পাবেন ব্লুটুথ ও ডিজিটাল ডিসপ্লে, অবশেষে Bajaj Pulsar বাইকে আসছে মর্ডান ফিচার্স

দেশীয় বাইক নির্মাতা বাজাজ (Bajaj) দীর্ঘ দুই দশকের বেশি সময় ধরে পালসার (Pulsar) সিরিজের একের পর এক মডেল উপহার দিয়েছে বাইকপ্রেমীদের। আর বছর দুই-তিন আগে নতুন ডিজাইনের সঙ্গে আসতে শুরু করেছে নিউ জেনারেশন পালসার। সময়ের সঙ্গে স্টাইলিং আপডেট হলেও ফুল-ডিজিটাল কনসোল বা ব্লুটুথ কানেক্টিভিটির মতো আধুনিক ফিচার্সের অভাব চোখে পড়ছিল পালসারে। তাই এবার সেই ঘাটতিও মেটাল বাজাজ। 2024 Pulsar N160 ডিজিটাল ইন্সট্রুমেন্ট ক্লাস্টার ও স্মার্টফোন কানেক্টিভিটি বৈশিষ্ট্যের সঙ্গে শোরুমে এসে গিয়েছে। লঞ্চ হবে শীঘ্রই।

2024 Pulsar N160: নতুন ফিচার্স

N160-এর হাত ধরেই কার্যত নতুন ঘরানা চালু করেছিল বাজাজ। নতুন আপডেট হিসেবে এই বাইকের সবচেয়ে বড় পরিবর্তন হতে চলেছে ইন্সট্রুমেন্ট ক্লাস্টারে। এতদিন পর্যন্ত সেমি ডিজিটাল ইন্সট্রুমেন্ট কনসোল দেখতে পাওয়া গেলেও এবার অ্যানালগ টেকোমিটারের পরিবর্তে আসছে নতুন ধরনের টেকোমিটার যা অনুভূমিকভাবে বসানো রয়েছে। প্রখর সূর্যালোকের মধ্যেও স্পষ্টভাবে যাতে দেখতে পাওয়া যায় সেই জন্য ব্যবহৃত হয়েছে কালো রঙের ডিসপ্লে।

নতুন Pulsar N160 বাইকের ডিজিটাল ডিসপ্লেতে অ্যাভারেজ ফুয়েল ইকোনমি, ডিস্টেন্স টু এমটি, গিয়ার পজিসন ইন্ডিকেটর, সময়, স্পিডোমিটার এবং জ্বালানির পরিমাণ সংক্রান্ত তথ্য দেখতে পাবেন রাইডার। সাথে হাইলাইটের পার্ট হল ব্লুটুথ কানেক্টিভিটি। মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সংযুক্ত অবস্থায় ফোনের সিগন্যালের অবস্থা, ব্যাটারি, মেসেজ ও মিসডকল অ্যালার্ট মিলবে এতে। প্রয়োজনে বাইকের বাম হাতের হ্যান্ডেলে যুক্ত সুইচগিয়ারের মাধ্যমে এই সমস্ত তথ্যগুলি নিজের মতো কন্ট্রোল করতে পারবেন।

2024 Pulsar N160: পারফরম্যান্স, হার্ডওয়্যার

আগেই মতোই Pulsar N160 মডেলে ১৬৪.৮২ সিসি এয়ার-অয়েল কুল্ড ইঞ্জিন থাকবে। ৮৭৫০ আরপিএম গতিতে সর্বোচ্চ ১৫.৮ বিএইচপি ও ৬৭৫০ আরপিএমে সর্বাধিক ১৪.৬৫ এনএম টর্ক তৈরি করতে পারবে এই ইঞ্জিন। যোগ্য সঙ্গত করবে ফাইভ স্পিড গিয়ারবক্স।

সাসপেনশনের দায়িত্ব সামলাতে সামনের দিকে ৩৭ মিমি টেলিস্কোপিক ফর্ক এবং পেছনে মনোশক অ্যাবজর্ভার দেওয়া হয়েছে। ব্রেকিং সিস্টেমের মধ্যে সামনের চাকায় ৩০০ মিমি ও পিছনের চাকায় ২৩০ মিমি ডিস্ক ব্রেক উপলব্ধ। সেফটি ফিচার হিসাবে উভয় চাকাতেই থাকছে অ্যান্টি লক ব্রেকিং সিস্টেম।