বৈদ্যুতিকে টাটারাই ভরসা! দেশে সবথেকে বেশি ইলেকট্রিক গাড়ি বিক্রির নজির Tata Motors-র

বরাবরের মতো মে’তেও ভারতের বৈদ্যুতিক গাড়ির দুনিয়ায় নিজেদের কর্তৃত্ব বজায় রাখল টাটা মোটরস (Tata Motors)। আগের মাসে Nexon EV, Tiago EV ও Tigor EV সম্মিলিতভাবে মোট ৫,৮০৫ ইউনিট বিক্রি হয়েছে। ফলে গত বছর একই সময়ের (৩,৫০৫ ইউনিট) তুলনায় মে মাসের বিক্রিতে ৬৬ শতাংশ অগ্রগতি ঘটেছে টাটার। এই সাফল্যের নেপথ্যে এ বছরের শুরুতে তৎকালীন দেশের সবচেয়ে সস্তা ইলেকট্রিক ফোর হুইলাস Tiago EV-র লঞ্চকে কৃতিত্ব দেওয়া যায়। লঞ্চের মাত্র চার মাসের মধ্যে ইলেকট্রিক হ্যাচব্যাক গাড়িটির ১০,০০০ ইউনিট বিক্রি হয়েছে।

Tata Motors মে মাসে 5,805টি বৈদ্যুতিক গাড়ি বেচল

যদিও এপ্রিলের তুলনায় মে’তে টাটার বৈদ্যুতিক গাড়ির বিক্রি কিছুটা কমতে দেখা গেছে। এপ্রিলে মোট ৬,৫১৬ ক্রেতার হাতে বৈদ্যুতিক গাড়ির চাবি তুলে দিয়েছিল টাটা। মে’তে তাদের সংস্থার মোট যাত্রীবাহী গাড়ি বিক্রির মধ্যে ৮% অবদান রেখেছে ইভি। আগের মাসে টাটা মোট ৭৩,৪৪৮টি প্যাসেঞ্জার ভেহিকেল বিক্রি করেছে।

Tiago EV হচ্ছে টাটার ইভি লাইনআপে নবতম সংযোজন। এটি তাদের সবচেয়ে সস্তার ব্যাটারি চালিত মডেল। দেশের মধ্যেও অন্যতম সাশ্রয়ী বৈদ্যুতিক গাড়ির তকমা পেয়েছে এটি। Tiago EV-এর বর্তমান মূল্য ৮.৬৯ লক্ষ টাকা থেকে শুরু করে ১১.৯৯ লক্ষ টাকা (এক্স-শোরুম) পর্যন্ত গিয়েছে। দেশের দ্রুততম বুকিং প্রাপ্ত ব্যাটারি গাড়ি হিসেবেও পরিচিত এটি।

টাটা টিয়াগো ইভি-এর রেঞ্জ ৩১৫ কিলোমিটার। গাড়িটির ইলেকট্রিক মোটর থেকে ৭৪ এইচপি এবং ১১৪ এনএম টর্ক উৎপন্ন হয়। ০-৬০ কিমি/ঘন্টার গতিবেগ ৫.৭ সেকেন্ডে তুলতে সক্ষম। বাটারি ১০-৮০% চার্জ হতে এক ঘন্টারও কম সময় লাগে। অন্যদিকে নেক্সন ইভি পরিবারে রয়েছে Nexon EV Max ও Nexon EV Prime। এটি বর্তমানে দেশের সর্বাধিক বিক্রিত বৈদ্যুতিক গাড়ি। গাড়িটি ইভি ম্যাক্স, ইভি প্রাইম এবং ডার্ক এডিনে উপলব্ধ। অন্যদিকে Tigor EV হল একমাত্র সেডান, যা বৈদ্যুতিক ভার্সনে এসেছে।