WhatsApp নাকি Telegram, কোনটি বেশী উপযোগী জেনে নিন

মেসেজিং অ্যাপগুলির মধ্যে জনপ্রিয়তায় সবথেকে এগিয়ে WhatsApp। এছাড়া মেসেজিংয়ের অন্য কোন প্ল্যাটফর্মের কথা যদি বলতে হয় তবে প্রথমেই Telegram এর নাম মনে পড়ে‌। ব্যবহারকারীর নিরিখে হোয়াটসঅ্যাপ অনেক এগিয়ে থাকলেও, টেলিগ্রামও ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। টেলিগ্রাম অ্যাপে এমন অনেক ফিচার রয়েছে যা হোয়াটসঅ্যাপে উপলব্ধ নয়। তাই অ্যান্ড্রয়েড বা iOS প্ল্যাটফর্মের জন্য উপরোক্ত অ্যাপদুটির মধ্যে কোনটি বেশী উপযোগী সে বিষয়ে অনেকেরই প্রশ্ন রয়েছে। নীচে WhatsApp ও Telegram এর মধ্যে একটি তুলনার মাধ্যমে আমরা সেই প্রশ্নের উত্তর খোঁজার চেষ্টা করবো।

গ্রুপস ও চ্যানেলস

হোয়াটসঅ্যাপে গ্রুপ তৈরী এবং মেসেজিংয়ের পদ্ধতি খুবই সহজ। এখানে সর্বাধিক ২৫৬ জন সদস্যকে একটি গ্রুপে যুক্ত করা যায়। ফলে সীমিত সংখ্যক বন্ধু-বান্ধবী, আত্মীয়, সুহৃদদের নিয়ে ছোট গ্রুপ তৈরী করতে হলে হোয়াটসঅ্যাপ খুবই উপযোগী। তবে আয়তনে বড় অথচ গুরুত্বপূর্ণ গ্রুপ বানাতে হলে, টেলিগ্রামই শেষ ভরসা। এখানে সর্বাধিক দুই লক্ষ সদস্যকে একটি গ্রুপে যুক্ত করা যায়। তাছাড়া টেলিগ্রামে চ্যানেল সাপোর্টের সুবিধা রয়েছে। এখানে সরাসরি অ্যাড না করে স্রেফ চ্যানেল লিঙ্ক পাঠিয়েও সদস্য যুক্ত করা যায়।

ইউজার বেস

২০১৮ সালের একটি সমীক্ষা অনুযায়ী হোয়াটসঅ্যাপের প্রায় ১.৫ বিলিয়ন অ্যাক্টিভ ইউজার রয়েছে। সেখানে টেলিগ্রামের মাসিক অ্যাক্টিভ ব্যবহারকারীর সংখ্য প্রায় ২০০ মিলিয়ন। আসলে আমাদের পরিচিত মানুষদের মধ্যে প্রায় সকলেই হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করে থাকেন। সেখানে টেলিগ্রাম ব্যবহারকারীর সংখ্যা যথেষ্ট কম।

মাল্টি-ডিভাইস সাপোর্ট

টেলিগ্রামে মাল্টি-ডিভাইস সাপোর্টের সুবিধা রয়েছে। এর ফলে যে কেউ একাধিক ডিভাইসে নিজের একমাত্র টেলিগ্রাম অ্যাকাউন্টটি অ্যাকসেস করতে পারেন। তাছাড়া এক ডিভাইস থেকে অন্য ডিভাইসে গেলেও টেলিগ্রামের চ্যাটগুলি সংরক্ষিত থাকে। আবার টেলিগ্রাম ওয়েব ফিচারের মাধ্যমে ফোনে ইন্টারনেট সংযোগ না থাকলেও একজন নিজের কম্পিউটারে মেসেজিং চালিয়ে যেতে পারেন। হোয়াটসঅ্যাপেও খুব তাড়াতাড়ি এই সুবিধাগুলি উপলব্ধ হতে পারে বলে সূত্রের খবর।

পেমেন্টস্

সম্প্রতি ফেসবুকের মালিকানাধীন হোয়াটঅ্যাপ তাদের পেমেন্ট পরিষেবা ভারতে রোল আউট করেছে। এই ফিচারের মাধ্যমে একজন ব্যক্তি ইউপিআই-নির্ভর ট্রানজাকশনের মাধ্যমে হোয়াটসঅ্যাপে অর্থের আদান-প্রদান করতে পারবেন। কয়েকদিন আগেই ন্যাশনাল পেমেন্টস্ কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া (NPCI) এ বিষয়ে সবুজ সংকেত দিয়েছে। টেলিগ্রামে এখনো পেমেন্টের সুবিধা উপলব্ধ নয়।

ওপরের তুলনা থেকে স্পষ্ট যে দুটি অ্যাপই তাদের ব্যবহারকারীদের জন্য একাধিক অসাধারণ ফিচার সাজিয়ে রেখেছে। এই দুটি অ্যাপের মধ্যে থেকে কে কোনটিকে বেছে নেবেন, তা ব্যবহারকারীর প্রয়োজনের ওপরেই নির্ভর করছে।