Samsung Galaxy S24 Ultra নাকি Apple iPhone 15 Pro Max কেনা লাভজনক, দেখে নিন পার্থক্য

Samsung Galaxy S24 Ultra ও Apple iPhone 15 Pro Max ফোনের দাম ও ফিচারের মধ্যে পার্থক্যগুলি দেখে নিন

দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে গতকাল অর্থাৎ ১৭ই জানুয়ারি Samsung Galaxy S24 স্মার্টফোন সিরিজ বিশ্বব্যাপী মুক্তি পেয়েছে। এই নয়া লাইনআপের অধীনে মোট তিনটি ডিভাইস এসেছে, যথা – স্ট্যান্ডার্ড Samsung Galaxy S24, Galaxy S24+ এবং টপ-এন্ড Galaxy S24 Ultra। এক্ষেত্রে কোনো নতুন ফ্ল্যাগশিপ-লেভেল অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন বাজারে প্রবেশ করলেই সেটিকে Apple iPhone -এর সাথে তুলনা করে দেখার প্রবণতা আমাদের মধ্যে অনেকেরই আছে। তাই আজ আমরা সদ্য আত্মপ্রকাশ করা হাই-এন্ড Samsung Galaxy S24 Ultra স্মার্টফোনের সাথে গত বছর ১২ই সেপ্টেম্বর লঞ্চ হওয়া লেটেস্ট Apple iPhone 15 Pro Max মডেলটির দাম ও ফিচারের তুলনামূলক আলোচনা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যা স্পষ্ট করে দেবে Samsung এবং Apple ব্র্যান্ডিংয়ের ডিভাইস দুটির মধ্যে কোনটি সর্বাধিক সেরা।

Samsung Galaxy S24 Ultra vs Apple iPhone 15 Pro Max : ডিসপ্লে

টাইটেনিয়াম ফ্রেম যুক্ত স্যামসাং গ্যালাক্সি এস২৪ আল্ট্রা স্মার্টফোনে কর্নিং গরিলা আর্মর প্রটেকশন সহ ৬.৮-ইঞ্চির এজ কোয়াড এইচডি প্লাস ডায়নামিক ২এক্স ডিসপ্লে দেখা যাবে, যা ১-১২০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট ও ২,৬০০ নিটস পর্যন্ত ব্রাইটনেস সাপোর্ট করে। এই ডিসপ্লের সাথে ভিশন বুস্টার ফিচার রয়েছে, যা বাইরে বার হলেও দুর্দান্ত দৃশ্যমানতা অফার করবে।

টাইটেনিয়াম অ্যালয় চ্যাসিসের সাথে আসা অ্যাপল আইফোন ১৫ প্রো ম্যাক্স মডেলে ৬.৭-ইঞ্চির (২৭৯৬ x ১২৯০ পিক্সেল) সুপার রেটিনা এক্সডিআর ওলেড ডিসপ্লে দেওয়া হয়েছে। এই টাচস্ক্রিন – ২০০০ নিট পিক ব্রাইটনেস প্রদানের পাশাপাশি এলটিপিও প্রযুক্তিও অফার করে। আবার ডিসপ্লেটি অ্যাডাপ্টিভ রিফ্রেশ রেট (প্রো-মোশন) এবং অলওয়েজ অন‌ ডিসপ্লে ফিচারও সাপোর্ট করে।

Samsung Galaxy S24 Ultra vs Apple iPhone 15 Pro Max : প্রসেসর, অপারেটিং সিস্টেম, র‌্যাম, স্টোরেজ

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস২৪ আল্ট্রা স্মার্টফোনে কোয়ালকমের লেটেস্ট প্রজন্মের স্ন্যাপড্রাগন ৮ জেন ৩ প্রসেসর এবং অ্যাড্রেন ৭৫০ জিপিইউ ব্যবহার করা হয়েছে। এটি অ্যান্ড্রয়েড ১৪ ভিত্তিক ওয়ানইউআই ৬.১ কাস্টম স্কিন দ্বারা চালিত। আবার স্টোরেজ হিসাবে ১২ জিবি র‌্যাম এবং সর্বোচ্চ ১ টেরাবাইট রম পাওয়া যাবে।

