এই পদ্ধতিতে আপনার প্রাইভেসি পলিসি নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করতে চাইছে WhatsApp

whatsapp-latest-beta-update-explain-you-its-privacy-policy

বছরের শুরুতেই প্রবল বিতর্কে জড়িয়ে নতুন প্রাইভেসি পলিসি ঘোষণা করেও থমকে যায় WhatsApp। জনপ্রিয় মেসেজিং প্ল্যাটফর্মটির নয়া প্রাইভেসি পলিসি সম্পর্কে বিশ্বব্যাপী ইউজারদের উদ্বেগ ছিল যে তারা ইউজারের সব ব্যক্তিগত তথ্য মালিক সংস্থা Facebook-এর হাতে তুলে দেবে, ফলে ইউজারের গোপনীয়তা বলে কিছু থাকবে না। সেক্ষেত্রে WhatsApp, এই আশঙ্কাকে নিছক জল্পনা বলে উড়িয়ে দিলেও, ইউজারদের আশঙ্কা কমাতে আগামী মে মাসের ১৫ তারিখটিকে নতুন পলিসি বাস্তবায়নের ডেডলাইন হিসেবে ঘোষণা করে। আসলে, WhatsApp কোনোমতেই বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং অ্যাপের শিরোপা খুইয়ে, প্রতিদ্বন্দ্বী সংস্থা Telegram বা Signal-কে কোনো রকম বাড়তি সুবিধে দিতে চাইছে না! আর তাই, পরিবর্তিত নীতিমালাটিকে কার্যকরী করার আগে এই বিষয়ে ইউজারদের মনে উৎপন্ন সমস্ত বিভ্রান্তি দূর করে নিতে ফের একবার মাঠে নামল WhatsApp।

সম্প্রতি, WhatsApp সম্পর্কিত যাবতীয় খবর সরবরাহকারী সংস্থা WABetaInfo তাদের একটি রিপোর্টে বলেছে যে, মেসেজিং মাধ্যমটি তার লেটেস্ট বিটা আপডেটে (ভার্সন ২.২১.৪.১৩) ফের একবার ইউজারদের ইন-অ্যাপ নোটিফিকেশন দিয়ে নয়া প্রাইভেসি পলিসি সম্পর্কে অবহিত করার চেষ্টা করেছে। এই নোটিফিকেশন পুরোটা পড়লে নতুন পলিসি সম্পর্কিত যাবতীয় আশঙ্কা ও দ্বন্দ দূর হয়ে যাবে বলেই আশা করছে সংস্থাটি।

উক্ত রিপোর্টে WABetaInfo একটি স্ক্রিনশটও শেয়ার করেছে যেখানে দেখা গেছে ইন-অ্যাপ নোটিফিকেশনে হোয়াটসঅ্যাপ দাবী করেছে – এই নতুন পলিসি কার্যকর হলে এন্ড-টু-এন্ড এনক্রিপশন সিকিউরিটি সিস্টেমে কোনো বদল আসবে না, অর্থাৎ ইউজারদের চ্যাট আগের মতই সম্পূর্ণ গোপন ও সুরক্ষিত থাকবে। দ্বিতীয়ত, হোয়াটসঅ্যাপ বিজনেস অ্যাকাউন্টের সাথে চ্যাটিংয়ের একটি নির্ঝঞ্ঝাট বিকল্প থাকবে। এছাড়া, হোয়াটসঅ্যাপের থেকে ইউজার ডেটা সংগ্রহ করে ফেসবুক প্রতিটি ব্যক্তিকে তার পছন্দমত বিজ্ঞাপন দেখাবে বা প্রোফাইলিং করবে – উক্ত নোটিফিকেশনে এই জল্পনাও নাকচ করে দিয়েছে সংস্থাটি।

ছবি ক্ৰেডিট -WABetaInfo

আপনারা প্রায় সবাই জানেন, গত জানুয়ারীর প্রথম সপ্তাহে সংস্থার তরফে জানানো হয়েছিল ৮ই ফেব্রুয়ারীর মধ্যে নয়া প্রাইভেসি পলিসির সাথে একমত না হলে ইউজারদের অ্যাকাউন্ট ডিলিট হয়ে যাবে। তবে এখন সেই অবস্থান থেকে সরে এসে সংস্থাটি মরিয়া হয়ে বোঝাতে চাইছে যে এই নতুন পলিসির কারণে ইউজারদের চ্যাট বা অন্যান্য তথ্যের নিরাপত্তায় কোনো পরিবর্তন হবে না। বরং বিজনেস হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটে আরও স্বচ্ছতা আনতেই এই ঐচ্ছিক পরিবর্তন।

প্রসঙ্গত, শুধু এই ইন-অ্যাপ নোটিফিকেশনই নয়, ইউজারদের বিশ্বাস অটুট রাখতে এর আগেও আপডেটেট পলিসি সংক্রান্ত নানা সাফাই দিয়েছে হোয়াটসঅ্যাপ। এর আগেও আমরা সংস্থার সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেলগুলিতে, FAQ পেজে এবং হোয়াটসঅ্যাপের স্ট্যাটাস সেকশনে এই বিষয়ে নানা বিবৃতি দেখেছি। এদিকে হোয়াটসঅ্যাপ, তার সাম্প্রতিক ব্লগ পোস্টে জানিয়েছে যে তারা ইউজারদের যাবতীয় আশঙ্কা বিভ্রান্তি দূর করার জন্য আরও চেষ্টা করবে। সেক্ষেত্রে আগামী ১৫ই মে-র আগে সংস্থাটি আর কী কী পদক্ষেপ নেয় সেটাই এখন দেখার…

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন