ভাল বাইক কিনতে বেশি দূর যেতে হবে না, দেশজুড়ে শোরুমের সংখ্যা বাড়াচ্ছে Hero

হিরো মোটোকর্প (Hero MotoCorp) ভারতে তাদের প্রিমিয়াম ডিলারশিপ চ্যানেল প্রিমিয়া-র (Premia) সম্প্রসারণে মরিয়া হয়ে উঠেছে। এ বছর জুনের মধ্যে ১০০টি আউটলেট খোলার পরিকল্পনা করছে সংস্থা। নিজেদের প্রিমিয়াম টু হুইলার ব্র্যান্ড হিসেবে পরিচিতি তৈরি করতে এটি অন্যতম পদক্ষেপ তাদের। উল্লেখ্য, কেরলের কোঝিকোড়ে গত বছর অক্টোবরে প্রিমিয়ার প্রথম ডিলারশিপ উদ্বোধন করেছিল হিরো।

Hero Premia শোরুমের সংখ্যা বাড়ছে

হাই-এন্ড বাইকগুলি বিক্রির উদ্দেশ্যে এই নতুন প্রিমিয়া ডিলারশিপ সম্প্রসারণের ভাবনা হিরোর। Harley-Davidson-এর সাথে যৌথভাবে নির্মিত এবং ইলেকট্রিক সাব-ব্র্যান্ড Vida-র আওতাধীন মডেলগুলি বিক্রি করা হবে এখান থেকে। এই শোরুমে থাকছে বিভিন্ন জোন। যেমন – আরবান এবং স্ট্রিট মোটরসাইকেলের আলাদা জোন। আবার তরুণ প্রজন্মের ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে থাকছে বিশেষ ব্যবস্থা।

প্রসঙ্গত, হিরো মোটোকর্প সম্প্রতি ফ্ল্যাগশিপ বাইক Mavrick 440 -এর উপর থেকে পর্দা সরিয়েছে হিরো। এটি ছাড়াও সংস্থার প্রিমিয়া ডিলারশিপ নেটওয়ার্ক থেকেই বিক্রি করা হবে তাদের অন্যান্য টু হুইলার। যেমন – Harley-Davidson X440, Hero Karizma XMR, Vida V1 Pro ইত্যাদি।

প্রসঙ্গত, Harley-Davidson -এর সাথে যৌথভাবে তৈরি দ্বিতীয় বাইক Mavrick 440-তে গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য হিসেবে রয়েছে ইন্সট্রুমেন্ট কনসোলের জন্য একটি এলসিডি স্ক্রিন, ব্লুটুথ কানেক্টিভিটি, কল ও এসএমএস অ্যালার্ট, টার্ন বাই টার্ন নেভিগেশন এবং বিভিন্ন কানেক্টেড ফিচার্স। আবার ফুল এলইডি লাইটিং ও এলইডি প্রজেক্টর হেডলাইট দেওয়া হয়েছে।

এগিয়ে চলার শক্তি জোগাতে Hero Mavrick 440-এ উপস্থিত একটি ৪৪০ সিসি সিঙ্গেল সিলিন্ডার, এয়ার/অয়েল কুল্ড ইঞ্জিন। এটি থেকে ২,০০০ আরপিএম গতিতে ৯০% টর্ক উৎপন্ন হবে। এতে রয়েছে ৪৩ মিমি টেলিস্কোপিক ফ্রন্ট ফর্ক এবং একটি রিয়ার মোনোশক সাসপেনশন। ব্রেকিংয়ের দায়িত্ব পালন করতে ডুয়েল চ্যানেল এবিএস সমেত দু’চাকায় ডিস্ক ব্রেক উপস্থিত। ভারতের বাজারে Mavrick 440-এর প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে রয়েছে Royal Enfield Classic 350, Jawa 350 ও Honda CB350।