পিলের বদলে ভুলবশত AirPod গিলে ফেলেন মহিলা, তারপর ?

ওই মহিলা নিজের ভিডিওতে বলেছেন যে তাঁর এক হাতে ছিল পেইনকিলার আইবুপ্রোফেন আর অন্য হাতে ছিল এয়ারপড

woman-swallows-apple-airpods-instead-of-painkillers

গোটা বিশ্বজুড়ে এখন উন্নত এবং আধুনিক প্রযুক্তি নিজের মায়াজাল বিস্তার করেছে। আবার ইন্টারনেটের কল্যাণে প্রায়শই আমরা নানা ধরণের অদ্ভূত ঘটনার সাক্ষী থাকছি। সেক্ষেত্রে এবার, বিশেষ এক টেকনোলজির সাথে নিজেকে জড়িয়ে ফেলে নেটদুনিয়ায় বিস্ময় ছড়ালেন ২৭ বছর বয়সী এক মহিলা। না কোনো আবিষ্কার বা সৃষ্টির কারণে নয়, বরঞ্চ কার্লি বেল্লার (Carli Beller) নামের ওই মহিলা একটি সচল ইলেকট্রনিক ডিভাইস পেটের মধ্যে নিয়ে দিব্যি সুস্থ স্বাভাবিক থাকার নজির গড়েছেন। কার্লির টিকটক ভিডিও অনুযায়ী, তিনি পেইনকিলার ওষুধ খেতে গিয়ে গিলে ফেলেছিলেন আস্ত Apple AirPod (অ্যাপল এয়ারপড); কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় এটাই যে, এই আজব কীর্তির পরেও সচল ছিল অডিও ডিভাইসটি। খুব স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনা সামনে আসার পর রীতিমত হইচই পড়ে গেছে নেটদুনিয়ায়!

ভুলবশত পেইনকিলারের বদলে ওষুধ গিলে ফেললেন মহিলা

কার্লি, নিজের ভিডিওতে বলেছেন যে তাঁর এক হাতে ছিল পেইনকিলার আইবুপ্রোফেন (ibuprofen) আর অন্য (বাম) হাতে ছিল এয়ারপড। সেক্ষেত্রে তিনি পেনকিলারটা খান বটে, কিন্তু ওষুধ গিলতে গিয়ে তাঁর গলায় শক্ত কিছু লাগে। তখন নিজের হাতের দিকে তাকিয়ে তিনি চমকে ওঠেন, কারণ তিনি দেখেন তাঁর হাতের মুঠোয় তখনও পেনকিলার রয়ে গেছে। নেই এয়ারপডটি! এরপর গোটা ঘটনা বুঝতে পেরে তিনি আঁতকে ওঠেন, চেষ্টা করেন গিলে ফেলা এয়ারপড বাইরের বের করার। কিন্তু তাতে কোনো লাভ হয়না।

যদিও চমকের এখানেই শেষ নয়। এয়ারপড গিলে ফেলার পর, পেটের ভেতরে থাকা ডিভাইসটির সঙ্গে ফোন তখনও সংযুক্ত রয়েছে কিনা জানার জন্য কার্লি একটি ভয়েস রেকর্ড করার চেষ্টা করেন। আর তখন পেটে থাকাকালীন অবস্থাতে স্মার্টফোনের সঙ্গে পেয়ারড এয়ারপডটি অস্পষ্টভাবে রেকর্ডেড ভয়েস মেমোটি প্লে করতে থাকে। অর্থাৎ মানব দেহের ভেতরে থেকেও সচল থাকার পাশাপাশি নিজের কাজ চালু রাখে এয়ারপডটি। পরে ওই মহিলা ফোনের কানেক্টিভিটি অপশন থেকে ‘ফরগেট দ্যা এয়ারপড’ সেটিং অন করতে বাধ্য হন; না হলে এয়ারপডটি তার ফোনের সঙ্গে কানেক্ট হয়েই থাকতো। মজার বিষয় এটাই, যখনই তিনি এয়ারপডটিকে ডিসকানেক্ট করেন, তখন তার কাছে নোটিফিকেশন আসে যে একটি অজানা আইপড তাঁর কাছে (পড়ুন সাথে) অবস্থান করছে।

তবে এই গোটা ঘটনার জন্য কার্লিকে ডাক্তারের কাছে ছুটতে হয়নি। বরঞ্চ তিনি ডাইজেস্টিভ ট্রাক ব্যবহার করে এয়ারপডটি বেরিয়ে যাওয়ার অপেক্ষা করতে থাকেন। পরে তিনি এক্স-রে করে দেখেন যে তাঁর পেটের মধ্যে কোনো এয়ারপড নেই। এটি তাঁর শরীর থেকে বেরিয়ে গেছে এমন অনুভব করতেও সক্ষম হন কার্লি।

আপাতদৃষ্টিতে এটি মজার বিষয় হলেও, এতে বিপদ হওয়ার যথেষ্ট সম্ভাবনা ছিল তাতে কোনো সন্দেহ নেই! সেক্ষেত্রে এই ঘটনা সামনে আসার পর নেটিজেনদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। কেউ ঘটনাটি শুনে আতঙ্কিত হয়েছেন, আবার কেউ মজা করে বলেছেন পেটের মধ্যে এয়ারপডটি থাকাকালীনই তিনি গান শুনতে পারতেন।
এছাড়া এক আইপড ইউজার কমেন্ট করে বলেছেন যেখানে ওষুধ খেতেই তাঁর গলায় লাগে, সেখানে কেউ এয়ারপড কিভাবে গিলে ফেলল! আবার কার্লি আইবুপ্রোফেনের সাথে এয়ারপডকে কিভাবে গুলিয়ে ফেললেন, সেই প্রশ্নও উঠেছে কমেন্টে।

টেকগাপের মেম্বাররা ও সদ্য যোগ দেওয়া লেখকরা এই প্রোফাইলের মাধ্যমে টেকনোলজির সমস্ত রকম খুঁটিনাটি আপনাদের সামনে আনে।