Yamaha Aerox 155: ভারতে দুর্দান্ত ম্যাক্সি-স্কুটার আনছে ইয়ামাহা, দিওয়ালির সময় হতে পারে লঞ্চ

yamaha-aerox 155cc-scooter-with-r15m-bluetooth my launch-by-diwali
Yamaha Aerox 155 লঞ্চ হচ্ছে

আপনি কি ভিন্ন রাইডিং এক্সপেরিয়েন্স-সহ আরও স্টাইলিশ এবং প্রাক্টিক্যাল স্কুটারের খোঁজ করছেন? তাহলে দিওয়ালি পর্যন্ত একটু সবুর করুন! আপনার স্বপ্নপূরণে ভারতে দুর্দান্ত ম্যাক্সি-স্কুটার আনতে চলেছে ইয়ামাহা (Yamaha)। ম্যাক্সি-স্কুটারের বাজারে ইয়ামাহা যে সত্যিই পা রাখার পরিকল্পনা করছে, সে কথা গত মাসে জানা গিয়েছিল। জল্পনা চলতে থাকে যে ইয়ামাহার ফুল-ফেয়ার্ড স্পোর্টস বাইক R15-এর ১৫৫ সিসি-র ইঞ্জিনের উপর ভিত্তি করে নতুন ম্যাক্সি-স্কুটারটির আত্মপ্রকাশ ঘটবে। এবার এটি পরিবহন দপ্তরের ছাড়পত্র পেয়ে গেল। টাইপ অ্যাপ্রুভাল সার্টিফিকেট অনুসারে, ইয়ামাহার আপকামিং ম্যাক্সি-স্কুটারের নাম Yamaha Aerox 155। মডেলটি ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড, ফিলিপাইন্স-এর মতো দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বাজারে অনেক আগে থেকেই বিক্রি হচ্ছে।

Maxi Scooter-এর বিশেষত্ব

ম্যাক্সি-স্কুটারের আকার সাধারণ স্কুটারের চেয়ে চেহারায় অনেকটাই বড়। ইঞ্জিন ক্যাপাসিটি যেমন বেশি থাকে, তেমনি চালাতেও আরাম। ম্যাক্সি-স্কুটারের লুকস, স্পেস, বুট স্টোরেজ – সবকিছুই চমৎকার। লম্বা সফর করার জন্য ম্যাক্সি-স্কুটার উপযুক্ত সঙ্গী। এক কথায়, স্কুটারের আধুনিকতম ভার্সন হল ম্যাক্সি-স্কুটার। 

Yamaha Aerox 155-এর Type Approval Certificate

টাইপ অ্যাপ্রুভাল সার্টিফিকেট থেকে জানা গিয়েছে যে, ভারতীয় বাজারে Yamaha Aerox 155 মডেলের ম্যাক্সি-স্কুটারের দৈর্ঘ্য হবে ১৯৮০ মিমি, চওড়া ৭০০ মিমি, ও উচ্চতা ১১৫০ মিমি, হুইলবেস ১৩৫০ মিমি। এর ১৫৫ সিসি ইঞ্জিনের সর্বোচ্চ পাওয়ার আউটপুট ১১ কিলোওয়াট (৮,০০০ আরপিএম গতিতে)। অর্থাৎ R15-এর ইঞ্জিন ব্যবহার করা হলেও Aerox 155 কম পাওয়ার উৎপন্ন করবে।

Yamaha Aerox 155 ফিচার

ফুল-এলইডি লাইটিং সেটআপ, ২৫ লিটার বুট স্টোরেজ, ডিজিটাল ইনস্ট্রুমেন্ট ক্লাস্টার, স্মার্টফোন কানেক্টিভিটি সিস্টেম, ফ্রন্ট ডিস্ক ব্রেক, এবং সিঙ্গেল চ্যানেল এবিএস – আর্ন্তজাতিক বাজারে বিক্রিত Yamaha Aerox 155 স্কুটারের ফিচারের মধ্যে উল্লেখযোগ্য। তবে, ভারতীয় গ্রাহকদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে আরও নতুন ফিচার যুক্ত করতে পারে ইয়ামাহা।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন

টেকগাপে শুভ্রর প্রথম প্রযুক্তি বিষয়ক লেখায় হাতেখরি৷ স্নাতক স্তরের পড়াশোনার পাশাপাশি এখানেই চলতে থাকে শুভ্রর লেখালেখি৷ কলেজের অধ্যায় শেষ হওয়ার পর শুভ্র এখন টেকগাপের কনটেন্ট টিমের একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য৷