Realme 7 Pro কেনার আগে ভালো দিক ও খারাপ দিক জেনে নিন

Realme 7 Pro advantages and disadvantages

গত সপ্তাহেই ভারতে লঞ্চ হয়েছে Realme 7 ও Realme 7 Pro। এরমধ্যে রিয়েলমি ৭ প্রো হল এই সিরিজের টপ ভ্যারিয়েন্ট। যার বিক্রি শুরু হবে ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে। আপনি হয়তো এই ফোনটি কেনার কথা ভাবছেন। তবে মনে এই সংশয়ও নিশ্চই আছে যে ফোনটি ভালো হবে কিনা। এত চিন্তা করবেন না, কারণ আজ আমরা এই পোস্টে Realme 7 Pro এর ভালো দিক ও খারাপ দিকগুলি তুলে ধরবো। যারপরে আপনি নিশ্চিত হয়ে যাবেন যে রিয়েলমি ৭ প্রো আপনার জন্য উপযুক্ত হবে কিনা।

Realme 7 Pro দাম:

রিয়েলমি ৭ প্রো লঞ্চ হয়েছে দুটি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্টে। এর ৬ জিবি র‌্যাম ও ১২৮ জিবি স্টোরেজের দাম ১৯,৯৯৯ টাকা। আবার ৮ জিবি র‌্যাম ও ১২৮ জিবি স্টোরেজের দাম ২১,৯৯৯ টাকা।  

Realme 7 Pro এর ভালো দিক:

রিয়েলমি ৭ প্রো ফোনটি লেটেস্ট অপারেটিং সিস্টেম, অ্যান্ড্রয়েড ১০ বেসড রিয়েলমি ইউআই এর সাথে এসেছে। যা আপনাকে উন্নত সফটওয়্যার এক্সপেরিয়েন্স দেবে। রিয়েলমি ৭ প্রো ফোনে আছে ৬.৪ ইঞ্চি সুপার এমোলেড ফুল এইচডি প্লাস ডিসপ্লে। এই ডিসপ্লের রেজুলেশন ১০৮০ x ২৪০০ পিক্সেল এবং রিফ্রেশ রেট ৯০ হার্টজ। আবার এর স্ক্রিন টু বডি রেশিও ৯০.৮ শতাংশ।  বড় ডিসপ্লে হওয়ায় আপনি মুভি, ভিডিও প্রভৃতি দেখতে অসুবিধায় পড়বেন না।

এতে ব্যবহার করা স্ন্যাপড্রাগন ৭২০জি প্রসেসরও যথেষ্ট শক্তিশালী। সাথে গ্রাফিক্সের জন্য আছে এড্রেনো ৬১৮ জিপিইউ। যা আপনাকে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দেবে। এই ফোনে আপনি এক্সটার্নাল মাইক্রোএসডি কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন। যা সত্যি অনেকের প্রয়োজন হয়। কেন না আপনি এখানে ১২৮ জিবি স্টোরেজ পাবেন। আবার এর ৮ জিবি র‌্যাম দারুন মাল্টিটাস্কিং পারফরম্যান্স দেবে।

রিয়েলমি ৭ প্রো ফোনের পিছনে কোয়াড ক্যামেরা সেটআপ আছে। যার প্রাইমারি ক্যামেরা ৬৪ মেগাপিক্সেল সনি আইএমএক্স৬৮২ সেন্সর। এর অ্যাপারচার এফ/১.৮। অন্য তিনটি ক্যামেরা হল ১১৯ ডিগ্রী ৮ মেগাপিক্সেল আলট্রা ওয়াইড সেন্সর (এফ/২.৩), ২ মেগাপিক্সেল সাদা এবং কালো পোর্ট্রেট ক্যামেরা, ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো সেন্সর। সেলফি ও ভিডিও কলিংয়ের জন্য Realme 7 Pro ফোনের সামনে ৩২ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা দেওয়া হয়েছে। যার অ্যাপারচার এফ/২.৫। পিছনের ক্যামেরা দিয়ে ৩০ এফপিএস এ ৪কে ভিডিও, ১২০ এফপিএস এ ১০৮০পি ভিডিও রেকর্ড করা যাবে। আবার ফ্রন্ট ক্যামেরা দিয়েও সুন্দর সেলফি ফটো ক্যাপচার করা যাবে। এই ক্যামেরা দিয়ে ৩০/১২০ এফপিএস এ ১০৮০পি ভিডিও রেকর্ড করা যাবে।

এই ফোনে ৬৫ ওয়াট সুপার ডার্ট চার্জিং টেকনোলজি ব্যবহার করা হয়েছে। যা ৩৪ মিনিটে ফোনকে ০-১০০ চার্জ করে দেবে। ফোনটিতে আছে ৪,৫০০ এমএএইচ ব্যাটারি। বড় ব্যাটারি হওয়ায় ফোনটি অনেক্ষন ব্যাটারি ব্যাকআপ দেবে। চার্জিংয়ের জন্য এতে ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট উপলব্ধ। যা এখনকার দিনের সমস্ত মিড রেঞ্জের ফোনে দেখা যায়। আবার সিকিউরিটির জন্য এই ফোনে আছে ইন ডিসপ্লে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর।

Realme 7 Pro এর খারাপ দিক:

ভালো দিকগুলির সাথে রিয়েলমি ৭ প্রো এর কিছু খারাপ দিকও আছে। যেমন এই ফোনের ওজন ১৮২ গ্রাম, যা আপনার কিছুটা ভারী মনে হতে পারে।আবার ফোনটি কেবল মিরর সিলভার ও মিরর ব্লু কালারে পাওয়া যাবে। আপনি অন্য কোনো বিকল্প পাবেন না। আবার এতে টেম্পারেচার বা ব্যারোমিটার সেন্সর উপলব্ধ নেই। এটি তে Infrared বা ডেটা ট্রান্সফারের জন্য NFC দেওয়া হয়নি।