ভারত সহ গ্লোবালি বাজেট রেঞ্জে লঞ্চ হতে চলেছে Vivo Y31 4G

Vivo তার জনপ্রিয় Y সিরিজের নতুন একটি ফোনের ওপর কাজ শুরু করে দিয়েছে। এই ফোনটির নাম Vivo Y31 4G। জানিয়ে রাখি ২০১৫ সালে প্রথমবার ভিভো ওয়াই৩১ লঞ্চ হয়েছিল। এই ফোনটিরই আপগ্রেড ভার্সন হবে Vivo Y31 4G। জনপ্রিয় টিপস্টার অভিষেক যাদবে আজ সকালে টুইট করে জানিয়েছেন, এই স্মার্টফোনটিকে থাইল্যান্ডের NBTC, ভারতের BIS, রাশিয়ার EEC, সিঙ্গাপুরের IMDA এবং ব্লুটুথ সার্টিফিকেশন সাইটে দেখা গেছে।

V2036 মডেল নম্বরের সাথে ভিভোর এই ফোনটি সর্বপ্রথম NBTC তে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এই ফোনটির নাম যে Y31 হবে, তা NBTC সুনিশ্চিত করেছে। সেখান থেকে এও জানা গেছে, এটি ফোর-জি ডিভাইস হবে। V2036 মডেল নম্বরের সাথেই এই ফোনটি ECC ও IMDA-এর সার্টিফিকেশন পেয়েছে। ভারতের ব্যুরো অফ ইন্ডিয়ান স্টার্ন্ডার্ন্ডস বা BIS লিস্টিং অনুযায়ীও, V2031 ও V2036 মডেল নম্বরের সাথে Vivo Y31 আসতে চলেছে। BIS সার্টিফিকেশন পাওয়ার অর্থ অফিসিয়াল লঞ্চের পর ফোনটি ভারতেও উপলব্ধ হবে।

বিভিন্ন সার্টিফিকেশন সাইটে স্পট করা ব্যতীত ভিভোর ওয়াই সিরিজের এই আপকামিং ফোনের ব্যাপারে আর বিশেষ কোনো তথ্য পাওয়া যায় নি। ফোনটির ব্যাপারে আর কোনো আপডেট পেলেই আমরা সেটা আপনাদের কাছে দ্রুততার সাথে পৌঁছে দেবো। তবে এব্যাপারে নিশ্চিত যে এই ফোনটি বাজেট রেঞ্জে বাজারে আসবে।

২০১৫ সালে লঞ্চ হওয়া ভিভো ওয়াই৩১ ফোনে ছিল ৪.৭ ইঞ্চি ডিসপ্লে। এর পিক্সেল রেজোলিউশন ৭২০ x ১২৮০ এবং আসপেক্ট রেশিও ১৬:৯। ফোনটিতে ৮ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ ছিল। সাথে দেওয়া হয়েছিল ১ জিবি র‌্যাম। ফোনটির সামনে ছিল ২ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা এবং পিছনে ৮ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা। এতে ২,৫০০ এমএএইচ ব্যাটারি ছিল। ফোনটি কোয়াড কোর ১.৩ গিগাহার্টজ প্রসেসর সহ এসেছিলো।

Shuvro is very much passionate about quiz, writing and extremely enthusiastic to learn the modern scientific and technological discoveries in all over the world.