Truecaller, Aarogya Setu-রাও ডেটা সংগ্রহ করে, প্রাইভেসি নিয়ে সমালোচনার জবাবে জানালো WhatsApp

WhatsApp Reacts to Criticism Over Privacy, Alleges Zomato, Ola, Aarogya Setu Collect Same or More Data

হাতে আর মাত্র তিন দিন বাকি, তারপর পূর্ব ঘোষণা মতই ১৫ মে কার্যকর হবে WhatsApp-এর বহুচর্চিত নতুন প্রাইভেসি পলিসি। এমনিতে গত সপ্তাহে এই নয়া নীতিমালাকে কেন্দ্র করে ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং মাধ্যমটি বিবৃতি দিয়েছে যে, যাবতীয় শর্তাদি গ্রহণ না করলেও কোনো ইউজারের অ্যাকাউন্ট ডিলিট হবে না; বদলে এই সমস্ত ইউজারদের WhatsApp-এ একাংশ ফাংশন ধীরে ধীরে কাজ করা বন্ধ করে দেবে। তবে এবার পলিসি বাস্তবায়নের প্রাক্কালে, দিল্লি হাইকোর্টে এই নতুন পলিসির বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলারও জবাব দিল ফেসবুকের মালিকানাধীন সংস্থাটি। এক্ষেত্রে WhatsApp বলেছে যে, তার নতুন গোপনীয়তা নীতি নিয়ে সমস্ত অভিযোগ একেবারে অপ্রাসঙ্গিক। কারণ অনেক অ্যাপ্লিকেশন বা ওয়েবসাইটের আগে থেকেই এরকম নীতি রয়েছে এবং তারা প্রয়োজনে ইউজারদের কিছু তথ্য সংগ্রহ করে। রিপোর্ট অনুযায়ী, WhatsApp, আদালতের হলফনামার দরুন এই নতুন সাফাইয়ে Ola, Truecaller, Zomato, Big Basket, Koo-এর মত জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্মের পাশাপাশি সরকারের Aarogya Setu অ্যাপ্লিকেশনের নাম উদ্ধৃত করেছে।

শুধু তাই নয়, তারা নতুন নীতির কার্যকারিতার প্রসঙ্গে Google, Microsoft, Zoom জাতীয় মার্কিন টেক জায়ান্টেরও নাম এবং Republic TV নিউজ চ্যানেলের মূল সংস্থা Republic World-এর নাম টেনে এনেছে।
তবে এই হলফনামা আজ-কালের নয়! গত সপ্তাহে পলিসি সংক্রান্ত নতুন বিবৃতি জারি করার আগেই (গত ৫ই মে) সংস্থাটি আদালতে এই হলফনামা জমা দিয়েছে বলে জানা গিয়েছে। সেখানে হোয়াটসঅ্যাপ (WhatsApp) আরো বলেছে যে, তার নতুন গোপনীয়তা নীতি আপডেট আদালত কর্তৃক অবরুদ্ধ হলে, উল্লিখিত সমস্ত প্ল্যাটফর্মের (এমনকি যারা গ্রোসারি আইটেম সরবরাহ করে বা অনলাইন চিকিৎসার সুযোগ দেয়) বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে হবে।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের শুরুতে হোয়াটসঅ্যাপের পরিবর্তিত প্রাইভেসি পলিসি নিয়ে হইচই শুরু হওয়ার পর বিতর্কের জল গড়ায় দিল্লি হাইকোর্ট পর্যন্ত। যদিও ওই সময় আদালত সংস্থার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের প্রেক্ষিতে বলেছিল যে, যারা এই নতুন গোপনীয়তা নীতি মানতে ইচ্ছুক নন তারা চাইলেই হোয়াটসঅ্যাপের বদলে অন্য প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করতে পারেন, কারণ এটি একটি ‘ঐচ্ছিক’ মাধ্যম। এমনকি আদালত তখন, গুগল ম্যাপ কর্তৃক ইউজার ডেটা ক্যাপচার বা সংরক্ষণের কথাও উল্লেখ করেছিল।

অভিযোগ করা হচ্ছে, হোয়াটসঅ্যাপের গোপনীয়তা নীতি আপডেটের লক্ষ্য, ভারতে এবং বিশ্বের অন্যান্য বাজারগুলিতে ফেসবুক (Facebook) বা তৃতীয় পক্ষের সংস্থাকে কিছুটা হলেও নিজের ইউজার ডেটাতে অ্যাক্সেস পাওয়ার সুযোগ করে দেওয়া এবং ব্যবসা প্রসারিত করা। এমনকি এই প্রাইভেসি পলিসি সংক্রান্ত নোটিফিকেশন সামনে আসার পরই অনেকে দাবি করেন, যে হোয়াটসঅ্যাপ ইউজারদের কল, মেসেজ এবং ডিভাইসের অন্যান্য ডেটা ট্র্যাক করবে। যদিও মেসেজিং অ্যাপটি শুরু থেকেই এই সমস্ত অভিযোগ নস্যাৎ করে আসছে এবং ইউজারদের ভরসা জেতার নানাবিধ চেষ্টা করছে। প্রাথমিকভাবে পলিসিটি গ্রহণের সময়সীমা ৮ই ফেব্রুয়ারি ধার্য হলেও, পরে জনরোষের কারণে ডেডলাইন ১৫ই মে অবধি প্রসারিত হয়। সেক্ষেত্রে এই পলিসি কার্যকর করার ক্ষেত্রে WhatsApp তেমন কোনো বাধার সম্মুখীন হবে না বলেই মনে করা হচ্ছে।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন

A person who enjoys creating, buying, testing, evaluating and learning about new technology.