Smartphone Price: জুন থেকেই দাম বাড়তে চলেছে স্মার্টফোনের, জেনে নিন আসল দুই কারণ

খুব শীঘ্রই ডি-র‍্যামের দাম বাড়ানো হবে। এক্ষেত্রে উক্ত মেমরি চিপ সরবরাহকারী প্রধান দুটি সংস্থা স্যামসাং (Samsung) এবং মাইক্রোন (Micron) সম্ভবত মার্চ মাস থেকেই মূল্যবৃদ্ধি কার্যকর করতে চলেছে

আপনি কি নতুন স্মার্টফোন কেনার পরিকল্পনা করছেন? তবে জুন মাস পড়ার আগেই এই ইচ্ছা বাস্তবায়িত করুন। ভাবছেন কেন এত তাড়া দিচ্ছি? আসলে চলতি বছরের দ্বিতীয় কোয়ার্টারের শেষ থেকে ভারতে আসন্ন স্মার্টফোনগুলি বর্ধিত দামের সাথে বিক্রি করা হতে পারে। একটি সাম্প্রতিক রিপোর্ট অনুযায়ী, দুটি কারণে এই মূল্য বৃদ্ধি ঘটতে পারে। প্রথমত, মেমরি চিপ শীঘ্রই আরো ব্যয়বহুল হতে চলেছে। দ্বিতীয়ত, চীনের কারেন্সির (ইউয়ান) মূল্যবৃদ্ধির কারণে। এই দুটি ঘটনার প্রভাবে স্মার্টফোনের দাম প্রায় ১০-১৫% বৃদ্ধি পেতে পারে।

জুন মাস থেকে ভারতে বর্ধিত মূল্যের সাথে বিক্রি করা হতে পারে স্মার্টফোন

মার্কেট রিসার্চার সংস্থা ট্রেন্ডফোর্স (Trendforce) তাদের একটি সাম্প্রতিক রিপোর্টে জানিয়েছে, খুব শীঘ্রই ডি-র‍্যামের দাম বাড়ানো হবে। এক্ষেত্রে উক্ত মেমরি চিপ সরবরাহকারী প্রধান দুটি সংস্থা স্যামসাং (Samsung) এবং মাইক্রোন (Micron) সম্ভবত মার্চ মাস থেকেই মূল্যবৃদ্ধি কার্যকর করতে চলেছে। এক ইন্ডাস্ট্রি বিশ্লেষকের দাবি অনুসারে, ডি-র‍্যাম মেমরি চিপের দাম ১৫% পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হতে পারে। এই সিদ্ধান্তের ফলে আসন্ন স্মার্টফোনগুলির দাম প্রভাবিত হবে।

তবে একদিকে যেমন স্মার্টফোনের দাম বৃদ্ধি পাওয়ার কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে, আরেকদিকে ভারত সরকারের নেওয়া একটি সাম্প্রতিক সিদ্ধান্তের কারণে হ্যান্ডসেট ক্রেতারা একটু হলেও স্বস্তি পাবেন। আসলে কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রক সম্প্রতি মোবাইল উৎপাদনের জন্য প্রয়োজনীয় তথা গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন কম্পোনেন্টের আমদানি শুল্ক কমানোর ঘোষণা করেছে। যার দরুন এখন সদ্য সংশোধিত আমদানি শুল্ক নীতির অধীনে – স্ক্রু, সিম সকেট, ধাতব যান্ত্রিক উপাদান, ব্যাটারি কভার, ফ্রন্ট কভার, প্রাইমারি লেন্স, ব্যাক কভার, জিএসএম অ্যান্টেনা, পলিউরেথেন ফোম কেস, পরিবাহী কাপড় (কন্ডাক্টিভ ক্লোথ), এলসিডি পরিবাহী ফোম, এলসিডি ফোম, বিটি ফোম, হিট ডিসিপেশন স্টিকার, ব্যাটারি কভার স্টিকার, প্রাইমারি লেন্সের প্রতিরক্ষামূলক ফিল্ম, এলসিডি এফপিসির জন্য মাইলার, ফিল্ম-ফ্রন্ট ফ্ল্যাশ এবং সাইড কী -এর মতো মোবাইল ফোন উৎপাদনে অপরিহার্য বিভিন্ন কম্পোনেন্ট আমদানি করার জন্য ১৫% -এর বদলে ১০% শুল্ক প্রদান করতে হবে টেক ব্র্যান্ডগুলিকে।

জানিয়ে রাখি ভারত সরকারের পক্ষ থেকে, অন্তর্বর্তী বাজেট পেশ করার ঠিক দু’দিন আগে অর্থাৎ ৩১শে জানুয়ারি মোবাইল উৎপাদনে ব্যবহৃত গুরুত্বপূর্ণ উপাদানের আমদানি শুল্ক কমানোর কথা জানানো হয়। তবে এই সিদ্ধান্ত যেহেতু অন্তর্বর্তী বাজেটে ঘোষণা করা হয়েছে সেহেতু এটা বছরভর স্থায়ী হবে কিনা তা এখুনি বোঝা যাচ্ছে না। কারণ প্রকৃত কেন্দ্রীয় বাজেট নতুন সরকার নির্বাচিত হওয়ার পর অর্থাৎ জুন মাসে উপস্থাপন করা হবে। তারপরই একমাত্র বোঝা যাবে যে, স্মার্টফোনের দাম বাড়বে, কমবে নাকি একই থাকবে।