অভ্যন্তরীণ স্পেসিফিকেশনের কথা বললে, Apple iPhone 15 Pro Max মডেলে শক্তিশালী ৩এনএম প্রসেসিং নোড ভিত্তিক এ১৭ বায়োনিক চিপসেট রয়েছে। এটি একটি ৬ কোর প্রসেসর, যার সাথে ৬ কোর জিপিইউ উপস্থিত। আবার অপারেটিং সিস্টেম হিসাবে আইওএস ১৭ (iOS 17) প্রি-লোডেড থাকছে। এই হ্যান্ডসেটে ৮ জিবি র‌্যাম ও ১ টেরাবাইট পর্যন্ত স্টোরেজ উপলব্ধ।

Samsung Galaxy S24 Ultra vs Apple iPhone 15 Pro Max : ক্যামেরা সেটআপ

ফটো ও ভিডিওগ্রাফির জন্য Samsung Galaxy S24 Ultra স্মার্টফোনে কোয়াড রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ বর্তমান। এই ক্যামেরাগুলি হল – OIS সাপোর্ট ও এফ/১.৮ অ্যাপারচার সহ ২০০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, এফ/২.২ অ্যাপারচার যুক্ত ১২ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা-ওয়াইড শুটার, OIS ও ৫এক্স অপটিক্যাল জুম সহ ৫০ মেগাপিক্সেল টেলিফটো সেন্সর এবং ৩এক্স অপটিক্যাল জুম সমর্থিত ১০ মেগাপিক্সেল টেলিফোটো শুটার। এদিকে সেলফি ও ভিডিও কলিংয়ের জন্য এতে এফ/২.২ অ্যাপারচার ও ৮০-ডিগ্রি ফিল্ড-অফ-ভিউ সহ ১২ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট-ফেসিং ক্যামেরা মিলবে।

বিপরীতে Apple iPhone 15 Pro Max মডেলে ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ দেওয়া হয়েছে। এই ক্যামেরাগুলি হল – এফ/১.৭৮ অ্যাপারচার ও OIS সমর্থিত ৪৮ মেগাপিক্সেলের Sony IMX803 প্রাইমারি সেন্সর, ৫এক্স অপটিক্যাল জুম ও ১২০এমএম ফোকাল লেন্থ সহ ১২ মেগাপিক্সেল টেলিফটো লেন্স এবং এফ/২.২ অ্যাপারচার যুক্ত ১২ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা-ওয়াইড শুটার। উক্ত আইফোনের সামনে এফ/১.৯ অ্যাপারচার ও OIS সমর্থিত ১২ মেগাপিক্সেরল সেলফি ক্যামেরা বর্তমান। এই ফ্রন্ট সেন্সরটি – HDR প্রযুক্তি ও সিনেমেটিক মোড সাপোর্ট করে। পাশাপাশি ৪কে রেজোলিউশনের সাথে ২৪/৩০ এফপিএস রেটে ভিডিও শুট করতেও সক্ষম।

Samsung Galaxy S24 Ultra vs Apple iPhone 15 Pro Max : কানেক্টিভিটি বিকল্প, ব্যাটারি, চার্জিং ক্যাপাসিটি

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস২৪ আল্ট্রা স্মার্টফোনের কানেক্টিভিটি অপশনের মধ্যে সামিল থাকছে – ৫জি, ৪জি এলটিই, ওয়াই-ফাই ৭, ওয়াই-ফাই ডাইরেক্ট, ব্লুটুথ ৫.৩ ও ইউএসবি টাইপ-সি পোর্ট। তদুপরি পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি দেওয়া হয়েছে, যা ৪৫ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং ও ১৫ ওয়াট ওয়্যারলেস চার্জিং সাপোর্ট করে। সংস্থার দাবি অনুসারে, এই ব্যাটারি ডিভাইসকে মাত্র ৩০ মিনিটে ৬৫% পর্যন্ত চার্জ করবে। এছাড়া এতে ওয়্যারলেস পাওয়ার শেয়ার ফিচারও আছে, যা অন্য ওয়্যারলেস সাপোর্ট যুক্ত ফোনকে চার্জ করতে দেবে।

