Honda-র মোটরসাইকেল এবার পেট্রলের পাশাপাশি ছুটবে ইথানলে, বাঁচবে তেল খরচ

ভারত মোবিলিটি গ্লোবাল এক্সপো ২০২৪ অনুষ্ঠানে বিভিন্ন অটোমোবাইল কোম্পানি নিজেদের গাড়ি ও টু হুইলার হাজির করে চলেছে। এবার হোন্ডাও সেখানে তাদের প্রথম ফ্লেক্স-ফুয়েল চালিত মোটরসাইকেলের উপর থেকে পর্দা সরালো। Honda CB300F বাইকটি ফ্লেক্স-ফুয়েল ইঞ্জিন সহ হাজির করা হয়েছে। যারা জানেন না তাদের অবগতির জন্য বলে রাখি, ইথানল ও পেট্রোলের মিশ্রণের তৈরি জ্বালানিতে চলতে সক্ষম এমন ইঞ্জিন ‘ফ্লেক্স-ফুয়েল ইঞ্জিন’ নামে খ্যাত।

ফ্লেক্স-ফুয়েল চালিত Honda CB300F হাজির হল

পেট্রোল ভার্সনের তুলনায় Honda CB300F ফ্লেক্স-ফুয়েল মডেলের ডিজাইনে কোনরকম বদল ঘটানো হয়নি। তবে এই মোটরসাইকেলটি বাজারে কবে লঞ্চ করা হবে, সেই প্রসঙ্গে মুখ খোলেনি হোন্ডা। এতে আইসিই ভার্সনের মতো ২৯৩.৫২ সিসি সিঙ্গেল সিলিন্ডার ইঞ্জিন দেওয়া হয়েছে, যা ইথানল মিশ্রিত জ্বালানিতে চলবে। এই বাইকের বাজার চলতি মডেল থেকে ৭,৫০০ আরপিএম গতিতে ২৪.১৩ বিএইচপি এবং ৫,৫০০ আরপিএম গতিতে ২৫.৬ এনএম টর্ক উৎপন্ন হয়।

ফ্লেক্স-ফুয়েল মডেলটির আউটপুট সামান্য ভিন্ন হতে পারে। তবে ছয় গতির গিয়ারের সাথে স্লিপ ও অ্যাসিস্ট ক্লাচ থাকবে। প্রসঙ্গত, বর্তমানে ভারতে পেট্রোলের সাথে ২০ শতাংশ ইথানল মিশ্রিত করা হয়। এই প্রকার জ্বালানির নাম E20। তবে ফ্লেক্স ফুয়েল গাড়ি বা বাইক ৮৫ শতাংশ পর্যন্ত ইথানল মিশ্রিত জ্বালানিতে চলতে সক্ষম। জানিয়ে রাখি, হোন্ডা ব্রাজিল ৭০ লক্ষের বেশি ফ্লেক্স-ফুয়েল চালিত মোটরসাইকেল ইতিমধ্যেই বিক্রি করে ফেলেছে।

বাজারে বিক্রি হওয়া Honda CB300F-এর মতো সদ্য উন্মোচিত ফ্লেক্স-ফুয়েল ভার্সনেও রয়েছে এলইডি লাইটিং এবং ডিজিটাল ইন্সট্রুমেন্ট ক্লাস্টার। সাসপেনশনের জন্য দেওয়া হয়েছে ইউএসডি ফ্রন্ট ফর্ক এবং রিয়ার মোনোশক। জানিয়ে রাখি, আজ রয়্যাল এনফিল্ডও তাদের প্রথম ফ্লেক্স ফুয়েল মোটরসাইকেল প্রদর্শন করেছে।