Yezdi Scrambler, Roadster: 26 বছর পর ইয়েজদি-র রাজকীয় প্রত্যাবর্তন, লঞ্চ করল দুর্দান্ত স্ক্র্যাম্বলার ও রোডস্টার বাইক

yezdi-roadster-and-scrambler-bikes-launched-price-features-specs

একটা সময় ছিল, যখন বলিউডের সুপারস্টার রাজেশ খান্না থেকে শুরু করে অমিতাভ বচ্চন পর্দার ওপারের পাশাপাশি বাস্তবেও Yezdi-র মোটরসাইকেলেও দাপিয়ে বেড়িয়েছেন। যা দেখে অনুরাগীদের হার্ট বিট কয়েক গুণ বেড়ে যেত। বহু মানুষের কাছে স্বপ্নের ব্র্যান্ড ছিল এটি। এই বিপুল জনপ্রিয়তার কাঁধে ভর করে ভারতে ইয়েজদির ব্যবসাতেও সমৃদ্ধি এসেছিল৷ তবে বিভিন্ন জটিলতার কারণে ১৯৯৬ সালে নির্মাণ বন্ধের পর প্রায় ২৬ বছর পর আবার নতুন রূপে ফিরে এল Yezdi-র মোটরসাইকেল। ভারতের বাজারে আজ একসাথে তিনটি মডেলের মোটরবাইক Adventure, Scrambler ও Roadster – লঞ্চ করল Yezdi।

Mahindra-র শাখা সংস্থা Classic Legends-এর হাত ধরে যাত্রা শুরু করেছিল কয়েক বছর আগেই। আসলে এই ক’দিনে নিজেদের নতুন রূপে গড়ে তোলার চেষ্টার কোনো খামতি রাখেনি একসময়কার সাড়া জাগানো সংস্থাটি। এরমধ্যে আবার গত বছর নভেম্বর থেকে জন্মদাতা সংস্থা জাওয়া (Jawa)-র হাত ছেড়ে স্বতন্ত্রভাবে পথ চলা শুরু করেছে ইয়েজদি। আসুন Yezdi Scrambler ও Roadster মোটরসাইকেল দুটির ডিজাইন, ফিচার, ইঞ্জিন ও দাম সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক। উল্লেখ্য, Yezdi Adventure-এর বিষয়ে আমরা আরেকটি প্রতিবেদনে আলোচনা করেছি৷

Yezdi Scrambler ও Roadster : ডিজাইন

ইয়েজদি স্ক্র্যাম্বলার ও রোডস্টার (Yezdi Scrambler ও Roadster)-এ ফুটিয়ে তোলা হয়েছে নিও-রেট্রো ডিজাইন, যা ৮০ ও ৯০ দশকের পুরনো ইয়েজদি-র কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। আগের মডেলের মতই নতুন মডেলটিতেও দেওয়া হয়েছে একটি গোলাকৃতি হেডল্যাম্প, সার্কুলার রিয়ারভিউ মিরর, একটি টিয়ারড্রপ-শেপড ফুয়েল ট্যাঙ্ক, ইঞ্জিন রেডিয়েটার শ্রাউড এবং ফ্রন্ট গেইটার। যদিও ডিজাইন এবং চরিত্রগত দিক থেকে মোটরসাইকেল দুটি পুরোদস্তুর ভিন্ন।

Yezdi Scrambler ও Roadster : রঙ ও ফিচার

ইয়েজদি রোডস্টার (Yezdi Roadster) পাঁচটি রঙের বিকল্পে বেছে নেওয়া যাবে – স্মোক গ্রে, স্টিল ব্লু, হান্টার গ্রীন, গ্যাল্যান্ট গ্রে এবং সিন সিলভার। এগুলির মধ্যে প্রথম তিনটি ডার্ক থিমের সাথে এসেছে এবং পরের দুটি মডেলে রয়েছে ক্রোম থিম।

অন্যদিকে, ইয়েজদি স্ক্র্যাম্বলার মডেলটি ছয়টি রঙের বিকল্পে এসেছে – ফায়ার অরেঞ্জ, ইয়েলিং ইয়েলো, আউটলে অলিভ, রেবেল রেড, মিন গ্রীন এবং মিডনাইট ব্লু।

উভয় মোটরসাইকেলেই উপস্থিত গোলাকৃতি এলইডি হেডল্যাম্প এবং টেলল্যাম্প, ডিজিটাল এলইডি ইন্সট্রুমেন্ট কনসোল, যেখানে নানাবিধ তথ্য দেখা যাবে। স্ক্র্যাম্বলার মডেলটিতে আবার দেওয়া হয়েছে কিছু অতিরিক্ত ফিচার। যেমন ক্লিয়ার লেন্স এলইডি ইন্ডিকেটর, ইউএসবি এবং টাইপ-সি চার্জিং পোর্ট। তবে এই দুটি মডেলে ব্লুটুথ কানেক্টিভিটি এবং টার্ন-বাই-টার্ন নেভিগেশননের সুবিধা নেই। যেটা Adventure-এ রয়েছে।

Yezdi Scrambler ও Roadster : ইঞ্জিন

স্ক্র্যাম্বলার ও রোডস্টার দুটি মডেলেই দেওয়া হয়েছে একই ইঞ্জিন। সিঙ্গেল সিলিন্ডার লিকুইড কুল্ড ৩৩৪ সিসি ইঞ্জিন। যদিও মডেল বিশেষে এদের আউটপুট ভিন্ন। যেমন রোডস্টারের ইঞ্জিনটি থেকে পাওয়া যাবে ৭,৩০০ আরপিএমে ২৯.৭ পিএস শক্তি এবং ৬,৫০০ আরপিএমে ২৯ এনএম টর্ক।

অন্যদিকে স্ক্র্যাম্বলারের ইঞ্জিনটি থেকে উৎপন্ন হবে ৮,০০০ আরপিএমে ২৯.১ পিএস শক্তি এবং ৬,৭৫০ আরপিএমে ২৮.২ এনএম টর্ক। দুটি বাইকেই রয়েছে ৬-স্পিড গিয়ার বক্স। এদের ফ্রন্টে রয়েছে টেলিস্কোপিক ফোর্ক এবং রিয়ারে টুইন গ্যাস-চার্জড শক অ্যাবসর্বার।

Yezdi Scrambler ও Roadster : দাম

Yezdi Scrambler ও Roadster-এর দাম ১.৯৮ লাখ টাকা থেকে শুরু হয়ে ২.১৯ লাখ পর্যন্ত (এক্স-শোরুম) । Enfield Meteor 350-এর প্রতিপক্ষ হিসেবে আনা হয়েছে রোডস্টার মোটরবাইকটি। অন্যদিকে স্ক্র্যাম্বলার মডেলটি রয়্যাল এনফিল্ড-এর আসন্ন Scram 411-এর সাথে টক্কর নেবে।

শুভদীপ টেকগাপে অটোকার বিষয়ক লেখালিখি করে। এর আগে বিভিন্ন পোর্টালের সাথে যুক্ত থাকলেও, অটোকার নিয়ে টেকগাপে তার হাতেখড়ি। দিনকে দিন সে টেকগাপের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হয়ে উঠেছে।