লোক টানতে এবার এসি ট্রামে পাওয়া যাবে বিনামূল্যে ওয়াইফাই পরিষেবা

wifi-facility-launched-in-ac-tram-in-west-bengal-to-attract-youth

সময়ের সাথে সাথে যুগ বদলায়। যুগের সাথে বদলে যায় জীবনের গতি। যেমন বর্তমানে আমাদের কোথাও এক মুহূর্ত স্থির হয়ে দাঁড়াবার উপায় নেই। সব সময়েই ছুটে চলা, গন্তব্যে পৌঁছানোর তাড়া। ফলে খোদ কলকাতায় পরিবহনের বিকল্প হিসেবে ট্রাম তার পূর্ব কৌলিন্য হারিয়েছে। বিশেষত নতুন প্রজন্মের কাছে তার আবেদন অত্যন্ত ক্ষীণ। তবে সম্প্রতি ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্রান্সপোর্ট কর্পোরেশন (WBTC) এমন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে, যার ফলে আমরা যাতায়াতের সময় ট্রামে চড়ার কথা ভাবতে বাধ্য হবো। এবার থেকে বাতানুকূল ট্রাম কামরাগুলিতে মিলবে সম্পূর্ণ শুল্কহীন ওয়াইফাই পরিষেবা – শুক্রবারই WBTC এই ঘোষণা করেছে। ভবিষ্যতে চাহিদার ভিত্তিতে এই পরিষেবাকে আরো অনেক বেশি পরিমাণে প্রসারিত করা হবে বলে ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্রান্সপোর্ট কর্পোরেশনের কর্তারা আশ্বাস দিয়েছেন। ফলে আগামী দিনে অধিকাংশ ট্রামেই নাগরিকেরা ফ্রি ওয়াইফাইয়ের সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন।

ডব্লিউবিটিসি’র ম্যানেজিং ডিরেক্টর রাজনবীর সিং কাপুর বিনামূল্যে ওয়াইফাই পরিষেবা চালু সম্পর্কে বলেছেন যে তাদের এই পদক্ষেপ প্রযুক্তিপ্রেমী তামাম মানুষ, মূলত অল্প বয়সীদের ব্যাপকভাবে আকর্ষণ করবে।

র‌্যাপিডো, ওলা, উবেরের মতো পরিষেবা যখন হাতের মুঠোয়, সে সময় যাতায়াতের প্রয়োজনে নতুন প্রজন্ম ট্রামে চড়তে খুব একটা উৎসাহী হবেন না সেটা অত্যন্ত স্বাভাবিক ব্যাপার। তবে ডব্লিউবিটিসি’র নিঃশুল্ক ইন্টারনেট পরিষেবা যে আজকের সময়ের নিরিখে একটি প্রকৃত যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত, তা স্বীকার করতেই হবে। ডব্লিউবিটিসি’র চেয়ারম্যান রচপাল সিং জানিয়েছেন, ” যাতায়াতের প্রয়োজনে যাতে মানুষ ট্রামের কথা ভাবতে বাধ্য হন, তার জন্য WBTC সবরকম প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবে।”

উল্লেখ্য এর আগেও ট্রাম পরিবহনকে জনপ্রিয় করতে ডব্লিউবিটিসি ইয়ং রিডার্স ট্রাম কার এবং ট্রাম লাইব্রেরীর মতো সুবিধা নিয়ে এসেছিল। অল্প বয়সী বাচ্চারা ইয়ং রিডার্স ট্রাম কারে যাতায়াতের সময় তাদের ইচ্ছে মতো বই বেছে নিয়ে পড়তে পারে। অন্যদিকে ট্রাম লাইব্রেরী অসংখ্য বই ও ম্যাগাজিন দ্বারা শোভিত, যা তার সমস্ত যাত্রীর জন্য উন্মুক্ত।