কানেক্টিভিটির জন্য অ্যাপল আইফোন ১৫ প্রো ম্যাক্সে – ওয়াই-ফাই ৮০২.১১ এ/বি/জি/এন/এসি/৬ই, ব্লুটুথ ৫.৩, হটস্পট, জিপিএস, এনএফসি, গ্লোনাস, গ্যালিলিও, ডিসপ্লে পোর্ট এবং ইউএসবি টাইপ-সি ৩.০ পোর্ট অন্তর্ভুক্ত। এতে ৪,৪৪১ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি রয়েছে, যা ১৫ ওয়াট ওয়্যারলেস ম্যাগসেফ (MagSafe) চার্জিং, ৭.৫ / ১৫ ওয়াট ওয়্যারলেস কিউআই (Qi) চার্জিং এবং ৪.৫ ওয়াট রিসার্ভ চার্জিং প্রযুক্তি সাপোর্ট করবে।

Samsung Galaxy S24 Ultra vs Apple iPhone 15 Pro Max : পরিমাপ

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস২৪ আল্ট্রা স্মার্টফোনের পরিমাপ ১৬২.৩x৭৯x৮.৬ মিমি এবং ওজন ২৩২ / ২৩৩ গ্রাম।

অ্যাপল আইফোন ১৫ প্রো ম্যাক্স -এর পরিমাপ ১৫৯.৯x৭৬.৭x৮.৩ মিমি এবং ওজন ২২১ গ্রাম।

Samsung Galaxy S24 Ultra vs Apple iPhone 15 Pro Max : দাম

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস২৪ আল্ট্রা স্মার্টফোন মোট তিনটি স্টোরেজ কনফিগারেশনের সাথে ভারতে লঞ্চ হয়েছে। যার মধ্যে ১২ জিবি র‍্যাম + ২৫৬ জিবি স্টোরেজ মডেলের দাম ১,২৯,৯৯৯ টাকা রাখা হয়েছে। এছাড়া উচ্চতর ১২ জিবি র‍্যাম + ৫১২ জিবি স্টোরেজ এবং ১২ জিবি র‍্যাম + ১ টেরাবাইট স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্ট দুটি যথাক্রমে ১,৩৯,৯৯৯ টাকা ও ১,৫৯,৯৯৯ টাকার বিনিময়ে পকেটস্থ করা যাবে। এই ফোনের ২৫৬ জিবি ও ৫১২ জিবি স্টোরেজ মডেল দুটি – টাইটানিয়াম গ্রে, টাইটানিয়াম ভায়োলেট এবং টাইটানিয়াম ব্ল্যাক কালার বিকল্পের সাথে পাওয়া যাবে। এছাড়া ১ টেরাবাইট অপশনটি শুধুমাত্র টাইটানিয়াম গ্রে কালার বিকল্পে এসেছে।

এদেশের বাজারে অ্যাপল আইফোন ১৫ প্রো ম্যাক্স মডেলও মোট তিনটি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্টের সাথে এসেছে। এক্ষেত্রে ২৫৬ জিবি স্টোরেজ যুক্ত বেস ভ্যারিয়েন্টের দাম ১,৫৯,৯০০ টাকা ধার্য করা হয়েছে। আর ৫১২ জিবি এবং ১ টেরাবাইট স্টোরেজ যুক্ত উচ্চতর বিকল্পের দাম থাকছে যথাক্রমে ১,৭৯,৯০০ টাকা ও ১,৯৯,৯০০ টাকা। এটি – ব্ল্যাক টাইটেনিয়াম, হোয়াইট টাইটেনিয়াম, ন্যাচেরাল টাইটেনিয়াম ও ব্লু টাইটেনিয়াম কালার অপশনে এসেছে।