়েছে কোয়াড ক্যামেরা সেটআপ। এগুলি হল, ৬৪ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ৮ মেগাপিক্সেল ওয়াইড অ্যাঙ্গেল লেন্স, ২ মেগাপিক্সেল ডেপ্থ সেন্সর ও ২ মেগাপিক্সেল মাক্রো সেন্সর। নোট ১০ সিরিজের এই ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক এমএআইইউআই ১২.৫ কাস্টম ওএস দ্বারা চালিত। ফাস্ট পারফরম্যান্সের জন্য থাকছে মিডিয়াটেক হেলিও জি৯৫ প্রসেসর। পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য Xiaomi Redmi Note 10S ফোনে আছে ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি।

Samsung Galaxy M32 : অক্টোবর মাসে ভারতের বাজারে পা রাখে স্যামসাং গ্যালাক্সি এম৩২ ৪জি। স্যামসাং গ্যালাক্সি এম ৩২ ফোনে আছে ৬.৪০ ইঞ্চি ফুল এইচডি প্লাস (১০৮০ x ২০০৯ পিক্সেল) সুপার অ্যামোলেড ইনফিনিটি-ইউ ডিসপ্লে। এই ডিসপ্লের রিফ্রেশ রেট ৯০ হার্টজ, এসপেক্ট রেস ২০:৯ এবং ব্রাইটনেস ৮০০ নিট পিক। স্যামসাং গ্যালাক্সি এম ৩২ ফোনে মালি জি৫২ জিপিইউ এবং মিডিয়াটেক হেলিও জি৮০ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক ওয়ান ইউআই সফ্টওয়্যারে চলবে। ক্যামেরার কথা বললে এম-সিরিজের এই ফোনে কোয়াড রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ বর্তমান। এগুলি হল, ৬৪ মেগাপিক্সেল ISOCELL GW3 প্রাইমারি সেন্সর, ৮ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা ওয়াইড অ্যাঙ্গেল লেন্স, ২ মেগাপিক্সেল ডেপ্থ সেন্সর ও ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো সেন্সর। ফোনটি ২০ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা সহ এসেছে। Samsung Galaxy M32 ফোনে পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য রয়েছে ৬,০০০ এমএএইচ ব্যাটারি, যার সাথে ১৫ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট করবে। এই ব্যাটারি ১৩০ ঘন্টা মিউজিক প্লেব্যাক টাইম, ৪০ ঘন্টা টক টাইম ও ২৫ ঘন্টা ভিডিও প্লেব্যাক টাইম দেবে।

POCO M3 Pro 5G : জুন মাসে লঞ্চ করা পোকো এম৩ প্রো ৫জি ফোনে দেওয়া হয়েছে ৬.৫০ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১০৮০x২৪০০ পিক্সেল) IPS LCD পাঞ্চ হোল ডিসপ্লে। এই ডিসপ্লে ৯০ হার্টজ ডাইনামিক রিফ্রেশ রেট, ৯১% স্ক্রিন-টু-বডি রেশিও ও ৫০০ নিট পিক ব্রাইটনেস অফার করবে। এতে ব্যবহার করা হয়েছে মালি জি৫৭ জিপিইউ সহ মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটি ৭০০ প্রসেসর। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক এমআইইউআই ১২ কাস্টম ওএস-এ চলবে। সিকিউরিটির জন্য এতে সাইড মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর উপলব্ধ। ক্যামেরা ফ্রন্টের কথা বললে, এই ফোনে ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ বর্তমান। এই ক্যামেরাগুলি হল, ৪৮ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ২ মেগাপিক্সেল ডেপ্থ সেন্সর ও ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো লেন্স। আবার সেলফি ও ভিডিও কলের জন্য এতে পাওয়া যাবে ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা। পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য Poco M3 Pro 5G ফোনে রয়েছে ৫,০০০ এমএএইচ ব্যাটারি। যার সাথে ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট করবে৷ এটি ইয়ালো, পাওয়ার ব্ল্যাক ও কুল ব্লু কালারে কেনা যাবে।

Samsung Galaxy M52 5G : চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে আসা স্যামসাং গ্যালাক্সি এম৫২ ৫জি ফোনে, কর্নিং গরিলা গ্লাস ৫ প্রটেকশন সহ একটি ৬.৭ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১,০৮০x২,৪০০ পিক্সেল) সুপার অ্যামোলেড প্লাস ডিসপ্লে রয়েছে। এর, এসপেক্ট রেশিও ২০:৯ ও রিফ্রেশ রেট ১২০ হার্টজ। পাঞ্চ হোল ডিজাইনের এই ডিসপ্লের কাট আউটের মধ্যে দেখা যাবে ৩২ মেগাপিক্সেলের সেলফি শুটার। আর ফোনের পিছনে দেওয়া হয়েছে, ৬৪ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ১২ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা ওয়াইড অ্যাঙ্গেল লেন্স ও ৫ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো লেন্স সমেত ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ। উক্ত স্মার্টফোনে ব্যবহার করা হয়েছে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৭৭৮জি প্রসেসর। এটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক ওয়ান ইউআই ৩.১ কাস্টম স্কিনে রান করবে। তদুপরি, সিকিউরিটির জন্য ফোনে থাকছে সাইড মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর। Samsung Galaxy M52 5G ফোনে, ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে, যা ২৫ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট করবে। এর ওজন ১৭৩ গ্রাম।

Realme GT Master Edition 5G : ১৮ই আগস্ট ভারতে লঞ্চ হয় স্মার্টফোনটি। রিয়েলমি জিটি মাস্টার এডিশন স্মার্টফোনে আছে ৬.৪৩ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১,০৮০x২,৪০০ পিক্সেল) সুপার অ্যামোলেড ডিসপ্লে। এই ডিসপ্লের রিফ্রেশ রেট ১২০ হার্টজ এবং টাচ স্যাম্পলিং রেট ৩৬০ হার্টজ। ফাস্ট-পারফরম্যান্সের জন্য এই ফোনে, ২.৪ গিগাহার্টজ ক্লক রেটের অক্টা-কোর কোয়ালকম স্ন‌্যাপড্রাগন ৭৭৮জি প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। এটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক রিয়েলমি ইউআই ২.০ (Realme UI 2.0) কাস্টম ওএস দ্বারা চালিত হবে। রিয়েলমি জিটি মাস্টার এডিশনে রয়েছে ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ। এগুলি হলো, ৬৪ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ৮ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা ওয়াইড অ্যাঙ্গেল লেন্স এবং ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো সেন্সর। একই সাথে ফোনের সামনের দিকে ৩২ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা উপস্থিত থাকছে। আর সিকিউরিটির জন্য মিলবে ইন-ডিসপ্লে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর। Realme GT 5G Master Edition 5G স্মার্টফোনে, ৬৫ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট সহ ৪,৩০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে। এটি ব্ল্যাক, গ্রে, হোয়াইট ও আরোরা কালারে উপলব্ধ।

শুভেচ্ছা বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী। তিনি একদিকে যেমন ফটোগ্রাফার, তেমনি পাশাপাশি লেখিকাও। এছাড়াও তার শখের মধ্যে আছে বই পড়া, গান গাওয়া, ছবি আঁকা এবং ওয়েব ডিজাইন। শুভেচ্ছা আমাদের টেকগাপ পরিবারের একজন নতুন সদস্য।