গাড়ি চালানোর স্বপ্নপূরণ, দেশে এই প্রথম তিন ফুট উচ্চতার কেউ ড্রাইভিং লাইসেন্স পেলেন

Published on:

কথায় আছে, ‘ইচ্ছে থাকলেই উপায় হয়’! ভারতের প্রথম ‘বামন’ হিসেবে ড্রাইভিং লাইসেন্স পেলেন হায়দ্রাবাদ নিবাসী গাট্টিপল্লী শিবপাল (Gattipally Shivpal)। ইতিমধ্যেই তাঁর নাম ‘লিমকা বুক অব রেকর্ডস’ (Limca Book of records)-এর জন্য মনোনীত করা হয়েছে। ৩ ফুট উচ্চতার শিবপালের ইচ্ছের পাশাপাশি ছিল প্রবল জেদ। যার ফলস্বরূপ তিনি এই অসাধ্য সাধন করতে সক্ষম হয়েছেন।

প্রবল বাধাবিপত্তি এড়িয়ে অবশেষে তেলেঙ্গানা করিমনগর জেলার সরকারি দপ্তর থেকে শিবপাল গাড়ি চালানোর ছাড়পত্র পেয়েছেন। এই প্রসঙ্গে তিনি সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে জানিয়েছেন, “আমার উচ্চতার কারণে লোকজন টিটকিরি দিত । এখন লিমকা বুক অফ রেকর্ডস এবং অন্যান্য জায়গায় আমার নাম মনোনীত করা হয়েছে। গাড়ি চালানোর প্রশিক্ষণ নিতে কম উচ্চতার অনেক মানুষ আমার সাথে যোগাযোগ করছেন।”

শিবপাল তাঁর কঠিন যাত্রাপথের বিভিন্ন স্মৃতি ভাগ করে নিয়েছেন সংবাদ সংস্থার সাথে। তিনি জানিয়েছেন, “ইন্টারনেট থেকে একটি ভিডিও দেখে আমি শিখেছিলাম গাড়ি চালানোর জন্য কীভাবে সিট ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের উচ্চতা নিজের সুবিধামতো করে নেওয়া যায়।” পরবর্তীতে শিবপাল তাঁর এক বন্ধুর থেকে গাড়ি চালানো শেখে।

গাড়ির লাইসেন্স পেতেও শিবপালকে যথেষ্ট বেগ পেতে হয়েছে। কারণ গাড়ি চালানোর জন্য পরিবহণ দপ্তরের নির্দেশাবলীতে একটি নির্দিষ্ট উচ্চতার কথা উল্লেখ থাকে। তা সত্ত্বেও তিনি ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার জন্য আবেদন জানান। তার কিছুদিনের মধ্যে তাঁকে একটি লার্নার লাইসেন্স দেওয়া হয়। এরপর আসে গাড়ি ট্রায়াল দেওয়ার সেই মুহূর্ত! সে সময় একজন সরকারি আধিকারিককে পাশে বসিয়ে তিনি গাড়ির চালানোর পরীক্ষা দেন এবং তাতে উত্তীর্ণ হন।

আগামী বছর শিবপালের একটি গাড়ি চালানোর প্রশিক্ষণ কেন্দ্র খোলার পরিকল্পনা রয়েছে। বর্তমানে তিনি একটি বেসরকারি সংস্থায় কাজ করছেন। সেই কাজটি পেতেও তাঁকে বহু খড়কুটো পোড়াতে হয়েছিল। শিবপাল জানিয়েছেন, একসময় সে ক্যাব ভাড়া করলেও তা বাতিল করে দেওয়া হত। কোথাও যেতে তাঁকে সবসময়ই গণপরিবহণের উপর নির্ভরশীল থাকতে হত। আসলে নিজের গাড়ি চালাতে গেলে প্রয়োজন ড্রাইভিং লাইসেন্স। আর সেটা করতে গিয়ে দেশের প্রথম বামন হিসেবে গড়লেন এক কীর্তি।

সঙ্গে থাকুন ➥