গোপনে মোবাইল অ্যাপে ট্র্যাকিং সফ্টওয়্যার ব্যবহার করছে মার্কিন সরকার

us-governments-using-hidden-tracking-software-in-mobile-apps

সম্প্রতি দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্কিন সরকার তার নাগরিকদের ওপর গুপ্তচরবৃত্তি করছে এবং সরকার এটি ভুল বলে মনে করেনা। জানা গিয়েছে মার্কিন নাগরিকদের ব্যবহৃত ৫০০টি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনে, সরকার ট্র্যাকিং সফ্টওয়্যার অ্যাটাচ করেছে। এরজন্য মার্কিন প্রশাসন এক কন্ট্রাক্টর বা চুক্তিকারীকে কাজে লাগিয়েছে। ওই ভার্জিনিয়া ভিত্তিক কন্ট্রাক্টরের নাম Anomaly Six LLC।

প্রতিবেদন অনুসারে, এই কন্ট্রাক্টর, মোবাইল অ্যাপ ডেভেলপারদেরকে টাকা দেয়, যাতে তারা নিজেদের অ্যাপে একটি সেল্ফ-ডেভেলপড ট্র্যাকিং কোড অন্তর্ভুক্ত করে। এরপর ট্র্যাকাররা ওই অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারকারীদের ফোন থেকে বেনামে ডেটা সংগ্রহ করে। তারপর, অ্যানোমালি সিক্স ওই ডেটা মার্কিন সরকারের কাছে বিক্রি করে। তবে প্রতিবেদনে এই কথাও বলা হয়েছে যে, বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে যতক্ষণ ডেটা বিক্রি করা না হচ্ছে ততক্ষণ অবধি সংস্থা বা সরকার আইনত কিছু ভুল করছে না।

অ্যানোমালি সিক্স এই প্রতিবেদনের সত্যতা নিশ্চিত করেছে, তবে এটি কোন কোন অ্যাপের সাথে হাত মিলিয়েছে সে সম্পর্কে কোনো তথ্য প্রকাশ করেনি। তবে ডেটা বেনামে রাখার কথা বলা হলেও চিন্তিত হওয়ার আরো কিছু কারণ রয়েছে। এই ধরণের ট্র্যাকিং সফ্টওয়্যারের সাহায্যে প্রথমে ইউজারদের লোকেশন ট্রেস করে তাদের অভ্যাস, পরিবহণ মাধ্যম ইত্যাদি ট্র্যাক করা যেতে পারে।

কী কী অ্যাপ্লিকেশনে এই ধরণের সফ্টওয়্যার রয়েছে, সে সম্পর্কে কোনো তথ্যই পাওয়া যায়নি। এমনকি মার্কিন সরকার এই জাতীয় ডেটা নিয়ে কী করে সেবিষয়েও কোনও তথ্য নেই। অন্যদিকে বেশকয়েক দিন ধরে মার্কিন প্রশাসন অভিযোগ করছে – WeChat, Tiktok-এর মত অ্যাপ বা Huawei এবং অন্যান্য চীনা সংস্থাগুলি মার্কিন ইউজারদের ডেটা চীনা সরকারের কাছে পৌঁছে দিচ্ছে। যেখানে মার্কিন সরকার বিভিন্ন চীনা সংস্থার ওপর নানারকম অভিযোগ করে বিধিনিষেধ জারি করছে, সেখানে সরকারের এরকম দ্বিচারিতা আশা করা যায় কি?