এই সাত কারণে হোয়াটসঅ্যাপের নতুন প্রাইভেসি পলিসি নিয়ে আপনার মাথা ঘামানো উচিত নয়

why-you-should-not-worry-about-whatsapp-new-privacy-policy-7-reasons

এই মুহূর্তে হোয়াটসঅ্যাপ এর আপডেটেড প্রাইভেসি পলিসি (WhatsApp New Privacy Policy) নিয়ে সরগরম সংবাদ মাধ্যম এবং সোশ্যাল মিডিয়া! নতুন বছরের দ্বিতীয় সপ্তাহে, পরিবর্তিত নীতিমালা সম্পর্কিত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করার পর থেকেই বিতর্কের মুখে পড়েছে ফেসবুকের মালিকানাধীন এই ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং প্ল্যাটফর্মটি। নতুন পলিসি অনুযায়ী, হোয়াটসঅ্যাপ ইউজারদের ডিভাইসের লোকেশন, ব্যাটারি স্ট্যাটাস ইত্যাদি তথ্য ট্র্যাক করবে। আগামী ৮ই ফেব্রুয়ারির মধ্যে এই নতুন পলিসি মেনে না নিলে, ডিলিট হয়ে যেতে পারে সাধের হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্টটি। স্বাভাবিকভাবেই, আগামী দিনে এতে ইউজারের ব্যক্তিগত তথ্য সুরক্ষিত থাকবে কিনা বা কতটা গোপনীয়তা বজায় থাকবে সেই নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। এমনকি, ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ ইতিমধ্যে হোয়াটসঅ্যাপকে বিদায় জানিয়ে বিকল্প অ্যাপে সুই্যচ করছেন। চাপের মুখে পড়ে দিন দুই আগে হোয়াটসঅ্যাপ জানিয়েছে – তারা কোনো মতেই তৃতীয় কোনো পক্ষের সাথে ইউজারদের ডেটা শেয়ার করবে না। কিন্তু তাতেও অস্বস্তি কমছে না! এই পরিস্থিতিতে, নিজের FAQ পৃষ্ঠায় পরিবর্তিত নীতিমালা সম্পর্কিত কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়েছে হোয়াটসঅ্যাপ।

হোয়াটসঅ্যাপ (WhatsApp)-এর দাবি, এই নীতিমালা সংক্রান্ত আপডেটটি কোনোভাবেই ইউজারের চ্যাটিংয়ের গোপনীয়তাকে প্রভাবিত করবেনা। বরঞ্চ, এই আপডেটে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবসায়িক বিষয়গুলি কিভাবে পরিচালনা করে এবং কীভাবে ডেটা সংগ্রহ বা ব্যবহার করে সে বিষয়ে আরও স্বচ্ছ ধারণা পাওয়া যাবে। তবে FAQ পেজে হোয়াটসঅ্যাপ সাতটি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট তুলে ধরেছে যা থেকে নতুন প্রাইভেসি পলিসি সংক্রান্ত গুজব বা ভ্রান্তি মিটতে পারে। আসুন এই বিষয়ে বিস্তারিত জেনে নিই।

১. হোয়াটসঅ্যাপ কিংবা ফেসবুক, ইউজারের ব্যক্তিগত মেসেজ বা কলগুলি ট্র্যাক করতে পারেনা

সংস্থাটি জানিয়েছে যে হোয়াটসঅ্যাপের চ্যাটগুলি এন্ড-টু-এন্ড এনক্রিপ্টেড, এবং এই সুরক্ষা ব্যবস্থাটি কোনো মতেই দুর্বল করা যাবেনা। তাই হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ নিজে বা অন্য কেউ, ইউজারের মেসেজ পড়তে বা কলগুলি শুনতে পারেনা।

২. হোয়াটসঅ্যাপ, মেসেজ বা কল লগের রেকর্ড রাখেনা

হোয়াটসঅ্যাপ জানিয়েছে, এটি কোনোভাবেই ইউজারের চ্যাট বা কল লগগুলি সেভ করে রাখে না। তাই ইউজারদের গোপনীয়তা এবং ডেটা সুরক্ষা ব্যাহত হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।

৩. হোয়াটসঅ্যাপ বা ফেসবুক, ইউজারের শেয়ার করা লোকেশন দেখতে পায়না

হোয়াটসঅ্যাপে কল এবং ম্যাসেজের মতো লোকেশন ডেটাও এন্ড-টু-এন্ড এনক্রিপ্টেড থাকে। তাই চাইলেও ইউজারের অবস্থান ট্র্যাক করা যাবেনা।

৪. হোয়াটসঅ্যাপ, ফেসবুকের সাথে ইউজারের কন্ট্যাক্ট ডিটেইলস শেয়ার করেনা

চ্যাটিং প্ল্যাটফর্মটির আরও দাবি যে কোনো ইউজার অনুমতি দিলে তবেই তার ফোনবুক বা কন্ট্যাক্ট ডিটেইলস অ্যাক্সেস করা যাবে। এটি ফেসবুক বা অন্য কোনো সংস্থার সাথে ইউজারের পরিচিতিগুলির তথ্য শেয়ার করেনা।

৫. হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপগুলিও গোপনীয়তার দিক থেকে সুরক্ষিত

হোয়াটসঅ্যাপ স্পষ্ট করেছে যে এটি বিজ্ঞাপনের উদ্দেশ্যে ফেসবুকের সাথে গ্রুপ চ্যাট ডেটা শেয়ার করে না। সেক্ষেত্রে গ্রুপ চ্যাটগুলিও এন্ড-টু-এন্ড এনক্রিপ্টেড।

৬. ডিসঅ্যাপেয়ারিং মেসেজ

ইউজাররা চাইলে ডিসঅ্যাপেয়ারিং মেসেজ অপশনটি অন রাখতে পারেন, যাতে নির্দিষ্ট সময় পর তাদের ব্যক্তিগত মেসেজগুলি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ডিলিট হয়ে যাবে।

৭. ইউজাররা তাদের হোয়াটসঅ্যাপ ডেটা ডাউনলোড করতে পারেন

কোনো ইউজার, ইচ্ছেমত হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাপ্লিকেশন থেকে তার অ্যাকাউন্টের সাথে সম্পর্কিত তথ্য পরীক্ষা করতে বা ডাউনলোড করতে পারবেন।