ডেটিং ওয়েবসাইটে লুকিয়ে বিপদ, ফাঁস হল লক্ষ লক্ষ মানুষের তথ্য

user-data-of-70-adult-dating-and-e-commerce-sites-exposed

চিঠিপত্রের যুগ সেই কবেই শেষ হয়েছে। মিসড কল প্রেমের জমানাও শেষ। নতুন জেনারেশন প্রেম নিবেদনের জন্য অনেক বেশি নির্ভরশীল এখন ডেটিং সাইটগুলোর উপর। কিন্তু এই সাইটগুলি আপনার জন্য বিপদ ডেকে আনতে পারে। সম্প্রতি vpnMentor-এর একটি রিপোর্টে জানা গেছে, অ্যাডাল্ট ডেটিং এবং ই-কমার্স ওয়েবসাইটের এক লাখের বেশি ইউজারদের ডেটা এক অচেনা হ্যাকারের হাতে চলে গেছে। রিপোর্ট অনুযায়ী, গোটা পৃথিবীর ৭০ টি ওয়েবসাইট হ্যাক করা হয়েছে। এই হ্যাকের জন্য ব্যবহার করা হয়েছে Mailfire নামক মার্কেটিং কোম্পানির তৈরি করা একটি সফটওয়্যার।

রিপোর্ট অনুযায়ী, এই ডেটা একটি আনসিকিওর্ড ইলাস্টিসার্চের মাধ্যমে ফাঁস করা হয়েছে। ডেটা ফাঁস হওয়ার কারণে ইউজারদের সাথে ব্ল্যাকমেলিং ও প্রতারণার সম্ভাবনা থাকছে। রিপোর্টে বলা হয়েছে, ফাঁস হওয়া ডেটার পরিমাণ ৮৮২.১ জিবি। এখানে ইউজারের পুরো নাম, বয়স, জন্ম তারিখ, লিঙ্গ, ইমেল এড্রেস, আই পি অ্যাড্রেস, আপলোড করা প্রোফাইল পিকচার, এমনকি বায়োও ছিল। ইউজারদের পক্ষে চিন্তার বিষয় এটাও যে, ডেটিং সাইটে দুজন ইউজারের মধ্যে হওয়া কথাবার্তাও হ্যাকারদের কাছে ফাঁস হয়ে গেছে।

রিসার্চাররা এই ডেটা চুরির বিষয়ে ৩১ অগাস্ট জানতে পেরেছিল। এরপর রিসার্চাররা ভেন্ডারদের সাথে ৩-রা ডিসেম্বর যোগাযোগ করে। মেলফায়ার কিছু ঘন্টার মধ্যে সার্ভার সুরক্ষিত করার পর এই বিষয়ে তাদের প্রতিক্রিয়া জানায়। এর একদিন পর ইউজারদের ডেটা চুরি হওয়ার বিষয়ে জানানো হয়।

মেলফায়ার সার্ভারের এই ত্রুটির সম্পূর্ণ দায় নিয়েছে। প্রাথমিক তদন্তে রিসার্চাররা জানতে পেরেছে, হ্যাকারদের হাতে ৮৮২.১ জিবি ডেটা গেছে। এতে ৯৬ ঘন্টায় ৬.৬ কোটি মানুষকে ব্যক্তিগত ভাবে পাঠানো ৩২ কোটি নোটিফিকেশনের রেকর্ড রয়েছে। এই ডেটা চুরিতে যে সব দেশের মানুষেরা ক্ষতিগ্ৰস্ত হয়েছেন, তার মধ্যে আছে অষ্ট্রেলিয়া, বেলজিয়াম, কানাডা, জার্মানি, আমেরিকা, আমেরিকা, পর্তুগাল ইত্যাদি বিভিন্ন দেশ।