রাত পোহালেই ধুমধাম করে লঞ্চ, Hyundai Creta Facelift-এর দাম কত হবে, জেনে যান সমস্ত তথ্য

মহানগরের রাজপথে চলমান Hyundai Creta-এর দিকে একঝলক ফিরে তাকায় না এমন মানুষের সংখ্যা খুবই কম। ২০১৫ সালে ভারতে এসেছিল এই মিড সাইজ এসইউভি’টি। সময়ের সাথে সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে ক্রেটার জনপ্রিয়তা। এবার নতুন বছরে নয়া অবতারে আসছে গাড়িটি। রাত পোহালেই ভারতে লঞ্চ হচ্ছে Hyundai Creta ফেসলিফ্ট। অগ্রিম বুক করার জন্য লাগছে ২৫,০০০ টাকা। নতুন মডেলে বহিরঙ্গের নকশা থেকে শুরু করে অন্দরমহলের সৌন্দর্য যেমন বদলেছে তেমনভাবেই যুক্ত হয়েছে নানা যুগোপযোগী ফিচার। কত দাম হতে পারে নতুন ক্রেটা ফেসলিফ্টে। চলুন আগামীকাল লঞ্চের আগে জেনে নেওয়া যাক সমস্ত খুঁটিনাটি।

Hyundai Creta Facelift: ফিচার

হুন্ডাই ক্রেটা ফেসলিফ্টের বেশিরভাগ বৈশিষ্ট্য এখনও পর্যন্ত পর্দার আড়ালেই। তবে সংস্থা কর্তৃক প্রকাশিত ছবি অনুযায়ী ইন্সট্রুমেন্ট ক্লাস্টার এবং ইনফোটেনমেন্ট সিস্টেমের জন্য ১০.২৫ ইঞ্চির দুটি বড় ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে। এছাড়া, ক্লাইমেট কন্ট্রোল সিস্টেমের জন্য টাচ-স্ক্রিন থাকবে। সবমিলিয়ে অত্যাধুনিক ফিচার নিয়ে গ্রাহকদের সমস্ত রকম চাহিদাই পূরণ হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

Hyundai Creta Facelift: ইঞ্জিন স্পেসিফিকেশন

হুন্ডাই ক্রেটা ফেসলিফ্টের বিপুল জনপ্রিয়তার পিছনে সবচেয়ে বড় কারিগর পারফরম্যান্স অর্থাৎ ইঞ্জিন। নয়া মডেলেও ইঞ্জিন অপশন তিনটি। প্রথমটি ১.৫ লিটারের সাধারণ পেট্রল ইঞ্জিন, দ্বিতীয়টি ১.৫ লিটারের টার্বো পেট্রল ইঞ্জিন ও তৃতীয় ১.৫ লিটারের ডিজেল ইঞ্জিন। সাধারণ পেট্রোল ইঞ্জিনটি সর্বোচ্চ ১১৩ বিএইচপি ও ১৪৪ এনএম টর্ক উৎপাদনের ক্ষমতা রাখে। টার্বো চার্জড পেট্রল ইঞ্জিনটির পাওয়ার এবং টর্ক যথাক্রমে ১৫৭ বিএইচপি এবং ২৫৩ এনএম। সবশেষে ডিজেল ইঞ্জিন থেকে ১১৩ বিএইচপি এবং ২৫০ এনএম টর্ক তৈরি হয়।

Hyundai Creta Facelift: দাম

অফিশিয়াল প্রাইস কালই জানা যাবে। তবে মনে করা হচ্ছে ক্রেটা ফেসলিফ্টের দাম ১১ লাখ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২০ লক্ষ টাকা (এক্স-শোরুম) পর্যন্ত যেতে পারে। মোট সাতটি ভ্যারিয়েন্টে আসবে – E, EX, S, S(O), SX, SX Tech এবং SX(O)। ছয়টি সিঙ্গেল টোন এবং একটি ডুয়েল টোন পেইন্ট স্কিম থাকবে এতে।